গৌরনদীর ‘গরিবের ডাক্তার’ দাস রনবীর আর নেই

  মো. আসাদুজ্জামান রিপন, গৌরনদী প্রতিনিধি ১৩ জানুয়ারি ২০১৯, ২২:২৯ | অনলাইন সংস্করণ

বরিশালের গৌরনদী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. দাস রনবীর
বরিশালের গৌরনদী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. দাস রনবীর। ফাইল ছবি

বরিশালের গৌরনদী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ও গরিবের ডাক্তার হিসেবে খ্যাত ডা. দাস রনবীর (৪৫) আর নেই। ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শনিবার রাত ১০টা দিকে পরলোক গমন করেছেন।

তিনি দীর্ঘদিন যাবৎ লিভার ও কিডনি রোগে আক্রান্ত ছিলেন। তিনি স্ত্রী, ২ কন্যা ও অসংখ্য আত্মীয় স্বজনসহ বহু গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

রোববার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে তার লাশ উপজেলা সদরে ও পরে তার কর্মস্থল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হলে উপজেলা প্রশাসন ও সহকর্মীসহ হাজারো মানুষের ভালবাসায় সিক্ত হন তিনি। বিকালে গৌরনদী উপজেলার দক্ষিণ বিল্বগ্রাম এলাকায় পারিবারিক শশ্মাণে তার লাশ দাহ করা হয়।

ডা. দাস রনবীর ১৯৭৫ সালের ৫ জুলাই বরিশাল জেলার গৌরনদী উপজেলার মাহিলাড়া ইউনিয়নের ছোট একটি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। এ গ্রামটির নাম ছিল মধ্য বিল্বগ্রাম। বর্তমানে এ গ্রামটি দক্ষিণ বিল্বগ্রাম নামে সুপরিচিত। এ ছোট্ট গ্রামের ছোট একটা পরিবারে তৎকালীন সমাজের পল্লী চিকিৎসক ছিলেন ডা. কৃষ্ণকান্ত দাস। তিনি ডা. দাস রণবীরের পিতা।

তিনি সেই সময়ে অনেক জনপ্রিয়তা অর্জন করেছিলেন। গরিব দুঃখীদের অসুস্থতায় তিনি স্বেচ্ছাপ্রণোদিত হয়ে রাত দিন সেবা দিতেন।

তিনি প্রায় ভিজিট না নিয়েই রোগীদের সেবা দিতেন। ৫ ভাই ও ৪ বোনের মধ্যে ডা. দাস রণবীর ছিলেন সর্বকনিষ্ঠ। বড় ভাই ও সেঝ ভাই তার জন্মের আগেই কলেরা রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে।

বাকি ৪ বোন ও ৩ ভাইয়ের মধ্যে বড় বোন হলেন হাইকোর্টের অ্যাডভোকেট আরতী রাণী দাস।

তিনি বর্তমানে অবসর জীবনযাপন করছেন।

মেঝ বোন অঞ্জলী রাণী দাস সরকারি চাকরি থেকে বর্তমানে রিটায়ার্ড। বাকি দুই বোন শিক্ষকতা পেশায় নিয়োজিত আছেন। দ্বিতীয় ভাই সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার।

ডাঃ দাস রণবীর এর আগে বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মেডিকেল অফিসার পদে জরুরি বিভাগে চাকরি করতেন।

ছুটির দিনে গৌরনদী উপজেলা সদরে চেম্বার করে ফ্রি রোগী দেখতেন। মাতা শান্তি রাণী দাস বেঁচে নেই। ডা. দাস রণবীর মধ্য বিল্বগ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়ালেখা শেষে ভর্তি হন গৌরনদী উপজেলার পালরদী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে।

সেখান থেকে অষ্টম শ্রেণিতে বৃত্তি পেয়ে ১৯৯০ সালে এসএসসি পরীক্ষায় ১ম বিভাগে উত্তীর্ণ হন।

১৯৯২ মালে ঢাকা নটরডেম কলেজ থেকে এইচএসসি পরীক্ষায় ১ম বিভাগে উত্তীর্ণ হন। এরপর মেডিকেল পড়তে চলে যান ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে।

সেখান থেকে পাস করে এসে ২৭ তম বিসিএস পরীক্ষায় অংশ নেন তিনি। বিসিএস পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে ২০০৮ সালে গৌরনদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মেডিকেল অফিসার পদে যোগদান করেন তিনি। এর ২ বছর পর সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ তাকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে বদলি করেন।

গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা পদে পদোন্নতি লাভ করে তিনি গৌরনদী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা পদে যোগদান করেন।

তিনি ২০১৩ সালের এপ্রিল মাসে মাদারীপুর জেলার কালকিনি উপজেলা নিবাসী বাবু জগদীশ রায়ের কনিষ্ঠ কন্যা জয়িতা রায় তমার সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। বর্তমানে তার কন্যা হৃদিতা বর্ণ দাস (৩১ মাস), হৃতিশা বর্ণ দাস (১১ মাস)।

পল্লী চিকিৎসক স্বর্গীয় কৃষ্ণকান্ত দাসের পিতা- স্বর্গীয় অশ্বিনী কুমার দাসের অনুকরণে তিনি চাকরির অবসরে নিজ গরজে, নিজ খরচে, নিজ উদ্যোগে মানবসেবায় নিজেকে নিয়োজিত রেখেছেন।

মাহিলাড়া ইউপি চেয়ারম্যান সৈকত গুহ পিকলু বলেন, ডা. দাস রণবীরের রোগী দেখা চোখে না দেখলে বিশ্বাস করানো যাবে না। প্রত্যেক রোগীই যেন তার নিকটতম আত্মীয়। বর্ষিয়ানদের কাছে শুনেছি বৃহতী গৌরনদীর সুরেন্দ্রনাথ ডাক্তার, কবিরাজ মণি ঠাকুর, বৈকুন্ঠ কবিরাজ, ঊমাচরণ কবিরাজ ও প্রফুল¬ ডাক্তারের কথা। তাদের সেবা দানতো পেছনে গেছে এবং তারা তবু সামান্যতম টাকা কড়ি রোগীদের থেকে নিতেন। নিজের টাকায় চেম্বার করে প্রতিদিন ডিউটি শেষে রোগীদের মাঝে নিজেকে বিলিয়ে দিয়ে সুখ অনুভব করতেন ডাঃ দাস রণবীর। তার মত এমন আর কাকেও দেখছিনা। এমন দেল দরদি দেলী ডাক্তার তিনি। জাতি ধর্ম বর্ন দল মতের উর্ধ্বে থেকে তিনি ছিলেন সকলের কাছে প্রিয় একজন মানুষ। যে কিনা কোন ভিজিট ছাড়াই রোগী দেখেছেন। গরীব রোগীদের ঔষধ নিজের টাকায় কিনে দিতেন। বিনা পারিশ্রমিকে বাসায় গিয়ে রোগী দেখে আসতেন। ঔষধ কোম্পানীর স্যাম্পেল ঔষধ রোগীদের মাঝে বিতরণ করে দিতেন। নিজের অসুস্থ্যতার কথা চিন্তা না করে সবসময় মানুষের সেবায় নিযোজিত ছিলেন। বৃহত্তর গৌরনদীর ভেতর নিজ উদ্যোগে বিনা পয়সায় মানবসেবার দৃষ্টান্ত হিসেবে বিচার করলে ডাঃ দাস রণবীরকে শ্রেষ্ঠ মানব সেবক বলতে হবে বলে ইউপি চেয়ারম্যান পিকলু জানান।

শোকাহত গৌরনদী

ডাক্তার দাস রনবীরের অকাল মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন বরিশাল জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও বরিশাল-১ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ, সাধারন সম্পাদক সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট তালুকদার মোঃ ইউনুস, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপ-কমিটির সহ-সম্পাদক অ্যাডভোকেট বলরাম পোদ্দার, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সৈয়দা মনিরুন নাহার মেরী, পৌর মেয়র মোঃ হারিছুর রহমান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার খালেদা নাছরিন, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ মিজানুর রহমান, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ফরহাদ হোসেন মুন্সী, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট সাহিদা আক্তার, বিআরডিবির চেয়ারম্যান মনির হোসেন মিয়া, বিআরডিবির সাবেক চেয়ারম্যান সাংবাদিক জহুরুল ইসলাম জহির, গৌরনদী উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি মোঃ গিয়াস উদ্দিন মিয়া, উপজেলা আওয়ামীলীগের কোষাধ্যক্ষ ভোলা সাহা, তথ্য ও গবেষনা সম্পাদক কামরুল ইসলাম দিলীপ, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আনিছুর রহমান, সাধারন সম্পাদক সৈয়দ মাহাবুব আলম, পৌর যুবলীগের সভাপতি আতিকুর রহমান শামীম, সাধারন সম্পাদক আল আমীন হাওলাদার, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জুবায়ের ইসলাম সান্টুসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠন শোক প্রকাশ করেছে।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×