নতুন নেতৃত্বকে সুযোগ দিতে আগামী কমিটিতে থাকতে চান না সীমান্ত হাসান
jugantor
নতুন নেতৃত্বকে সুযোগ দিতে আগামী কমিটিতে থাকতে চান না সীমান্ত হাসান

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

৩০ নভেম্বর ২০২২, ২৩:১৫:৪২  |  অনলাইন সংস্করণ

দীর্ঘদিন ধরে মানবিক কাজে জড়িত ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সীমান্ত হাসান। আসন্ন আগামী কাউন্সিলে সভাপতি প্রার্থী হতে আগ্রহী নন বলে জানিয়েছেন তিনি। সংগঠনে নতুন, স্বচ্ছ, মানবিক, ত্যাগী ও কর্মীবান্ধব নেতৃত্ব তৈরির সুযোগ দিতে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। নতুন নেতৃত্ব তৈরির সুযোগ দিতে আগামী কমিটিতে থাকতে চানা না এ ছাত্রনেতা।

আগামী ২ ডিসেম্বর ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ ছাত্রলীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এ সম্মেলন হবে। কমিটিতে স্থান পেতে পদপ্রত্যাশীদের দৌড়ঝাঁপ শুরু হয়েছে। বিশেষ করে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক- শীর্ষ এই দুই পদ পেতে প্রার্থীরা আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে যাচ্ছেন।

তবে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ছাত্রলীগের বর্তমান কমিটির সহ-সভাপতি সীমান্ত হাসান সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি এখন যুবলীগে যোগ দেবেন। তাই তিনি এই সম্মেলনে প্রার্থী হবেন না।

এদিকে এ ছাত্রনেতা সব সময়ই বিভিন্ন মানবিক কাজে জড়িত থাকেন। অসহায়-গরিব শিক্ষার্থীদের পাশে দাঁড়ানো থেকে শুরু করে অসহায় ছিন্নমূল মানুষের মাঝে খাবার বিতরণ, বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ, অসুস্থ রোগীদের চিকিৎসা ব্যবস্থা, করোনা মহামারিতে ঢাকার বিভিন্ন থানায় খাবার বিতরণ, পবিত্র রমজানে ঢাকা দক্ষিণের সব থানায় খাবার বিতরণ করেন তিনি।

বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুবার্ষিকী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিটি জন্মদিনে লম্বা কর্মসূচি পালন করেন তিনি। ৮ দিনব্যাপী এসব কর্মসূচিতে রাখেন বৃদ্ধাশ্রমে খাবার বিতরণ ও কেক কাটা, শিক্ষা সামগ্রী বিতরণ, ছিন্নমূল শিশুদের খাবার বিতরণ, এতিমখানা ও মাদ্রাসায় মিলাদ ও দোয়া এবং খাবার বিতরণ করা।

সীমান্ত হাসান আগামীতে যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশের নেতৃত্বে এসব মানবিক কাজ করে যেতে চান। তিনি বলেন, নতুন নেতৃত্ব তৈরির সুযোগ দিতে আগামী কমিটিতে থাকতে চাই না। যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ ভাইয়ের নির্দেশনায় সংগঠন করতে চাই। আমার মানবিক কাজগুলো এই মানবিক সংগঠনের মাধ্যমে করতে চাই।

নতুন নেতৃত্বকে সুযোগ দিতে আগামী কমিটিতে থাকতে চান না সীমান্ত হাসান

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
৩০ নভেম্বর ২০২২, ১১:১৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

দীর্ঘদিন ধরে মানবিক কাজে জড়িত ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সীমান্ত হাসান। আসন্ন আগামী কাউন্সিলে সভাপতি প্রার্থী হতে আগ্রহী নন বলে জানিয়েছেন তিনি। সংগঠনে নতুন, স্বচ্ছ, মানবিক, ত্যাগী ও কর্মীবান্ধব নেতৃত্ব তৈরির সুযোগ দিতে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। নতুন নেতৃত্ব তৈরির সুযোগ দিতে আগামী কমিটিতে থাকতে চানা না এ ছাত্রনেতা।

আগামী ২ ডিসেম্বর ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ ছাত্রলীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এ সম্মেলন হবে। কমিটিতে স্থান পেতে পদপ্রত্যাশীদের দৌড়ঝাঁপ শুরু হয়েছে। বিশেষ করে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক- শীর্ষ এই দুই পদ পেতে প্রার্থীরা আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে যাচ্ছেন।

তবে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ছাত্রলীগের বর্তমান কমিটির সহ-সভাপতি সীমান্ত হাসান সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি এখন যুবলীগে যোগ দেবেন। তাই তিনি এই সম্মেলনে প্রার্থী হবেন না। 

এদিকে এ ছাত্রনেতা সব সময়ই বিভিন্ন মানবিক কাজে জড়িত থাকেন। অসহায়-গরিব শিক্ষার্থীদের পাশে দাঁড়ানো থেকে শুরু করে অসহায় ছিন্নমূল মানুষের মাঝে খাবার বিতরণ, বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ, অসুস্থ রোগীদের চিকিৎসা ব্যবস্থা, করোনা মহামারিতে ঢাকার বিভিন্ন থানায় খাবার বিতরণ, পবিত্র রমজানে ঢাকা দক্ষিণের সব থানায় খাবার বিতরণ করেন তিনি। 

বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুবার্ষিকী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিটি জন্মদিনে লম্বা কর্মসূচি পালন করেন তিনি। ৮ দিনব্যাপী এসব কর্মসূচিতে রাখেন বৃদ্ধাশ্রমে খাবার বিতরণ ও কেক কাটা, শিক্ষা সামগ্রী বিতরণ, ছিন্নমূল শিশুদের খাবার বিতরণ, এতিমখানা ও মাদ্রাসায় মিলাদ ও দোয়া এবং খাবার বিতরণ করা। 

সীমান্ত হাসান আগামীতে যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশের নেতৃত্বে এসব মানবিক কাজ করে যেতে চান। তিনি বলেন, নতুন নেতৃত্ব তৈরির সুযোগ দিতে আগামী কমিটিতে থাকতে চাই না। যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ ভাইয়ের নির্দেশনায় সংগঠন করতে চাই। আমার মানবিক কাজগুলো এই মানবিক সংগঠনের মাধ্যমে করতে চাই।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন