মাইগ্রেশনের দাবিতে নাইটিংগেল মেডিকেল শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন
jugantor
মাইগ্রেশনের দাবিতে নাইটিংগেল মেডিকেল শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

০৭ ডিসেম্বর ২০২১, ১৬:৫৩:৩৪  |  অনলাইন সংস্করণ

নাইটিংগেল মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীরা মাইগ্রেশনের দাবিতে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছেন।

মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টায় এ অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন শিক্ষার্থীরা।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা বলছেন, কলেজ কর্তৃপক্ষ মাইগ্রেশনের আশ্বাস দেওয়ার পর ৭৩ দিন পার হয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত কোনো আশার বাণী পাননি তারা। এর আগেও একাধিকবার আন্দোলনে নামে তারা।
এবার দাবি আদায় না হলে কঠোর কর্মসূচির ঘোষণাও দেন তারা।

ফাহমিদা তানজিম নামে এক শিক্ষার্থী বলেন, আমি নাইটিংগেল মেডিকেল কলেজের চতুর্থ বর্ষের ছাত্রী। আমরা ভর্তির সময় কলেজটি বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিল (বিএমডিসি) অনুমোদনপ্রাপ্ত আছে বলে কলেজসংশ্লিষ্টরা জানিয়েছিলেন। পরে জানতে পারি এ কলেজের বিএমডিসি অনুমোদন নেই। এমন প্রেক্ষাপটে কর্তৃপক্ষ অতি দ্রুত বিএমডিসির ব্যবস্থা করবেন। কিন্তু দীর্ঘ চার বছর অতিবাহিত হলেও উনারা কোনো ধরনের ব্যবস্থা নেননি।এ অবস্থায় আমাদের এই কলেজে পড়াশোনা চালিয়ে যাওয়া সম্ভব নয়। তাই আমাদের অতি দ্রুত মাইগ্রেট করে অন্য মেডিকেলে পাঠানোর অনুরোধ জানাচ্ছি।

মেডিকেলটির চতুর্থ বর্ষের ছাত্র ইমরান খান ইমন বলেন, ‘এ কলেজের হাসপাতালে পর্যাপ্ত রোগী না থাকায় রোগ সম্পর্কিত জ্ঞানার্জন ব্যাহত হচ্ছে। এমতাবস্থায় এখানে পড়াশোনা চালিয়ে যাওয়া সম্ভব নয়। তাই আমাদের অন্যত্র মাইগ্রেশনের ব্যবস্থা করা হোক।

আরেক ছাত্রী নারগিস আমিন বলেন, মেডিকেল কলেজের হাসপাতালের অবস্থা অত্যন্ত নাজুক।

পর্যাপ্ত চিকিৎসা দেওয়ার মতো নেই কোনো চিকিৎসক। ফার্মেসিরও নেই কোনো ড্রাগ লাইসেন্স। সার্জারি করার মতো কোনো সার্জনও নেই। এ অবস্থায় আমাদের শিক্ষা ব্যাহত হচ্ছে। তাই আমাদের অতি দ্রুত মাইগ্রেট করে অন্য মেডিকেলে পাঠানোর দাবি জানাচ্ছি।

মাইগ্রেশনের দাবিতে নাইটিংগেল মেডিকেল শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
০৭ ডিসেম্বর ২০২১, ০৪:৫৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নাইটিংগেল মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীরা মাইগ্রেশনের দাবিতে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছেন।

মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টায় এ অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন শিক্ষার্থীরা।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা বলছেন, কলেজ কর্তৃপক্ষ মাইগ্রেশনের আশ্বাস দেওয়ার পর ৭৩ দিন পার হয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত কোনো আশার বাণী পাননি তারা। এর আগেও একাধিকবার আন্দোলনে নামে তারা।
এবার দাবি আদায় না হলে কঠোর কর্মসূচির ঘোষণাও দেন তারা।

ফাহমিদা তানজিম নামে এক শিক্ষার্থী বলেন, আমি নাইটিংগেল মেডিকেল কলেজের চতুর্থ বর্ষের ছাত্রী। আমরা ভর্তির সময় কলেজটি বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিল (বিএমডিসি) অনুমোদনপ্রাপ্ত আছে বলে কলেজসংশ্লিষ্টরা জানিয়েছিলেন। পরে জানতে পারি এ কলেজের বিএমডিসি অনুমোদন নেই। এমন প্রেক্ষাপটে কর্তৃপক্ষ অতি দ্রুত বিএমডিসির ব্যবস্থা করবেন। কিন্তু দীর্ঘ চার বছর অতিবাহিত হলেও উনারা কোনো ধরনের ব্যবস্থা নেননি।এ অবস্থায় আমাদের এই কলেজে পড়াশোনা চালিয়ে যাওয়া সম্ভব নয়। তাই আমাদের অতি দ্রুত মাইগ্রেট করে অন্য মেডিকেলে পাঠানোর অনুরোধ জানাচ্ছি।

মেডিকেলটির চতুর্থ বর্ষের ছাত্র ইমরান খান ইমন বলেন, ‘এ কলেজের হাসপাতালে পর্যাপ্ত রোগী না থাকায় রোগ সম্পর্কিত জ্ঞানার্জন ব্যাহত হচ্ছে। এমতাবস্থায় এখানে পড়াশোনা চালিয়ে যাওয়া সম্ভব নয়। তাই আমাদের অন্যত্র মাইগ্রেশনের ব্যবস্থা করা হোক।

আরেক ছাত্রী নারগিস আমিন বলেন, মেডিকেল কলেজের হাসপাতালের অবস্থা অত্যন্ত নাজুক।

পর্যাপ্ত চিকিৎসা দেওয়ার মতো নেই কোনো চিকিৎসক। ফার্মেসিরও নেই কোনো ড্রাগ লাইসেন্স। সার্জারি করার মতো কোনো সার্জনও নেই। এ অবস্থায় আমাদের শিক্ষা ব্যাহত হচ্ছে। তাই আমাদের অতি দ্রুত মাইগ্রেট করে অন্য মেডিকেলে পাঠানোর দাবি জানাচ্ছি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন