‘নেতাদের ব্যর্থতায় খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা যায়নি’

  বগুড়া ব্যুরো ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ২১:২১ | অনলাইন সংস্করণ

বগুড়া শহরের নবাববাড়ি সড়কে দলীয় কার্যালয়ে নির্বাচন-পরবর্তী অবস্থা পর্যবেক্ষণে মতবিনিময় সভায় বিএনপি নেতৃবৃন্দ
বগুড়া শহরের নবাববাড়ি সড়কে দলীয় কার্যালয়ে নির্বাচন-পরবর্তী অবস্থা পর্যবেক্ষণে মতবিনিময় সভায় বিএনপি নেতৃবৃন্দ

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকতউল্লা বুলু বলেছেন, বিএনপি জনপ্রিয় দল। দেশের ৮০ শতাংশ মানুষ আমাদের সঙ্গে রয়েছে। এরপরও আমাদের ব্যর্থতা গত এক বছরে চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে পারিনি।

তিনি বলেন, জনগণ আমাদের সঙ্গে রয়েছে। তাই নেত্রীকে মুক্ত করতে ভেদাভেদ ভুলে সবাইকে সোচ্চার হতে হবে। তবে সবাইকে নেতা হলে চলবে না। তৃণমূলের মতামতের ভিত্তিতে সম্মেলনের মাধ্যমে ওয়ার্ড থেকে জেলা পর্যন্ত কমিটি গঠন করা হবে।

দেশব্যাপী সাংগঠনিক সফরের ১৮তম দিনে মঙ্গলবার দুপুরে বগুড়া শহরের নবাববাড়ি সড়কে দলীয় কার্যালয়ে জেলা বিএনপি আয়োজিত নির্বাচন-পরবর্তী অবস্থা পর্যবেক্ষণে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

বগুড়া জেলা বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলামের সভাপতিত্বে সভায় অন্যদের মধ্যে চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র মিজানুর রহমান মিনু, রাজশাহী মহানগর বিএনপির সভাপতি, সাবেক মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল, বগুড়া শহর যুবদলের সভাপতি মাসুদ রানা, জেলা যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুকুল ইসলাম ফারুক, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক শাহাবুল আলম পিপলু, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি আবু হাসান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির সহসভাপতি ফজলুল বারী তালুকদার বেলাল, সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীন চাঁন, সাবেক এমপি হেলালুজ্জামান তালুকদার লালু, শহর বিএনপির সভাপতি মাহবুবর রহমান বকুল, তাহাউদ্দিন নাহিন, সহিদ-উন-নবী সালাম, জেলা যুবদল সভাপতি সিপার আল বখতিয়ার, সাধারণ সম্পাদক খাদেমুল ইসলাম খাদেম, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শাহ্ মেহেদী হাসান হিমু, হাসানুজ্জামান পলাশ, মহিলা দলের নাজমা আকতার, মাহফুজা আকতার লাকী প্রমুখ।

স্থানীয় নেতারা তাদের বক্তব্যে সিনিয়র নেতাদের সহযোগিতা না পাওয়াসহ বিভিন্ন ধরনের অভিযোগ তুলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তারা বলেন, মিছিলে দাঁড়ানো নিয়ে, ছবি তোলা নিয়ে নিজেদের মধ্যে মারামারি হয়। তাই আমরা কীভাবে আন্দোলন গড়ে তুলব?

বক্তারা কোনো কোনো নেতার নিষ্ক্রিয়তা ও অসহযোগিতার অভিযোগ তোলেন। একপর্যায়ে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে উঠলে সভাস্থল থেকে সাংবাদিকদের বের করে দেয়া হয়।

এর প্রেক্ষিতে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মিজানুর রহমান মিনু বলেন, আগামীতে সম্মেলন ছাড়া কোনো কমিটি হবে না। কোনো কমিটি চাপিয়ে দেয়া হবে না। তৃণমূলের সমর্থনের প্রেক্ষিতে ত্যাগীদের মূল্যায়ন করা হবে। আর সব সম্মেলনে কেন্দ্রীয় নেতারা উপস্থিত থাকবেন।

তিনি বলেন, এ সরকারের অধীনে বিএনপি আগামী কোনো নির্বাচনেই অংশ নেবে না।

সভাপতির বক্তব্যে সাইফুল ইসলাম বলেন, আজ যারা নেতাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলছেন, আন্দোলনের সময় তাদের পাওয়া যায় না। সম্প্রতি মহাসচিব বগুড়ায় এলেও তাকে জানানো হয়নি। তিনি সব মতভেদ ভুলে দলকে চাঙ্গা করতে নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার অনুরোধ জানিয়েছেন।

নেতাদের প্রেস ব্রিফিং

দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময় শেষে প্রেস বিফ্রিংয়ে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকতউল্লা বুলু বলেন, ভোট চোর সরকার ও অযোগ্য নির্বাচন কমিশনের অধীনে বিএনপি, ২০ দলীয় জোট ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট কোনো নির্বাচনে অংশ নেবে না। নেত্রী খালেদা জিয়া জেলে থাকা অবস্থায় দলের কোনো নেতাকর্মী নির্বাচনে অংশ নিতে পারে না।

তিনি বলেন, কেউ দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করে স্বতন্ত্র প্রার্থী হলেও তাকে বহিষ্কার করা হবে।

গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বগুড়ার দুটি আসনসহ ৮ আসনে নির্বাচিত এমপিদের প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সিদ্ধান্ত হয়েছে, কেউ শপথ নেবেন না।

বুলু বলেন, সরকার বিচার বিভাগকে কুক্ষিগত করে রাখায় আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা সম্ভব নয়। তাই আন্দোলনের মাধ্যমে জেলের তালা ভেঙে নেত্রীকে মুক্ত করা হবে। তবে তারা কবে থেকে আন্দোলন শুরু করবেন সে সম্পর্কে নিশ্চিত করে বলতে পারেননি।

তিনি বলেন, সারা দেশে সাংগঠনিক সফর শেষে ঢাকা ফিরে নেতাদের পরিস্থিতি অবগত করা হবে। এরপর নির্বাহী কমিটির সভায় পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

বগুড়ার নেতাকর্মীদের উত্তাপ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সরকারের নির্যাতনে শতশত নেতাকর্মী পঙ্গুত্ব বরণ ও অনেকে জেলে রয়েছে। তাই স্থানীয় নেতাদের উত্তাপ আরও বেশি হওয়ার কথা ছিল। মতবিনিময় ও প্রেস বিফ্রিং শেষে নেতারা সিরাজগঞ্জের দিকে রওনা হন।

ঘটনাপ্রবাহ : কারাগারে খালেদা জিয়া

আরও
আরও পড়ুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
--
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×