২০ গজ দূরত্বে একই ট্রেনে কাটা পড়লেন নারী-পুরুষ
jugantor
২০ গজ দূরত্বে একই ট্রেনে কাটা পড়লেন নারী-পুরুষ

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

১৭ অক্টোবর ২০২১, ১৯:৪৪:৫৫  |  অনলাইন সংস্করণ

রেললাইন

রাজধানীর বনানী চেয়ারম্যান বাড়ি এলাকায় ট্রেনে কাটা পড়ে এক নারীসহ দুজনের মৃত্যু হয়েছে। নিহতরা হলেন, সাইদুল ইসলাম (৩৫) ও অজ্ঞাতপরিচয় নারী (৩২)।

শনিবার দিবাগত রাতে কমলাপুরগামী কিশোরগঞ্জ এক্সপ্রেস ট্রেনে কাটা পড়ে ঘটনাস্থলেই দুজনের মৃত্যু হয়। রোববার ঢাকা রেলওয়ে থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) সাকলাইন এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

এএসআই সাকলাইন জানান, নিহত পুরুষের পরিচয় পাওয়া গেলেও নারীর পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়নি। একই ট্রেনের নিচে বিশ গজ দূরত্বে দুর্ঘটনা দু’টি ঘটে। আইনি প্রক্রিয়া শেষে তাদের মরদেহ দুটি ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়।

পুলিশ জানায়, নিহত সাইদুল ইসলাম (৩৫) পেশায় একজন রিকশাচালক ছিলেন। তিনি বরগুনা সদর উপজেলার আন্দার মানিক গ্রামের জালাল হাওলাদারের সন্তান। বর্তমানে মহাখালী সাততলা বস্তি এলাকায় থাকতেন। মৃত নারীর সঙ্গে তার পূর্ব পরিচয় ছিল কিনা এ বিষয়েও নিশ্চিতভাবে জানা যায়নি। ফিঙ্গারপ্রিন্টের মাধ্যমে নারীর পরিচয় জানার চেষ্টা চলছে।

২০ গজ দূরত্বে একই ট্রেনে কাটা পড়লেন নারী-পুরুষ

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
১৭ অক্টোবর ২০২১, ০৭:৪৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
রেললাইন
ফাইল ছবি

রাজধানীর বনানী চেয়ারম্যান বাড়ি এলাকায় ট্রেনে কাটা পড়ে এক নারীসহ দুজনের মৃত্যু হয়েছে। নিহতরা হলেন, সাইদুল ইসলাম (৩৫) ও অজ্ঞাতপরিচয় নারী (৩২)। 

শনিবার দিবাগত রাতে কমলাপুরগামী কিশোরগঞ্জ এক্সপ্রেস ট্রেনে কাটা পড়ে ঘটনাস্থলেই দুজনের মৃত্যু হয়। রোববার ঢাকা রেলওয়ে থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) সাকলাইন এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

এএসআই সাকলাইন জানান, নিহত পুরুষের পরিচয় পাওয়া গেলেও নারীর পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়নি। একই ট্রেনের নিচে বিশ গজ দূরত্বে দুর্ঘটনা দু’টি ঘটে। আইনি প্রক্রিয়া শেষে তাদের মরদেহ দুটি ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়।

পুলিশ জানায়, নিহত সাইদুল ইসলাম (৩৫) পেশায় একজন রিকশাচালক ছিলেন। তিনি বরগুনা সদর উপজেলার আন্দার মানিক গ্রামের জালাল হাওলাদারের সন্তান। বর্তমানে মহাখালী সাততলা বস্তি এলাকায় থাকতেন। মৃত নারীর সঙ্গে তার পূর্ব পরিচয় ছিল কিনা এ বিষয়েও নিশ্চিতভাবে জানা যায়নি। ফিঙ্গারপ্রিন্টের মাধ্যমে নারীর পরিচয় জানার চেষ্টা চলছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন