বান্দরবানে সাংবাদিক এনামুল হক কাশেমীর মৃত্যু
jugantor
বান্দরবানে সাংবাদিক এনামুল হক কাশেমীর মৃত্যু

  বান্দরবান প্রতিনিধি  

৩১ অক্টোবর ২০১৮, ২২:০২:৩১  |  অনলাইন সংস্করণ

সাংবাদিক এনামুল হক কাশেমীর মরদেহে শ্রদ্ধা নিবেদন
সাংবাদিক এনামুল হক কাশেমীর মরদেহে শ্রদ্ধা নিবেদন। ছবি: বান্দরবান প্রতিনিধি

বান্দরবানের সিনিয়র সাংবাদিক এনামুল হক কাশেমী মারা গেছেন। বুধবার সকালে পৌনে ১১টায় শহরের হিলভিউ হাসপাতালে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৫৬ বছর।

বাদ আসর গোরস্থান মসজিদের কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।

পরিবার সূত্রে জানা গেছে, সকালে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে দ্রুত এনামুল হক কাশেমীকে শহরের হিলভিউ হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে তিনি মারা যান।

খবর পেয়ে সহকর্মীসহ বিভিন্ন শ্রেণিপেশার লোকজন হাসপাতালে ছুটে যান। সেখান থেকে তাকে হাফেজঘোনাস্থ তার নিজ বাড়িতে নেয়া হয়। সেখানে তাকে শেষবারের মতো দেখতে যান পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি, জেলা প্রশাসক মো. দাউদুল ইসলাম চৌধুরী, পৌরসভার মেয়র মোহাম্মদ ইসলাম বেবী, পুলিশ সুপার জাকির হোসেন মজুমদার, বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য সাচিং প্রু জেরী, পার্বত্য জেলা পরিষদের মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা শহীদুল ইসলাম, আঞ্চলিক পরিষদের সদস্য শফিকুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আবদুর রহিম চৌধুরী, পৌর কাউন্সিলর হাবিবুর রহমানসহ বিভিন্ন শ্রেণিপেশার লোকজন।

পরে বিকাল সাড়ে ৩টায় তার মরদেহ শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য বান্দরবান প্রেসক্লাবের সামনে রাখা হয়। সেখানে গণমাধ্যমকর্মীদের বিভিন্ন সংগঠন ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। শেষবারের প্রিয় কাশেমীকে দেখতে ভিড় জমায় বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষজন।

আছরের নামাজের পর কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজায় সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ অংশ নেয়। সবশেষে গোরস্থান মসজিদের কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।
প্রেসক্লাব সভাপতি আমিনুল ইসলাম বাচ্চু বলেন, প্রায় ৩০ বছর ধরে তিনি জাতীয় এবং আঞ্চলিক পত্রিকা এবং সংবাদ সংস্থায় কাজ করেছেন। দেশের বহুল প্রচারিত যুগান্তর পত্রিকায় দীর্ঘ ১৮ বছর কাজ করেছেন। তার মৃত্যুকে সাংবাদিক সমাজে শোকের ছায়া নেমেছে। সাংবাদিক সমাজের এ ক্ষতি পুষিয়ে নেয়ার নয়। তার পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।

পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি বলেছেন, একজন সাংবাদিক মানুষের কতটা আপন এবং হাস্যোজ্জ্বল হতে পারে এনামুল হক কাশেমী তার উদাহরণ। বান্দরবানের উন্নয়নে তার লেখনীর অবদান কম নয়। তার মৃত্যুতে আমরা গভীরভাবে শোকাহত। তার শোক সন্তোষ পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।

প্রসঙ্গত, সাংবাদিক এনামুল হক কাশেমী বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা বাসস, চট্টগ্রামের দৈনিক আজাদী, ইংরেজি দৈনিক ইন্ডিপেনডেন্ট পত্রিকায় দীর্ঘদিন ধরে বান্দরবান জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কর্মরত ছিলেন। এছাড়াও নতুন জাতীয় দৈনিক বাংলাদেশের খবর এবং স্থানীয় দৈনিক নতুন বাংলাদেশ পত্রিকায় কর্মরত রয়েছেন। তার আগে দীর্ঘ ১৮ বছর কাজ করেছেন জাতীয় দৈনিক যুগান্তর পত্রিকায়।

