দুই বছরের মধ্যে রাজধানীর গণপরিবহনে শৃঙ্খলা আসবে: সাঈদ খোকন

  যুগান্তর রিপোর্ট ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২০:১৫ | অনলাইন সংস্করণ

সংবাদ সম্মেলনে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন।
সংবাদ সম্মেলনে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন। ছবি-যুগান্তর

ঢাকা মহানগরীর গণপরিবহনে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে যানজট নিরসন করতে অন্তত দুই বছর সময় লাগবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন।

তিনি বলেছেন, পৃথিবীর বড় বড় শহরগুলোতেও যানজট আছে। তবে সেখানে সড়কে মৃত্যুর মিছিল নেই। আমরা বিশেষজ্ঞদের পরামর্শের আলোকে রাজধানীর যানজট সহনীয় মাত্রায় নিয়ে আসব। এ ক্ষেত্রে গণপরিবহনের শৃঙ্খলা আনয়ন ও সড়কে মৃত্যুর মিছিল প্রতিরোধকে বেশি গুরুত্ব দেব। সড়কের মৃত্যুর মিছিল আমাদের নাড়া দিয়ে যায়। প্রতিদিন সকালে পত্রিকায় কোনো না কোনো সড়ক দুর্ঘটনা খবর পড়ে বের হতে হয় আমাদের। আমরা দৃশ্যপট বদলে দিতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করব।

সোমবার রাজধানী ঢাকার ফুলবাড়ীয়ার নগরভবন মিলনায়তনে ঢাকা মহানগরী গণপরিবহন নিয়ন্ত্রণ ও যানজট নিরসন বিষয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন-ঢাকা যানবাহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষের (ডিটিসিএ) নির্বাহী পরিচালক খন্দকার রাকিবুর রহমান, ডিএসসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা খান মো. বিলাল প্রমুখ।

এক প্রশ্নের জবাবে ডিএসসিসি মেয়র বলেন, ২৬ সেবা সংস্থা নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে যে কমিটি গঠিত হয়েছে, ওই কমিটিতে সেবা সংস্থার প্রতিনিধিরা কার্যকর সহযোগিতা করছে না। এ কারণে ওই সমন্বয় কমিটি দিয়ে কার্যকর কোনো ফলাফল আসছে না। নতুন সমন্বয় সংস্থার বৈঠকে সংশ্লিষ্টরা প্রতিনিধিরা সে ধরনের ভূমিকা পালন করবেন না বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন মেয়র সাঈদ খোকন।

প্রসঙ্গত, ঢাকার দুই সিটি মেয়র পৃথকভাবে ওই কমিটির আহ্বায়ক। দুই মেয়রের নেতৃত্বে এ সংক্রান্ত সেবা সংস্থার একাধিক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। তবে ওই সেবা সংস্থার কর্ণধাররা সভায় যোগদান না করায়, এসব ব্যাপারে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে এ কমিটির সভায় তেমন কোনো সাফল্য আসেনি। আর সেবা সংস্থার কর্ণধাররা এসব সভায় না আসার অন্যতম কারণ, সংশ্লিষ্ট সংস্থার কর্ণধাররা সভায় না আসলে কোনো শাস্তির বিধান নেই। এ কারণে ২৬ সংস্থার প্রতিনিধিরা মেয়রের নেতৃত্বাধীন সেবা সংস্থার সভাকে তেমন কোনো গুরুত্ব দেননি।

সোমবার স্থানীয় সরকার বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সিনিয়র সচিব ড. জাফর আহমদ খান স্বাক্ষরিত আরেক প্রজ্ঞাপনে ঢাকা মহানগরীর পরিবহন খাতের শৃঙ্খলা আনয়ন ও যানজট নিরসনবিষয়ক একটি সমন্বয় কমিটি গঠিত হয়েছে। ১০ সদস্যবিশিষ্ট এ কমিটির আহ্বায়ক ডিএসসিসির মেয়র। যুগ্ম আহ্বায়ক ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) প্যানেল মেয়র।

এছাড়া অন্যান্য প্রতিনিধিদের মধ্যে রয়েছেন-কমিটির সদস্য সচিব ডিটিসিএর নির্বাহী পরিচালক। আর সদস্যরা হলেন-বিআরটিএ চেয়ারম্যান, বিআরটিসি চেয়ারম্যান, রাজউক চেয়ারম্যান, ডিএমপি কমিশনার, গণপরিবহন বিশেষজ্ঞ ড. এস এম সালেহ উদ্দিন, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির মহাসচিব, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি।

এ কমিটির সভায়ও সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত না হলেও তাদের বিরুদ্ধে কোনো শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের সুযোগ রাখা হয়নি। এ কারণে এ কমিটির সাফল্য নিয়েও প্রশ্ন তৈরি হয়েছে নগরবাসীর মাঝে।

সংবাদ সম্মেলনে ডিএসসিসি মেয়র বলেন, গণপরিবহনে শৃঙ্খলা ফেরাতে অন্তত ৪ হাজার ৫০০ বাস নামাতে হবে। আর এসব বাস এক দিনে নামানো সম্ভব না। এসব বাস তৈরি করতেও সময় লাগবে। এ জন্য কিছু সময় দরকার। এ মাসের শেষ সপ্তাহে এ সংক্রান্ত সভায় এ ব্যাপারে বিস্তারিত আলোচনা শেষে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মেয়র বলেন, ঢাকা মহানগরীর সড়ক নিরাপদ, যানজট নিরসন করতে এবং গণপরিবহনে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনার বিষয়ে নাগরিক অসচেতনতাকে বড় চ্যালেঞ্জ মনে করছি।

তিনি আরও বলেন, রাজধানীতে যাটজটের অন্যতম প্রধান কারণ প্রাইভেট গাড়ি। আর সে বিষয়েই প্রজ্ঞাপনে কোনো দিকনির্দেশনা নেই। তবে বিআরটিএ এই কমিটিতে রয়েছে, আমরা বৈঠকে বসলে আলোচনা করব।

ঘটনাপ্রবাহ : কোম্পানির মাধ্যমে বাস পরিচালনা

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.