সদরঘাট থেকে মিরপুর যেতে খরচ ৩ হাজার টাকা!
jugantor
সদরঘাট থেকে মিরপুর যেতে খরচ ৩ হাজার টাকা!

  মিরপুর প্রতিনিধি    

২৩ জুলাই ২০২১, ১৪:৫৩:০৮  |  অনলাইন সংস্করণ

ছবি-যুগান্তর

রাজধানীর মিরপুর ১১ নম্বরের বাসিন্দা মিলন হোসেন। পেশায় কাপড় ব্যবসায়ী। ঈদের চারদিন আগে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে বেড়াতে যান গ্রামের বাড়ি চাঁদপুরে। বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে ঢাকার উদ্দেশে লঞ্চে উঠেন। শুক্রবার সকাল ৮টায় সদরঘাট পৌঁছান। লকডাউনে গণপরিবহণ বন্ধ থাকায় সেখান থেকে কয়েক ধাপে মিরপুরে পৌঁছান। আর এতে তার খরচ হয়েছে ৩ হাজার টাকার মতো।

বেলা ১১টায় এ প্রতিবেদকের সঙ্গে মিরপুর ১০ নম্বর গোল চত্বরে কথা হয় মিলন হোসেনের। এ সময় তিনি (মিলন) লাগেজ টেনে রাস্তা পার হচ্ছিলেন। এ কাজে তার ১০ বছরের মেয়ে তাকে সাহায্য করছিলেন।

মিলন জানান, সকাল ৮টায় সদরঘাটে লঞ্চ থামে। সেখান থেকে তার পরিবারের চার সদস্য মিলে দুটি রিকশা নিয়ে প্রথমে সদরঘাট কোর্টকাচারি আসেন। সেখান থেকে রাস্তা ভেঙে ভেঙে পাঁচটি ধাপে মিরপুর পৌঁছান।

তিনি জানান, গণপরিবহণ বন্ধ থাকায় প্রত্যেকবার ভাড়া লেগেছে তিনগুন কিংবা চারগুন।

মিলন আরও জানান, আড়াই ঘণ্টার ব্যবধানে মিরপুর ১০ নম্বর পৌঁছানোর পর দেখেন তার পকেট ফাঁকা। তাই লাগেজ টেনে মিরপুর ১০ নম্বর থেকে পায়ে হেঁটে ১১ নম্বরে যাচ্ছেন।

সদরঘাট থেকে মিরপুর যেতে খরচ ৩ হাজার টাকা!

 মিরপুর প্রতিনিধি   
২৩ জুলাই ২০২১, ০২:৫৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ছবি-যুগান্তর
ছবি-যুগান্তর

রাজধানীর মিরপুর ১১ নম্বরের বাসিন্দা মিলন হোসেন। পেশায় কাপড় ব্যবসায়ী। ঈদের চারদিন আগে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে বেড়াতে যান গ্রামের বাড়ি চাঁদপুরে। বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে ঢাকার উদ্দেশে লঞ্চে উঠেন। শুক্রবার সকাল ৮টায় সদরঘাট পৌঁছান। লকডাউনে গণপরিবহণ বন্ধ থাকায় সেখান থেকে কয়েক ধাপে মিরপুরে পৌঁছান। আর এতে তার খরচ হয়েছে ৩ হাজার টাকার মতো। 

বেলা ১১টায় এ প্রতিবেদকের সঙ্গে মিরপুর ১০ নম্বর গোল চত্বরে কথা হয় মিলন হোসেনের। এ সময় তিনি (মিলন) লাগেজ টেনে রাস্তা পার হচ্ছিলেন। এ কাজে তার ১০ বছরের মেয়ে তাকে সাহায্য করছিলেন। 

মিলন জানান, সকাল ৮টায় সদরঘাটে লঞ্চ থামে। সেখান থেকে তার পরিবারের চার সদস্য মিলে দুটি রিকশা নিয়ে প্রথমে সদরঘাট কোর্টকাচারি আসেন। সেখান থেকে রাস্তা ভেঙে ভেঙে পাঁচটি ধাপে মিরপুর পৌঁছান। 

তিনি জানান, গণপরিবহণ বন্ধ থাকায় প্রত্যেকবার ভাড়া লেগেছে তিনগুন কিংবা চারগুন। 

মিলন আরও জানান, আড়াই ঘণ্টার ব্যবধানে মিরপুর ১০ নম্বর পৌঁছানোর পর দেখেন তার পকেট ফাঁকা। তাই লাগেজ টেনে মিরপুর ১০ নম্বর থেকে পায়ে হেঁটে ১১ নম্বরে যাচ্ছেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন