রেডিমেড ঘর মেকার আব্দুর রহমানের গল্প
jugantor
রেডিমেড ঘর মেকার আব্দুর রহমানের গল্প

  সংবাদ বিজ্ঞপ্তি  

২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২১:২২:২৩  |  অনলাইন সংস্করণ

মুন্সীগঞ্জের বিক্রমপুরের একটি দীর্ঘ ঐতিহ্য হল টিন এবং কাঠের অনন্যভাবে নির্মাণ করা ঘর। মুন্সীগঞ্জের এই ঘরগুলো সুন্দর এবং নান্দনিক ডিজাইনে তৈরি, যেটি এই জেলা জুড়ে বিখ্যাত।

মুন্সীগঞ্জের আবহাওয়ার অবস্থার কথা চিন্তা করে এই ঘরগুলি নির্মাণের ধারণা তৈরি হয়েছিল বাংলাদেশে, বিশেষ করে মুন্সিগঞ্জে নদীভাঙনের সম্ভাবনা খুবই প্রবল। মুন্সীগঞ্জের মানুষ পর্যায়ক্রমে নদী তীরের ভাঙনের অনিবার্য দুর্যোগে ভুগছে এবং ঘরবাড়ি হারানোর ভয় সেখানে সাধারণ মানুষের জন্য একটি ব্যাপক উদ্বেগের বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে।

মানুষের সমস্যা পর্যবেক্ষণ করে এবং তার সমাধানের কথা চিন্তা করে মুন্সীগঞ্জ এর স্থানীয়, ধলাগাঁও বাজারের বিক্রেতা জনাব আব্দুর রহমান ঢেউ টিন দিয়ে প্রথম রেডিমেড ঘর বানানোর ধারণা নিয়ে আসেন।

দীর্ঘ ৯ বছর সৌদি আরবে কাটানোর পর আব্দুর রহমান বাংলাদেশে এসে এই ব্যবসা শুরু করেন, তিনি ২৫বছর যাবত এই ব্যবসায় জড়িত আছেন।

এই সুন্দর রেডিমেড ঘরগুলো আবুল খায়ের স্টীলের গরু মার্কা ঢেউটিন, কাউ ব্র্যান্ড কালার কোটেড স্টীল এবং জিংকএলুম দিয়ে তৈরি। ১৯৯৫ সালে, তিনি গরু মার্কা ঢেউটিনের সম্পর্কে জানতে পারেন এবং এটি দিয়ে প্রাথমিকভাবে ঘর তৈরি শুরু করেন। পরবর্তীতে তিনি কাউ ব্র্যান্ড কালার কোটেড স্টীল এবং জিংকএলুম দিয়েও ঘর তৈরি শুরু করেন।

মানুষ যাতে সহজে তাদের ঘরগুলো স্থানান্তর করতে পারে তাই এই রেডিমেড বাড়ি তৈরির ধারণা নিয়ে আসেন তিনি । সহজে স্থানান্তর করার ক্ষমতা থাকায় এই ঘরগুলো নদীভাঙ্গন এর কারনে ক্ষতিগ্রস্ত হয় না, তাই তার এই উদ্যোগ জনগনের জন্য নিয়ে এসেছে আশার আলো।

সৌদি আরব থেকে ফিরে আসার পর আব্দুর রহমান বুঝে উঠতে পারছিলেন না কোন ব্যবসা তাকে সাফল্যের পথ দেখাবে। সাধারণ মানুষের প্রকৃতি এবং চাহিদা অধ্যয়ন করে তিনি গ্রামের মানুষকে সাহায্য করার একটি মহৎ উপায় প্রদানের মাধ্যমে এই ব্যবসাটি শুরু করার কথা ভাবেন।

আব্দুর রহমান এর আবুল খায়ের স্টীলকে বেছে নেওয়ার কারণ হল এই স্টীলের গুণগত মান । তার দীর্ঘ এই ২৫ বছরের ব্যবসায় তিনি ক্রেতাদের থেকে ঘরগুলোর বিষয়ে কোন ধরনের অভিযোগ পাননি কারণ, এই ঢেউটিন গুলো ক্ষয় হয় কম এবং সহজে মরিচা ধরে না। তাছাড়া এই টিন গুলো তাপ প্রতিরোধী যা উষ্ণ তাপমাত্রার সময় ঘরকে শীতল রাখে ।

তিনি এই রেডিমেড ঘরগুলোর জন্য সব সময় ক্রেতাদের থেকে প্রশংসা পেয়ে এসেছেন, যার জন্য তার ক্রেতাদের তিনি ১০০% গ্যারান্টি নিশ্চিত করে থাকেন এবং সারা জীবন এভাবেই সেবা দিয়ে যাবার আশা রাখেন।

তিনি নিজেও এই ব্যবসাটি নিয়ে খুব সন্তুষ্ট এবং আনন্দিত, ভবিষ্যতে তার পরিকল্পনা রয়েছে সারা দেশে এই ব্যবসাটি ছড়িয়ে দেবার।

আবুল খায়ের স্টীল তার এই সফল যাত্রার অংশ হতে পেরে সৌভাগ্যবান এবং আব্দুর রহমানের মতো এমন আরও মানুষের কাছে এই ধরনের মানসম্মত পণ্য নিশ্চিত করার জন্য সর্বদা বদ্ধপরিকর।

রেডিমেড ঘর মেকার আব্দুর রহমানের গল্প

 সংবাদ বিজ্ঞপ্তি 
২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:২২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মুন্সীগঞ্জের বিক্রমপুরের একটি দীর্ঘ ঐতিহ্য হল টিন এবং কাঠের অনন্যভাবে নির্মাণ করা ঘর। মুন্সীগঞ্জের এই ঘরগুলো সুন্দর এবং নান্দনিক ডিজাইনে তৈরি, যেটি এই জেলা জুড়ে বিখ্যাত। 

মুন্সীগঞ্জের আবহাওয়ার অবস্থার কথা চিন্তা করে এই ঘরগুলি নির্মাণের ধারণা তৈরি হয়েছিল বাংলাদেশে, বিশেষ করে মুন্সিগঞ্জে নদীভাঙনের সম্ভাবনা খুবই প্রবল। মুন্সীগঞ্জের মানুষ পর্যায়ক্রমে নদী তীরের ভাঙনের অনিবার্য দুর্যোগে ভুগছে এবং ঘরবাড়ি হারানোর ভয় সেখানে সাধারণ মানুষের জন্য একটি ব্যাপক উদ্বেগের বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে।

মানুষের সমস্যা পর্যবেক্ষণ করে এবং তার সমাধানের কথা চিন্তা করে মুন্সীগঞ্জ এর স্থানীয়, ধলাগাঁও বাজারের বিক্রেতা জনাব আব্দুর রহমান ঢেউ টিন দিয়ে প্রথম রেডিমেড ঘর বানানোর ধারণা নিয়ে আসেন। 

দীর্ঘ ৯ বছর সৌদি আরবে কাটানোর পর আব্দুর রহমান বাংলাদেশে এসে এই ব্যবসা শুরু করেন, তিনি ২৫বছর যাবত এই ব্যবসায় জড়িত আছেন।  

এই সুন্দর রেডিমেড ঘরগুলো আবুল খায়ের স্টীলের গরু মার্কা ঢেউটিন, কাউ ব্র্যান্ড কালার কোটেড স্টীল এবং জিংকএলুম দিয়ে তৈরি। ১৯৯৫ সালে, তিনি গরু মার্কা ঢেউটিনের সম্পর্কে জানতে পারেন এবং এটি দিয়ে প্রাথমিকভাবে ঘর তৈরি শুরু করেন। পরবর্তীতে তিনি কাউ ব্র্যান্ড কালার কোটেড স্টীল এবং জিংকএলুম দিয়েও ঘর তৈরি শুরু করেন।   

মানুষ যাতে সহজে তাদের ঘরগুলো স্থানান্তর করতে পারে তাই এই রেডিমেড বাড়ি তৈরির ধারণা নিয়ে আসেন তিনি । সহজে স্থানান্তর করার ক্ষমতা থাকায় এই ঘরগুলো নদীভাঙ্গন এর কারনে ক্ষতিগ্রস্ত হয় না, তাই তার এই উদ্যোগ জনগনের জন্য নিয়ে এসেছে আশার আলো।  

সৌদি আরব থেকে ফিরে আসার পর আব্দুর রহমান বুঝে উঠতে পারছিলেন না কোন ব্যবসা তাকে সাফল্যের পথ দেখাবে। সাধারণ মানুষের প্রকৃতি এবং চাহিদা অধ্যয়ন করে তিনি গ্রামের মানুষকে সাহায্য করার একটি মহৎ উপায় প্রদানের মাধ্যমে এই ব্যবসাটি শুরু করার কথা ভাবেন।
 
আব্দুর রহমান এর আবুল খায়ের স্টীলকে বেছে নেওয়ার কারণ হল এই স্টীলের গুণগত মান । তার দীর্ঘ এই ২৫ বছরের ব্যবসায় তিনি ক্রেতাদের থেকে ঘরগুলোর বিষয়ে কোন ধরনের অভিযোগ পাননি কারণ, এই ঢেউটিন গুলো ক্ষয় হয় কম এবং সহজে মরিচা ধরে না। তাছাড়া এই টিন গুলো তাপ প্রতিরোধী যা উষ্ণ তাপমাত্রার সময় ঘরকে শীতল রাখে ।  

তিনি এই রেডিমেড ঘরগুলোর জন্য সব সময় ক্রেতাদের থেকে প্রশংসা পেয়ে এসেছেন, যার জন্য তার ক্রেতাদের তিনি ১০০% গ্যারান্টি নিশ্চিত করে থাকেন এবং সারা জীবন এভাবেই সেবা দিয়ে যাবার আশা রাখেন।

তিনি নিজেও এই ব্যবসাটি নিয়ে খুব সন্তুষ্ট এবং আনন্দিত, ভবিষ্যতে তার পরিকল্পনা রয়েছে সারা দেশে এই ব্যবসাটি ছড়িয়ে দেবার। 

আবুল খায়ের স্টীল তার এই সফল যাত্রার অংশ হতে পেরে সৌভাগ্যবান এবং আব্দুর রহমানের মতো এমন আরও মানুষের কাছে এই ধরনের মানসম্মত পণ্য নিশ্চিত করার জন্য সর্বদা বদ্ধপরিকর।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন