ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে সিএমজেএফের মানববন্ধন

সাংবাদিকদের ওপর হামলাকারীদের ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে গ্রেফতার দাবি

প্রকাশ : ০৮ আগস্ট ২০১৮, ১৮:২৬ | অনলাইন সংস্করণ

  যুগান্তর রিপোর্ট

মানববন্ধন কর্মসূচিতে ক্যাপিটাল মার্কেট জার্নালিস্টস ফোরাম (সিএমজেএফ)-এর নেতৃবৃন্দ। ছবি: যুগান্তর

সাংবাদিকদের ওপর হামলাকারীদের ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে গ্রেফতার দাবি করেছে শেয়ারবাজারের রিপোর্টারদের সংগঠন ক্যাপিটাল মার্কেট জার্নালিস্টস ফোরাম (সিএমজেএফ)।

বুধবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সামনে আয়োজিত মানববন্ধন থেকে এ দাবি জানানো হয়। অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষর্থীদের আন্দোলন চলাকালে পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে কয়েকজন সংবাদকর্মী সন্ত্রাসী হামলার শিকার হয়েছেন। এতে রাজপথে সংবাদকর্মীরা রক্তাক্ত হন।

সিএমজেএফ’র সভাপতি হাসান ইমাম রুবেলের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক মনির হোসেনের পরিচালনায় মানববন্ধন কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখেন ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও সিএমজেএফ সদস্য রাজু আহমেদ, ইকোনমিক রিপোর্টার্স  ফোরামের (ইআরএফ) অর্থ সম্পাদক রাশেদুল ইসলাম, ইআরএফের সিনিয়র সদস্য সাইফুল ইসলাম, সিএমজেএফের অর্থ সম্পাদক আবু আলী, কার্যনির্বাহী সদস্য নিয়াজ মাহমুদ সোহেল, ফারহান ফেরদৌস, প্রমুখ।

সিএমজেএফ’র সভাপতি  হাসান ইমাম রুবেল বলেন, সাংবাদিকদের ওপর হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই। সাংবাদিকরা যাতে নিরাপদে পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে পারে তার ব্যবস্থা করতে হবে।

তিনি বলেন, তথ্যমন্ত্রী চিঠি লিখে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে সাংবাদিকদের ওপর হামলাকরীদের বিচার  চেয়েছেন।  এটি যেন শুধু চিঠি চালাচালির মধ্যে সীমাবন্ধ না থাকে। আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে হামলাকারীদের গ্রেফতার করা না হলে অন্য সাংবাদিক সংগঠনগুলোর সঙ্গে যৌথভাবে সিএমজেএফও কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করবে।

সিএমজেএফ’র সাধারণ সম্পদ মনির হোসেন বলেন, কোনো রাজনৈতিক দলের ব্যাপারে কোনো ধরনের দুর্বলতা অথবা বিদ্বেষ আমাদের নেই।  আমরা সহকর্মীদের ওপর হামলার বিচার চাই।  হামলাকারীরা যে দলের বা গোষ্ঠীর হোক, তাদের খুঁজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে।

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক রাজু আহমেদ বলেন, সাংবাদিকদের ওপর হামলাকারীদের গ্রেফতারের দাবিতে সাংবাদিক নেতারা ৭২ ঘণ্টা সময় বেঁধে দিয়েছেন।  ইতিমধ্যে ২৪ ঘণ্টা পেরিয়ে গেছে। আমরা  দেখতে চাই বাকি ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে কী ধরণের পদক্ষেপ  নেয়া হয়। এ সময়ের মধ্যে হামলাকারীদের গ্রেফতার করা না হলে কঠোর কর্মসূচি  ঘোষণা করা হবে।