জাবালে নূরের সেই বাসচালক গ্রেফতার

প্রকাশ : ৩০ জুলাই ২০১৮, ২০:৪৩ | অনলাইন সংস্করণ

  যুগান্তর ডেস্ক

দুই শিক্ষার্থীকে চাপা দেয়া আটক জাবালে নূরের বাস। ছবি: যুগান্তর

রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে দুই শিক্ষার্থীকে চাপা দেওয়া জাবালে নূর পরিবহনের সেই বাসচালক মাসুম বিল্লাহকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। 

সোমবার বরগুনা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। এর আগে দুপুরে জাবালে নূর পরিবহনের দু’টি বাসের দুই চালক সোহাগ (৩৫) ও জুবায়ের (৩৬) এবং তাদের দুই সহযোগী এনায়েত (৩৮) ও রিপনকে (৩২) গ্রেফতার করা হয়। র‌্যাব-১ গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

র‌্যাব-১-এর অধিনায়ক জানান, শনিবার রাতে একাধিক অভিযানে চারজনকে গ্রেফতার করা হয়। পরে তাদের দেওয়া তথ্য ও গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে বরগুনা থেকে মাসুমকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার মাসুমকে বরগুনা থেকে ঢাকায় আনা হচ্ছে।

র‌্যাব ও সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, দুর্ঘটনার সময় ঘটনাস্থলে তিনটি বাস প্রতিযোগিতা করে আগে যাত্রী তোলার চেষ্টা করে। তিনটি বাসই ছিল জাবালে নূর পরিবহনের। ঢাকা মেট্রো ব ১১-৯২৯৭ নম্বরের বাসটি শিক্ষার্থীদের চাপা দিয়েছিল। দুর্ঘটনার সময় ওই বাসটির চালকের আসনে ছিলো মাসুম বিল্লাহ। 

দুর্ঘটনার পরপরই সে বাস থেকে নেমে পালিয়ে যায়। দুই শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার পর বিষয়টি ব্যপক আলোচনা শুরু হলে রাতেই  বরগুনায় চলে যায়। তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় র‌্যাব-১-এর একটি দল তার অবস্থান শনাক্তের পর বরগুনা থেকে তাকে গ্রেফতার করে।

এদিকে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, চাপা দেওয়া বাসটির চালকের সহযোগী ছিলো এনায়েত। ঘটনার পরপরই বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা তাকে আটক করে। এদিকে র‌্যাব-১ এর অভিযানিক দল শনিবার রাতে অভিযান চালিয়ে মিরপুর এলাকা থেকে দুর্ঘটনার সময় জাবালে নূরের  অন্য বাসের (ঢাকা মেট্রো ব-১১৭৬৫৭) চালক জুবায়ের ও ঢাকা মেট্রো ব ১১-৭৫৮০ নম্বর বাসের চালক সোহাগকে গ্রেফতার করে। এছাড়া চালক সোহাগের সহযোগী রিপনকেও গ্রেফতার করা হয়।

 

রোববার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে হোটেল রেডিসনের সামনে অপেক্ষমাণ শিক্ষার্থীদের চাপা দেয় জাবালে নূর (ঢাকা মেট্রো ব-১১৯২৯৭) পরিবহনের একটি বাস।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সড়কে বাসের জন্য অপেক্ষা করছিলেন অনেক শিক্ষার্থী।

এ সময় মোহাম্মদপুর-আব্দুল্লাহপুর রুটে চলাচলকারী জাবালে নূর পরিবহনের একটি বেপরোয়া বাস তাদের ওপর উঠিয়ে দেয়া হয়। এতে ঘটনাস্থলেই এক ছাত্র ও এক ছাত্রী নিহত হন।

এদিকে ঘটনার পর ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট এলাকার ওই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা বেরিয়ে এসে রাস্তা আটকে বিক্ষোভ শুরু করেন। এ সময় সেখানে বেশ কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর করা হয়।

ক্যান্টনমেন্ট থানার এএসআই রেজাউল ইসলাম জানান, দুর্ঘটনাস্থলের পাশেই শহীদ রমিজউদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজ।

ঘটনার সময় শিক্ষার্থীরা র‌্যাডিসনের গ্যাপ দিয়ে রাস্তা পার হচ্ছিলেন, অনেকে বাসের জন্য ফুটপাতে দাঁড়িয়ে ছিলেন।

এ সময় জাবালে নূর পরিবহনের একটি বাস শিক্ষার্থীদের চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই দুজন নিহত হন।

খবর পেয়ে শিক্ষার্থীরা বেরিয়ে এসে সড়কে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ শুরু করেন। বিক্ষুব্ধ ছাত্ররা কয়েকটি যানবাহনে ভাঙচুরও চালায় বলে জানান পুলিশের এ কর্মকর্তা।

তবে ঘটনাস্থলে থাকা পুলিশ সদস্যরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছেন বলে জানিয়েছেন ট্রাফিক পুলিশের নিয়ন্ত্রণ কক্ষে দায়িত্বরত এসআই মুন্নি আক্তার।