মালয়েশিয়া থেকে মতিয়ার দেশে ফিরতে পারবে কি?

  আহমাদুল কবির, মালয়েশিয়া থেকে ১৪ নভেম্বর ২০১৮, ২২:৩৬ | অনলাইন সংস্করণ

হাসপাতালের বেডে কাতরাচ্ছেন পাবনার মোহাম্মদ মতিয়ার রহমান

অভাবের সংসারে সচ্ছলতা ফেরাতে মতিয়ার পাড়ি দিয়েছিলেন মালয়েশিয়ায়। নিজেই এখন দুর্ভাগ্যের শিকার হয়ে হাসপাতালের বেডে কাতরাচ্ছেন এ রেমিটেন্সযোদ্ধা।

মোহাম্মদ মতিয়ার রহমান, পিতা সামসুর রহমান, পাবনার আতাইকুলা থানার সড়াডাংগী কড়ই তলা গ্রামের সামছুর রহমানের ছেলে মোহাম্মদ মতিয়ার রহমান, মালয়েশিয়ার সাবা বারনাম সরকারি হাসপাতালে নিবিড় চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

মতিয়ার রহমানের মেয়ে পপি মোবাইল ফোনে এ প্রতিবেদককে জানান, আমার বাবা (মতিয়ার) ১০-১২ বছর মালয়েশিয়া থাকাকালীন আমাদের সঙ্গে তেমন কোন যোগাযোগ ছিল না মাঝে মধ্যে কথা হতো। হঠাৎ করে একদিন বাবা দেশে চলে আসেন এবং প্রায় দুইবছর আমাদের সঙ্গে থাকেন। সংসারের অভাব অনটন দেখে আবারও মালয়েশিয়া যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন।

তিনি জানান, আমরা সবাই নিষেধ করি বিদেশ যেতে। কিন্তু দালালের মাধমে অন্যের নামে পাসপোর্ট করে বিভিন্ন মানুষের কাছে চড়া সুদে টাকা ধার নিয়ে টুরিস্ট ভিসায় ২০১৮ সালের ফ্রেব্রুয়ারি মাসে আবারও পাড়ি জমান স্বপ্নের দেশ মালয়েশিয়ায়। মালয়েশিয়া গিয়ে যে তার এমন বিপদ হবে তা কে জানে।

পপি জানান, ২০ মার্চ আমাদের ফোনে একটা কল আসে, তাতে জানানো হয়, মতিয়ারকে বাচাতে হলে ৩ লাখ টাকা দিতে হবে তা না হলে তাকে মেরে ফেলা হবে। অভাবের সংসার এমনিতেই ঋণের টাকা শোধ হয়নি এর মধ্যে আবার এতো টাকা কোথায় পাব আমরা। এর পর থেকে আর আমার বাবার সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারিনি।

এর মধ্যে কেটে যায় বেশ কয়েক মাস হঠাৎ করে একটি অনলাইন পত্রিকায় বাবার ছবিসহ একটা নিউজ পড়ি। পরে আমরা এই অনলাইনের সাংবাদিক মোহাম্মদ আলীর সাঙ্গে যোগাযোগ করি এবং বাবাকে দেশে পাঠাতে অনুরোধ করি। তিনি আমাদের জানান চিকিৎসাবাবদ হাসপাতালের বিল এবং ট্রাভেল পাস ও টিকিটসহ প্রায় ১২ হাজার রিংগিত যা প্রায় ২ লাখ ২৪ হাজার টাকা লাগবে। এই টাকা দেয়ার মতো মতিয়ারের পরিবারের কোনো সামর্থ্য নেই।

বাংলাদেশ সরকারের কাছে মতিয়ারের মেয়ে পপি আবেদন জানিয়েছেন তার অসুস্থ বাবাকে তাদের মাঝে ফিরেয়ে দিতে। ভাগ্যাহত রেমিটেন্সযোদ্ধা মতিয়ার পারবেকি দেশে ফিরতে? মতিয়ারের মেয়ে পপি অপেক্ষায় রয়েছে তার অসুস্থ বাবাকে ফিরে পেতে।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×