বান্দরবানে সাংবাদিক এনামুল হক কাশেমীর মৃত্যু

 বান্দরবান প্রতিনিধি 
৩১ অক্টোবর ২০১৮, ১০:০২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
সাংবাদিক এনামুল হক কাশেমীর মরদেহে শ্রদ্ধা নিবেদন
সাংবাদিক এনামুল হক কাশেমীর মরদেহে শ্রদ্ধা নিবেদন। ছবি: বান্দরবান প্রতিনিধি

বান্দরবানের সিনিয়র সাংবাদিক এনামুল হক কাশেমী মারা গেছেন। বুধবার সকালে পৌনে ১১টায় শহরের হিলভিউ হাসপাতালে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৫৬ বছর।

বাদ আসর গোরস্থান মসজিদের কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।

পরিবার সূত্রে জানা গেছে, সকালে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে দ্রুত এনামুল হক কাশেমীকে শহরের হিলভিউ হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে তিনি মারা যান।

খবর পেয়ে সহকর্মীসহ বিভিন্ন শ্রেণিপেশার লোকজন হাসপাতালে ছুটে যান। সেখান থেকে তাকে হাফেজঘোনাস্থ তার নিজ বাড়িতে নেয়া হয়। সেখানে তাকে শেষবারের মতো দেখতে যান পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি, জেলা প্রশাসক মো. দাউদুল ইসলাম চৌধুরী, পৌরসভার মেয়র মোহাম্মদ ইসলাম বেবী, পুলিশ সুপার জাকির হোসেন মজুমদার, বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য সাচিং প্রু জেরী, পার্বত্য জেলা পরিষদের মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা শহীদুল ইসলাম, আঞ্চলিক পরিষদের সদস্য শফিকুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আবদুর রহিম চৌধুরী, পৌর কাউন্সিলর হাবিবুর রহমানসহ বিভিন্ন শ্রেণিপেশার লোকজন।

পরে বিকাল সাড়ে ৩টায় তার মরদেহ শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য বান্দরবান প্রেসক্লাবের সামনে রাখা হয়। সেখানে গণমাধ্যমকর্মীদের বিভিন্ন সংগঠন ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। শেষবারের প্রিয় কাশেমীকে দেখতে ভিড় জমায় বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষজন।

আছরের নামাজের পর কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজায় সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ অংশ নেয়। সবশেষে গোরস্থান মসজিদের কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।
প্রেসক্লাব সভাপতি আমিনুল ইসলাম বাচ্চু বলেন, প্রায় ৩০ বছর ধরে তিনি জাতীয় এবং আঞ্চলিক পত্রিকা এবং সংবাদ সংস্থায় কাজ করেছেন। দেশের বহুল প্রচারিত যুগান্তর পত্রিকায় দীর্ঘ ১৮ বছর কাজ করেছেন। তার মৃত্যুকে সাংবাদিক সমাজে শোকের ছায়া নেমেছে। সাংবাদিক সমাজের এ ক্ষতি পুষিয়ে নেয়ার নয়। তার পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।

পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি বলেছেন, একজন সাংবাদিক মানুষের কতটা আপন এবং হাস্যোজ্জ্বল হতে পারে এনামুল হক কাশেমী তার উদাহরণ। বান্দরবানের উন্নয়নে তার লেখনীর অবদান কম নয়। তার মৃত্যুতে আমরা গভীরভাবে শোকাহত। তার শোক সন্তোষ পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।

প্রসঙ্গত, সাংবাদিক এনামুল হক কাশেমী বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা বাসস, চট্টগ্রামের দৈনিক আজাদী, ইংরেজি দৈনিক ইন্ডিপেনডেন্ট পত্রিকায় দীর্ঘদিন ধরে বান্দরবান জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কর্মরত ছিলেন। এছাড়াও নতুন জাতীয় দৈনিক বাংলাদেশের খবর এবং স্থানীয় দৈনিক নতুন বাংলাদেশ পত্রিকায় কর্মরত রয়েছেন। তার আগে দীর্ঘ ১৮ বছর কাজ করেছেন জাতীয় দৈনিক যুগান্তর পত্রিকায়।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন