স্কুল ছাত্রীকে জোর করে তুলে নেয় দুর্বৃত্তরা, উদ্ধার হয়নি আড়াই মাসেও
jugantor
সংবাদ সম্মেলনে বাবা-মা
স্কুল ছাত্রীকে জোর করে তুলে নেয় দুর্বৃত্তরা, উদ্ধার হয়নি আড়াই মাসেও

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

১৫ মে ২০২২, ২২:২৪:০০  |  অনলাইন সংস্করণ

আড়াই মাসেও অপহৃত কিশোরী উদ্ধার না হওয়ায় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চেয়েছেন মেয়েটির বাবা শফিউল ইসলাম। রোববার জাতীয় প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে মেয়েকে ফিরে পেতে তিনি প্রধানমন্ত্রীর এ হস্তক্ষেপ চান।

শফিউল বলেন, ‘প্রতিদিনের মতো গত ২৭ ফেব্রুয়ারি সকালে আমার মেয়ে রিয়া আক্তার (১৫) স্কুলে যায়। সে দক্ষিণখান গার্লস স্কুলের দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী। প্রতিদিন স্কুল শেষ করে বাসায় ফিরলেও এদিন স্কুল শেষে বাসায় ফিরেনি।’

তিনি বলেন, ‘অনেক সময় অপেক্ষা করার পরেও মেয়ে বাসায় ফিরে না আসায় স্কুলের সামনে যাই। সেখানে গিয়ে জানতে পারি বেশ কয়েকজন দুর্বৃত্ত আমার মেয়েকে স্কুলের সামনে থেকে জোরপূর্বক মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে গেছে। এ ঘটনায় ১ মার্চ দক্ষিণখান থানায় মামলা করি। কিন্তু প্রায় দেড় মাস পেরিয়ে গেলেও আমার মেয়ের কোনো সন্ধান পায়নি পুলিশ।’

পুলিশ আমার মেয়ে সম্পর্কে কোনো তথ্য দিতে পারেনি বা উদ্ধার করতে পারেনি জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এ অবস্থায় বার বার দক্ষিনখান থানা পুলিশের শরণাপন্ন হলেও তাদের তেমন কোনো সহযোগিতা পাইনি।’

অপহৃত স্কুল ছাত্রীর বাবা বলেন, ‘সুজন মিয়া নামের স্থানীয় এক ভাড়াটিয়া বেশ কিছুদিন ধরে আমার মেয়েকে স্কুলে যাওয়া-আসার পথে উত্ত্যক্ত করে আসছিল। মেয়ে প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় তুলে নিয়ে যাওয়ার হুমকি দিয়ে আসছিল।’

প্রত্যক্ষদর্শীদের থেকে জানতে পারি, ‘সুজন মিয়া সন্ত্রাসীদের নিয়ে একটি মাইক্রোবাসে করে আমার মেয়েকে স্কুলের সামনে থেকে জোরপূর্বক অপহরণ করে। এরপর সুজন মিয়ার মোবাইল নম্বর সংগ্রহ করে তার মোবাইলে ফোন করলে তার ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়। সুজন যে বাসায় ভাড়া থাকে, ওই ঘটনার পর থেকে সুজনও বাসায় ফেরেনি বলে জানান তিনি।’

অভিযুক্ত সুজন বিবাহিত ও তার তিনজন সন্তান রয়েছে জানিয়ে শফিউল বলেন, ‘আমি আমার মেয়েকে উদ্ধারের ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

এছাড়া এই অপহরণের সঙ্গে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।’ সংবাদ সম্মেলনে অপহৃত রিয়া আক্তারের মা, তার চাচা ও মামা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে বাবা-মা

স্কুল ছাত্রীকে জোর করে তুলে নেয় দুর্বৃত্তরা, উদ্ধার হয়নি আড়াই মাসেও

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
১৫ মে ২০২২, ১০:২৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

আড়াই মাসেও অপহৃত কিশোরী উদ্ধার না হওয়ায় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চেয়েছেন মেয়েটির বাবা শফিউল ইসলাম। রোববার জাতীয় প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে মেয়েকে ফিরে পেতে তিনি প্রধানমন্ত্রীর এ হস্তক্ষেপ চান।

শফিউল বলেন, ‘প্রতিদিনের মতো গত ২৭ ফেব্রুয়ারি সকালে আমার মেয়ে রিয়া আক্তার (১৫) স্কুলে যায়। সে দক্ষিণখান গার্লস স্কুলের দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী। প্রতিদিন স্কুল শেষ করে বাসায় ফিরলেও এদিন স্কুল শেষে বাসায় ফিরেনি।’

তিনি বলেন, ‘অনেক সময় অপেক্ষা করার পরেও মেয়ে বাসায় ফিরে না আসায় স্কুলের সামনে যাই। সেখানে গিয়ে জানতে পারি বেশ কয়েকজন দুর্বৃত্ত আমার মেয়েকে স্কুলের সামনে থেকে জোরপূর্বক মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে গেছে। এ ঘটনায় ১ মার্চ দক্ষিণখান থানায় মামলা করি। কিন্তু প্রায় দেড় মাস পেরিয়ে গেলেও আমার মেয়ের কোনো সন্ধান পায়নি পুলিশ।’

পুলিশ আমার মেয়ে সম্পর্কে কোনো তথ্য দিতে পারেনি বা উদ্ধার করতে পারেনি জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এ অবস্থায় বার বার দক্ষিনখান থানা পুলিশের শরণাপন্ন হলেও তাদের তেমন কোনো সহযোগিতা পাইনি।’

অপহৃত স্কুল ছাত্রীর বাবা বলেন, ‘সুজন মিয়া নামের স্থানীয় এক ভাড়াটিয়া বেশ কিছুদিন ধরে আমার মেয়েকে স্কুলে যাওয়া-আসার পথে উত্ত্যক্ত করে আসছিল। মেয়ে প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় তুলে নিয়ে যাওয়ার হুমকি দিয়ে আসছিল।’ 

প্রত্যক্ষদর্শীদের থেকে জানতে পারি, ‘সুজন মিয়া সন্ত্রাসীদের নিয়ে একটি মাইক্রোবাসে করে আমার মেয়েকে স্কুলের সামনে থেকে জোরপূর্বক অপহরণ করে। এরপর সুজন মিয়ার মোবাইল নম্বর সংগ্রহ করে তার মোবাইলে ফোন করলে তার ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়। সুজন যে বাসায় ভাড়া থাকে, ওই ঘটনার পর থেকে সুজনও বাসায় ফেরেনি বলে জানান তিনি।’

অভিযুক্ত সুজন বিবাহিত ও তার তিনজন সন্তান রয়েছে জানিয়ে শফিউল বলেন, ‘আমি আমার মেয়েকে উদ্ধারের ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হস্তক্ষেপ কামনা করছি। 

এছাড়া এই অপহরণের সঙ্গে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।’ সংবাদ সম্মেলনে অপহৃত রিয়া আক্তারের মা, তার চাচা ও মামা উপস্থিত ছিলেন।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন