উত্তরায় সহিংসতা: বিমানবন্দর সড়কে বাস চলাচল স্বাভাবিক

প্রকাশ : ৩১ জুলাই ২০১৮, ১৯:২০ | অনলাইন সংস্করণ

  উত্তরা প্রতিনিধি

রাজধানীর উত্তরায় বিক্ষুব্ধ ছাত্রদের দেয়া আগুনে একটি বাস জ্বলছে।ছবি: যুগান্তর

বাসের চাপায় দুই শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার ঘটনায় তৃতীয় দিনে উত্তরায় ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে অবরোধ করে বিভিন্ন স্কুল-কলেজের ছাত্ররা আন্দোলন করেছে। বিক্ষুব্ধ ছাত্ররা অর্ধশতাধিক গাড়ি ভাঙচুর করে এবং এনা ও বুশরা পরিবহনের দুটি দূরপাল্লার বাসে আগুন ধরিয়ে দেয়।

এ সময় পুলিশ ও র‌্যাবের সঙ্গে দফায় দফায় ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া ও ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে। জসিম উদ্দিন রোডের দুটি পুলিশ বক্স ভাঙচুর করে এবং পুলিশের দুটি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করে। আগুন নেভাতে আসা দমকল বাহিনীর গাড়িতেও হামলা চালায় বিক্ষোভকারী ছাত্ররা।  পরে বিক্ষুব্ধ ছাত্ররা আন্দোলন চালিয়ে যাবে বলে ঘোষণা দিয়ে সড়ক থেকে বিদায় নিলে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়।

জাবালে নূর পরিবহনের বাসের চাপায় দুই ছাত্র নিহতের ঘটনায় মঙ্গলবার সকাল থেকেই উত্তরা বিএনএস সেন্টার এর সামনে জড়ো হয় উত্তরার এশিয়ান ইউনিভার্সিটি, শান্তমরিয়াম ইউনিভার্সিটি, উত্তরা ইউনিভার্সিটি,  মাইলস্টোন কলেজ,উত্তরা হাইস্কুল, টংগী সরকারি কলেজ,বঙ্গবন্ধু সরকারি কলেজ,উত্তরা কমার্স কলেজসহ বিভিন্ন স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা।

এ সময় বারবার রাস্তায় ব্যারিকেড দিতে চাইলে পুলিশি বাধায় ব্যর্থ হয়।  দফায় দফায় বিএনএস সেন্টারের সামনে হাউজ বিল্ডিং  নর্থ টাওয়ারের সামনে এবং আইডিয়ালের সামনে তারা রাস্তা অবরোধ করতে চেষ্টা করে।  

দুপুরের দিকে জসিমউদ্দিন রোড থেকে র‌্যাব-১ কার্যালয় পর্যন্ত মহাসড়কের দুই সাইড অবরোধ করে হাজার হাজার ছাত্র ছাত্ররা বিভিন্ন গাড়িতে ভাঙচুর চালায়। এ সময় প্রায় অর্ধশতাধিক গাড়ি ভাঙচুর করে এবং এনা ও বুশরা পরিবহনের দুটি দূরপাল্লার বাসে আগুন ধরিয়ে দেয় বিকাল ৫টায় আন্দোলন চলবে বলে ছাত্ররা ফিরে গেলে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়। এর আগে দুপুরে  হাজার হাজার ছাত্ররা রাস্তা অবরোধ করে বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকে এ সময় পুলিশের পাশাপাশি কয়েকশ র‌্যাব মোতায়েন করা হয়। এ সময় ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের দুই পাশে কয়েক কিলোমিটার যানজট তৈরি হয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ছাত্র যুগান্তরকে জানান, আমাদের ভাইবোনের হত্যার বিচার চাই। আমাদের রাস্তায় ও পরিবহনে চলার নিশ্চয়তা চাই। মৃত্যুদণ্ডের আইন পাস হলেই আমরা ঘরে ফিরে যাব।