রাজধানীতে মোবাইল ফোন নিয়ে বিরোধে কিশোর খুন
jugantor
রাজধানীতে মোবাইল ফোন নিয়ে বিরোধে কিশোর খুন

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১১:৪৬:৫২  |  অনলাইন সংস্করণ

রাজধানীর কাঁঠালবাগান এলাকায় মোবাইল ফোন নিয়ে বিরোধের জেরে এক কিশোর খুন হয়েছে। এ ঘটনায় অপর এক কিশোরকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

নিহত কিশোরের নাম শিপন মিয়া (১৫)। গ্রেফতার কিশোরের নাম স্বাধীন। বৃহস্পতিবার রাতে কাঁঠালবাগানের মসজিদ রোড এলাকায় এ হত্যাকাণ্ড ঘটে।

কলাবাগান থানা পুলিশ জানায়, নিহত শিপন ফ্রিজ মেরামতের কাজ শিখছিল। সে কাঁঠালবাগান স্টাফ কোয়ার্টারে পরিবারের সঙ্গে থাকত। কাঁঠালবাগানে তার বাবার মুরগির দোকান আছে।

শিপনের বাবা মুদি দোকানি মজিবুর মিয়া বলেন, রাত ১০টার দিকে শিপনকে স্বাধীন নামের স্থানীয় এক কিশোরের সঙ্গে ঘোরাঘুরি করতে দেখেন তিনি। রাত ১০টার পর তার কাছে খবর আসে শিপনকে কুপিয়েছে স্বাধীন। রক্তাক্ত অবস্থায় শিপনকে উদ্ধার করে রাত সাড়ে ১২টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে যান তিনি।

ঢামেক হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক বাচ্চু মিয়া জানান, শিপনকে হাসপাতালে আনার পর পরই চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

শিপনের বাবার দাবি, হামলাকারী স্বাধীন ও তার সহযোগীরা মাদকাসক্ত ও ছিনতাইয়ে জড়িত। অপরাধ সংঘটনে রাজি করাতে না পেরে হয়তো শিপনকে কুপিয়ে হত্যা করেছে।

কলাবাগান থানার পরিদর্শক (অপারেশন) বিজন রায় বলেন, মোবাইল ফোনসংক্রান্ত বিষয় নিয়ে শিপনকে খুন করে থাকতে পারে স্বাধীন। ছেলেটি মাদকাসক্ত।

রাজধানীতে মোবাইল ফোন নিয়ে বিরোধে কিশোর খুন

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১১:৪৬ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রাজধানীর কাঁঠালবাগান এলাকায় মোবাইল ফোন নিয়ে বিরোধের জেরে এক কিশোর খুন হয়েছে। এ ঘটনায় অপর এক কিশোরকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

নিহত কিশোরের নাম শিপন মিয়া (১৫)। গ্রেফতার কিশোরের নাম স্বাধীন। বৃহস্পতিবার রাতে কাঁঠালবাগানের মসজিদ রোড এলাকায় এ হত্যাকাণ্ড ঘটে। 

কলাবাগান থানা পুলিশ জানায়, নিহত শিপন ফ্রিজ মেরামতের কাজ শিখছিল। সে কাঁঠালবাগান স্টাফ কোয়ার্টারে পরিবারের সঙ্গে থাকত। কাঁঠালবাগানে তার বাবার মুরগির দোকান আছে।

শিপনের বাবা মুদি দোকানি মজিবুর মিয়া বলেন, রাত ১০টার দিকে শিপনকে স্বাধীন নামের স্থানীয় এক কিশোরের সঙ্গে ঘোরাঘুরি করতে দেখেন তিনি। রাত ১০টার পর তার কাছে খবর আসে শিপনকে কুপিয়েছে স্বাধীন। রক্তাক্ত অবস্থায় শিপনকে উদ্ধার করে রাত সাড়ে ১২টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে যান তিনি। 

ঢামেক হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক বাচ্চু মিয়া জানান, শিপনকে হাসপাতালে আনার পর পরই চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। 

শিপনের বাবার দাবি, হামলাকারী স্বাধীন ও তার সহযোগীরা মাদকাসক্ত ও ছিনতাইয়ে জড়িত। অপরাধ সংঘটনে রাজি করাতে না পেরে হয়তো শিপনকে কুপিয়ে হত্যা করেছে।

কলাবাগান থানার পরিদর্শক (অপারেশন) বিজন রায় বলেন, মোবাইল ফোনসংক্রান্ত বিষয় নিয়ে শিপনকে খুন করে থাকতে পারে স্বাধীন। ছেলেটি মাদকাসক্ত।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন