জেলেদের তালিকা নিয়ে অনিয়ম

পিরোজপুরে চেয়ারম্যানের ক্যাডারদের হাতে ৫ ইউপি সদস্য জখম

প্রকাশ : ২২ অক্টোবর ২০১৮, ২২:২৮ | অনলাইন সংস্করণ

  পিরোজপুর প্রতিনিধি

পিরোজপুরের নদ-নদীতে মা ইলিশ আহরণ বন্ধসহ সব আইন বলবৎ থাকাকালীন সময় জেলেদের মধ্যে বরাদ্দকৃত চালের তালিকায় ব্যাপক অনিয়ম, গরমিল ও দুর্নীতির প্রমাণ ধরা পড়েছে।

এ নিয়ে সোমবার ইউপি চেয়ারম্যানের সশস্ত্র ক্যাডারদের অস্ত্রের আঘাতে পাঁচজন মেম্বার রক্তাক্ত জখম হয়েছেন।

এদের মধ্যে ৪নং ওয়ার্ডের মেম্বার ও প্যানেল চেয়ারম্যান সোহেল খানকে (৪০) আশঙ্কাজনক অবস্থায় খুলনা আড়াইশ’ শয্যা হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আহত অন্যদেরকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আহত অন্য সদস্যরা হলেন ২নং ওয়ার্ডের মেম্বার আনিস সেখ (৩৫), ৭নং ওয়ার্ডের মেম্বার মামুন হাওলাদার (৪০), ৬নং ওয়ার্ডের মেম্বার সাইফুল ইসলাম বাবুল (৩৯) ও ৮নং ওয়ার্ডের মেম্বার জাহাঙ্গীর হোসেন (৪০)।

৬ নং ওয়ার্ডের মেম্বার আহত সাইফুল ইসলাম বাবুল জানান, সোমবার বেলা ১১টার দিকে আমরা (ইউপি মেম্বাররা) চেয়ারম্যান হানিফ খানের রুমে মৎস্য জেলেদের তৈরিকৃত চালের ভুয়া তালিকা নিয়ে প্রতিবাদ করতে থাকি। একপর্যায়ে চেয়ারম্যান তার চেয়ার ছেড়ে উঠে গিয়ে তার ক্যাডার বাহিনীকে খবর দেয়। কিছুক্ষণের মধ্যে ১৫-২০ জনের ক্যাডার বাহিনী দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে আমাদের ওপর (মেম্বারদের) হামলা চালিয়ে আহত ও ধারালো দা দিয়ে কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করে পালিয়ে যায়।

খবর পেয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোল্লা আজাদ হোসেন ও এএসপি সার্কেল আহমেদ মাঈনুল হাসান ঘটনাস্থলে পরিদর্শন করেন।

এ ব্যাপারে সদর থানার ওসি এসএম জিয়াউল হক জানান, ঘটনাস্থলে গিয়ে আমরা চেয়ারম্যানকে খুঁজেছি কিন্তু তাকে পাওয়া যাচ্ছে না। তার মোবাইল ফোনও বন্ধ পাওয়া যাচ্ছে।

এ ব্যাপারে সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মো. মজিবুর রহমান খালেক যুগান্তরকে জানান, সদর মৎস্য সমবায় জেলে নেতা, সদর উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা ও আমি নিজে প্রকৃত মৎস্য জেলেদের তালিকা তৈরি করে দেয়ার পরেও চেয়ারম্যান হানিফ নিজের প্রভাব বিস্তার ও ক্যাডারদের নিয়ে ওই হামলা চালায়।