মধ্যপাড়া পাথর খনিতে একদিনে সর্বোচ্চ পাথর উত্তোলনের রেকর্ড

  দিনাজপুর প্রতিনিধি ১৮ নভেম্বর ২০১৮, ২০:৩৫ | অনলাইন সংস্করণ

মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানি
মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানি। ছবি: সংগৃহীত

দেশের একমাত্র পাথর খনি দিনাজপুরের মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানিতে একদিনে সর্বোচ্চ ৫ হাজার ৭১৬ মেট্রিক টন পাথর উত্তোলন করে রেকর্ড সৃষ্টি করেছে।

শনিবার তিন শিফটে এই পাথর উত্তোলন করা হয়। খনির ইতিহাসে তিন শিফটে এটিই একদিনে সর্বোচ্চ পাথর উত্তোলনের রেকর্ড।

খনি সুত্রে জানা গেছে, দিনাজপুরের মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানি লিমিটেড বানিজ্যিকভাবে উৎপাদন শুরু করে ২০০৭ সালের ২৫ মে। প্রথম অবস্থায় খনি থেকে দৈনিক দেড় হাজার থেকে ১৮শ’ টন পাথর উত্তোলন হলেও, পরে তা নেমে আসে মাত্র ৫শ’ টনে। এই অবস্থায় খনির উৎপাদন বাড়াতে ২০১৪ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি খনির উৎপাদন ও রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব দেয়া হয় বেলারুশের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান জার্মানিয়া ট্রেস্ট কনসোর্টিয়াম-জিটিসিকে।

জিটিসি ১৭১.৮৬ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের বিনিময়ে ৬ বছরে ৯২ লাখ টন পাথর উত্তোলন করে দেয়ার চুক্তিবদ্ধ হয়। জিটিসি ৬ মাসের মধ্যেই দৈনিক উৎপাদন ৫শ’ টন থেকে সাড়ে ৫ হাজার টনে উন্নীত করে। ২০১৫ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত তারা পাথর উত্তোলন করে ১১ লাখ ৯২ হাজার টন পাথর। কিন্তু আধুনিক ইক্যুইপমেন্টের অভাব দেখিয়ে ২০১৫ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর থেকে খনিতে পাথর উত্তোলন পুরোপুরি বন্ধ করে দেয় জিটিসি।

জিটিসি ২০১৪ সালের ডিসেম্বর মাসে প্রায় ১৪৪ কোটি টাকার মাইনিং ইক্যুইপমেন্ট (যন্ত্রপাতি ও মেশিনপত্র) আমদানির জন্য খনি কর্তৃপক্ষকে চাপ দেয়। সে সময় যন্ত্রপাতিসহ অন্যান্য মালামালের বাজারমুল্য ও উৎপাদন ব্যবস্থাপনা নিয়ে জিটিসির সঙ্গে খনি কর্তৃপক্ষের মতবিরোধ দেখা দেয়।

পরবর্তীতে পেট্রোবাংলার হস্তক্ষেপে ২০১৬ সালে বিদেশ থেকে আধুনিক ইক্যুইপমেন্ট আমদানি করে খনি কর্তৃপক্ষ। বিদেশ থেকে আমদানিকৃত নতুন ও আধুনিক এসব ইক্যুইপমেন্ট ইতিমধ্যেই খনির ভূ-অভ্যন্তরে স্থাপন করা হয় এবং পুনরায় উৎপাদনও শুরু হয়।

বর্তমান পাথর উত্তোলন কাজে নিয়োজিত ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান জিটিসির নির্বাহী পরিচালক জাবেদ সিদ্দিকী জানান, খনির দায়িত্বভার গ্রহণের পর থেকে জিটিসি পাথর খনিটিকে লাভজনক করতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। খনির নতুন স্টোপ নির্মাণ করে বিদেশি মেশিনারিজ যন্ত্রপাতি ও যন্ত্রাংশ স্থাপন করে খনির পাথর উত্তোলন বৃদ্ধিকে গুরুত্বের সঙ্গে নিয়ে অর্ধশতাধিক বিদেশি খনি বিশেষজ্ঞ, দেশি প্রকৌশলী এবং ৭ শতাধিক খনি শ্রমিক তিন শিফটে পাথর উত্তোলন কাজে নিয়োজিত আছেন।

তিনি বলেন, প্রতিমাসে ১ লাখ ২০ হাজার মেট্রিক টন পাথর উত্তোলনের লক্ষমাত্রা নিয়ে জিটিসি গত অক্টোবর মাসে প্রায় ১ লাখ ২৩ হাজার মেট্রিক টন পাথর উত্তোলন করেছে। পাথর উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রায় পৌঁছানোর ফলে খনি শ্রমিকদের বিগত মাসগুলোতে বেতন ও ওভার টাইমের সঙ্গে উৎপাদন বোনাসও প্রদান করছে জিটিসি।

দৈনিক পাথর উত্তোলনের পরিমাণ দিন দিন বাড়বে বলে জানান জিটিসির নির্বাহী পরিচালক জাবেদ সিদ্দিকী।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×