রিকশা রাখাকে কেন্দ্র করে পিটুনিতে চালক নিহত
jugantor
রিকশা রাখাকে কেন্দ্র করে পিটুনিতে চালক নিহত

  পুরান ঢাকা প্রতিনিধি  

১৩ অক্টোবর ২০২১, ২২:০০:২৩  |  অনলাইন সংস্করণ

রিকশাচালক

রাজধানীর কামরাঙ্গীরচরে রাস্তার ওপর রিকশা রাখাকে কেন্দ্র করে দুই রিকশাচালকের মধ্যে মারামারিতে শফিকুল ইসলাম (৫০) নামে একজনের মৃত‌্যু হয়েছে।

মঙ্গলবার রাতে হুজুরপাড়া এলাকার সাদেকুলের গ্যারেজের সামনে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় অপর রিকশাচালক হোসেন ও গ‌্যারেজ মালিক সাদেকুল পালাতক রয়েছেন।

নিহত রিকশাচালক শফিকুলের বাড়ি বগুড়া হলেও বর্তমানে পরিবারের নিয়ে তিনি হুজুরপাড়া এলাকায় বসবাস করতেন।

কামরাঙ্গীরচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান যুগান্তরকে বলেন, হুজুরপাড়া এলাকায় ওই গ‌্যারেজে দুই জনই রিকশা চালাতেন। রিকশা রাখাকে কেন্দ্র করে উভয়ের মধ্যে হাতাহাতি হয়। ঝগড়া শেষ হওয়ার দশ পনের মিনিট পর শফিকুল মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব‌্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

লাশের ময়নাতদন্তের জন‌্য বুধবার সকালে স‌্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ মিটফোর্ড হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। অভিযুক্ত হোসেনকে আটকের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বলে জানান তিনি।

রিকশা রাখাকে কেন্দ্র করে পিটুনিতে চালক নিহত

 পুরান ঢাকা প্রতিনিধি 
১৩ অক্টোবর ২০২১, ১০:০০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
রিকশাচালক
প্রতীকী ছবি

রাজধানীর কামরাঙ্গীরচরে রাস্তার ওপর রিকশা রাখাকে কেন্দ্র করে দুই রিকশাচালকের মধ্যে মারামারিতে শফিকুল ইসলাম (৫০) নামে একজনের মৃত‌্যু হয়েছে। 

মঙ্গলবার রাতে হুজুরপাড়া এলাকার সাদেকুলের গ্যারেজের সামনে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় অপর রিকশাচালক হোসেন ও গ‌্যারেজ মালিক সাদেকুল পালাতক রয়েছেন। 

নিহত রিকশাচালক শফিকুলের বাড়ি বগুড়া হলেও বর্তমানে পরিবারের নিয়ে তিনি হুজুরপাড়া এলাকায় বসবাস করতেন।

কামরাঙ্গীরচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান যুগান্তরকে বলেন, হুজুরপাড়া এলাকায় ওই গ‌্যারেজে দুই জনই রিকশা চালাতেন। রিকশা রাখাকে কেন্দ্র করে উভয়ের মধ্যে হাতাহাতি হয়। ঝগড়া শেষ হওয়ার দশ পনের মিনিট পর শফিকুল মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব‌্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। 

লাশের ময়নাতদন্তের জন‌্য বুধবার সকালে স‌্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ মিটফোর্ড হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। অভিযুক্ত হোসেনকে আটকের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বলে জানান তিনি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন