ভালুকা হাসপাতালে পানির অভাবে চরম ভোগান্তিতে রোগীরা

  ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি ১৬ অক্টোবর ২০১৮, ২১:৫২ | অনলাইন সংস্করণ

ভালুকা হাসপাতালে পানির অভাবে চরম ভোগান্তিতে রোগীরা

ছয় দিন ধরে ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পানি সরবরাহ বন্ধ রয়েছে। এতে হাসপাতালে রোগীরা চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন।

হাসপাতালের একমাত্র পানির পাম্পের কয়েল পুড়ে যাওয়ায় পানি সরবরাহ বন্ধ রয়েছে। পানির অভাব ও ভোগান্তি সহ্য করতে না পেরে অনেক রোগী হাসপাতাল ছেড়ে চলে গেছেন। বর্তমানে হাসপাতালের অনেক বিছানাই খালি পড়ে রয়েছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, গত বৃহস্পতিবার বিকালে ভালুকা সরকারি এ হাসপাতালের একমাত্র পানির পাম্পটি নষ্ট হয়ে যায়। এ ব্যাপারে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ গত শনিবার সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি অবগত করে। এরই মাঝে পার হয়ে গেছে ৬ দিন। এখনও ময়মনসিংহ জেলা স্বাস্থ্য ও প্রকৌশল বিভাগ কোনো প্রকার পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি। এতে হাসপাতালের জরুরি বিভাগ, আন্তবিভাগ, বহির্বিভাগ, ট্রমা সেন্টার জরুরি প্রসূতি বিভাগ (ইওসি) কোথাও পানি নেই। হাসপাতালে পানি সরবরাহ বন্ধ থাকায় ভোগান্তি সহ্য করতে না পেরে ৫০ শয্যার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অনেক রোগী চলে গেছেন।

নারী ও পুরুষ ওয়ার্ডে পাঁচ-ছয়জন রোগী ভর্তি আছেন। তাদের সঙ্গে থাকা স্বজনরা পানি সংগ্রহের জন্য বালতি, জগ ও বোতল নিয়ে হাসপাতালের বাইরে মসজিদের নলকূপ থেকে পানি এনে প্রয়োজনীয় কাজ করছেন। পানি না থাকায় রোগীরা গোসল করতে পারছেন না। প্রতিদিনই হাসপাতালের জরুরি বিভাগে ২ শতাধিক রোগী আসেন। পানি না থাকায় এসব রোগীদেরকেও ভোগান্তিতে পড়তে হয়েছে।

এক রোগীর স্বজন আফছার আলী বলেন, আমাদের রোগী অনেক বেশি অসুস্থ। নাহলে আমরাও চলে যেতাম। পানির জন্য এত কষ্ট সহ্য করার মতো না।

হাসপাতালে মহিলা ওয়ার্ডে ভর্তি রোগী রাজিয়া খাতুন জানান, হাসপাতালে ৬ দিন ধরে পানি নেই। পানি না থাকায় চরম সমস্যায় ভোগছেন তিনি। ৫ দিন ধরে গোসল করতে পারছেন না।

আরেক রোগী জালাল উদ্দিন জানান, পানি না থাকায় অনেক কষ্ট করছেন। শৌচাগারে পানি নেই। বাইরের মসজিদের চাপকল থেকে পানি এনে নিতান্তই প্রয়োজনীয় কাজ করছেন। পানি না থাকায় অনেক ভর্তি রোগী চিকিৎসা না নিয়েই চলে যাচ্ছে। হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক (আরএমও) ডা. মোস্তাক আহম্মেদ জানান, গত বৃহস্পতিবার বিকালে হাসপাতালের পানির প্রধান পাম্পটি নষ্ট হয়ে যায়। পরে শনিবার চিঠির মাধ্যমে বিষয়টি ময়মনসিংহ স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরকে জানানো হয়েছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. একরাম উল্লাহ জানান,পাম্পটি নষ্ট হওয়ায় রোগীদের খুবই সমস্যা হচ্ছে। স্বাস্থ্য ও প্রকৌশল বিভাগের লোকজন মঙ্গলবারই আসার কথা। খুবই শীঘ্রই হাসপাতালের পানির সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।

ময়মনসিংহ জেলা সিভিল সার্জন ডা.আব্দুর রব জানান, বিষয়টি জানার পর তিনি জেলা স্বাস্থ্য প্রকৌশল বিভাগকে বারবার অবগত করার পরও তারা কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। বিষয়টি আগামী সমন্বয় সভায় উপস্থান করা হবে।

এ ব্যাপারে জানতে ময়মনসিংহ জেলা স্বাস্থ্য ও প্রকৌশল বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী দুলাল চন্দ্রের মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করে না পেয়ে ক্ষুদে বার্তা পাঠানো হয়। কিন্তু তাকে পাওয়া যায়নি।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter