সদরঘাট ইজারায় নৌমন্ত্রীর বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ

  যুগান্তর রিপোর্ট ০৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২১:২৭ | অনলাইন সংস্করণ

নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান
নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান। ফাইল ছবি

রাজধানীর সদরঘাটের বিভিন্ন ঘাট ইজারা দেয়ার ক্ষেত্রে নানা অনিয়মের আশ্রয় নিয়েছেন নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান। প্রকৃত লোকজনকে ঘাট ইজারা না দিয়ে ক্ষমতা অপব্যবহার করে পছন্দের লোকজনকে ঘাটের ইজারা দিয়েছেন তিনি। নিয়ম অনুযায়ী ঘাট সমবায় সমিতিকে রাজধানীর সদরঘাট ইজারা দেয়া কথা। কিন্তু মন্ত্রী তার আস্থাভাজন লোকজনের মাধ্যমে সদরঘাট পরিচালনা করছেন।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এক সংবাদ সম্মেলনে জাতীয় ঘাট শ্রমিক লীগ নেতারা এসব অভিযোগ করেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে জাতীয় ঘাট শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম খোকন বলেন, স্বাধীনতার পর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ঘাটে মধ্যস্বত্বভোগী ইজারাদারি প্রথা বিলুপ্ত করে ঘাট সমবায় সমিতিকে সহজমূল্যে ঘাট ইজারা দেয়ার ব্যবস্থা করেছিলেন। কিন্তু জাতির জনককে হত্যার পর বঙ্গবন্ধুর অনুসৃত নীতি বিলুপ্ত করে দেয়া হয়। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর ১৯৯৭ সালে বঙ্গবন্ধু সরকারের নীতি অনুযায়ী ঘাট শ্রমিক সমবায় সমিতিকে ঘাট বরাদ্দ দেয়া হয়।

জাতীয় ঘাট শ্রমিক লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, বর্তমান সরকারের আমলে শাজাহান খান নৌমন্ত্রী হওয়ার পর বঙ্গবন্ধু-শেখ হাসিনার নীতি বাতিল করে সদরঘাট টার্মিনালসহ বিভিন্ন ঘাটে খাস কালেকশনের নামে লুটপাটের রাজত্ব কায়েম করেছেন। তিনি কখনো বিএনপির চিহ্নিত লোক, কখনো ভুয়া ঘাট শ্রমিক দিয়ে ঘাট পরিচালনা করে আসছেন।

তিনি বলেন, অথচ শ্রম দফতর এবং জাতীয় ঘাট শ্রমিক লীগের অনুমোদিত কমিটি এবং শ্রমিক লীগের সমর্থিত শত শত ঘাট শ্রমিককে ঘাট এলাকায় কাজ করতে দিচ্ছেন না। এতে ঘাট শ্রমিকরা নিদারুণ দুরবস্থার মধ্য দিয়ে দিনাতিপাত করছেন। এমতাবস্থায় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আকুল আবেদন, অনুগ্রহ করে জাতীয় ঘাট শ্রমিক লীগ ও এই সংগঠনের শত শত ঘাট শ্রমিককে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের রাহুগ্রাস থেকে বাঁচান।

সংবাদ সম্মেলনে জাতীয় ঘাট শ্রমিক লীগের কার্যকরী সভাপতি ফরহাদ হোসেন পরু বলেন, নৌপরিবহনমন্ত্রী তার আস্থাভাজন লোকজনকে সদরঘাটের বিভিন্ন ঘাট পরিচালনার দায়িত্ব দিচ্ছেন। মন্ত্রী বিভিন্ন জায়গায় বলছেন, শ্রমিকদের কাছে বিআইডব্লিউটিএর ইজারার সাড়ে ৫ কোটি টাকা পাওনা রয়েছে। এ বিষয়ে আমাদের বক্তব্য, গত ৯ বছর ধরে আমরা সদরঘাটের কোনো কাজই পাচ্ছি না। তাই আমাদের কাছে বিআইডব্লিউটিএ কোনো টাকা পাওয়ার প্রশ্নই আসে না। তারপরও আমরা বলব- সরকারের অর্থ যদি কেউ আত্মসাৎ করে থাকে তাহলে তাদের শাস্তি দিন। কিন্তু আমাদের বঞ্চিত করবেন না।

ফরহাদ হোসেন পরু আরও বলেন, মন্ত্রী ঢালাওভাবে শ্রমিকদের ওপর নানা দায় চাপাচ্ছেন। আমরা আওয়ামী লীগ পরিবারের সদস্য হিসেবে মন্ত্রীর এ ধরনের বক্তব্য প্রত্যাশা করি না। এ সময় সংগঠনের সভাপতি আব্দুল জলিলসহ অন্য নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter