বগুড়ায় রূপালী ব্যাংকের চার কর্মকর্তাসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে দুদকের চার্জশিট

  বগুড়া ব্যুরো ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ২২:৩৮ | অনলাইন সংস্করণ

দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)

বগুড়ায় রূপালী ব্যাংক মহাস্থানগড় শাখায় গ্রাহকের নামে ভুয়া ঋণ উত্তোলন দেখিয়ে দুই কোটি ৬০ লাখ টাকা আত্মসাতের মামলায় ওই শাখার সাবেক ব্যবস্থাপকসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

দুদক বগুড়া সমন্বিত কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক রবীন্দ্রনাথ চাকী সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এ চার্জশিট দাখিল করেন। বুধবার বিকালে তিনি এর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

চার্জশিটে অভিযুক্তরা হলেন- রূপালী ব্যাংক বগুড়ার মহাস্থানগড় শাখার সাবেক ব্যবস্থাপক (সাময়িক বরখাস্ত) জোবায়নুর রহমান, সাবেক সিনিয়র অফিসার (বগুড়ার মোকামতলা শাখায় কর্মরত) ইশরাত জাহান, সাবেক প্রিন্সিপাল অফিসার (জয়পুরহাট শাখায় কর্মরত) মহাতাব উদ্দিন এবং সাবেক সিনিয়র অফিসার (টিএমএসএস শাখায় কর্মরত) কায়দে আজম, মহাস্থান হাটের ইজারাদার আজমল হোসেন, জাহিদুর রহমান ও মোশাররফ হোসেন।

দুদক কর্মকর্তা রবীন্দ্রনাথ চাকী জানান, মহাস্থান হাটের ইজারাদার আজমল হোসেন, জাহিদুর রহমান ও মোশাররফ হোসেন রূপালী ব্যাংক মহাস্থানগড় শাখার গ্রাহক। মহাস্থান হাট ইজারার জন্য তারা গত ২০১৭ সালের ৬ এবং ৯ এপ্রিল শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নামে দুই কোটি ৬৯ লাখ এক হাজার ৮০১ টাকা মূল্যের ৭টি পে-অর্ডারের জন্য আবেদন করেন। কিন্তু তারা পে-অর্ডারের জন্য মাত্র ৯ লাখ সাত হাজার ২৫ টাকা জমা দেন।

এরপরও তাদের নামে দুই কোটি ৬৯ লাখ এক হাজার ৮০১ টাকা মূল্যের ৭টি পে-অর্ডার ইস্যু করা হয়। ১১ এপ্রিল শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে ওই পে-অর্ডারের টাকাগুলো সরকারি নির্দিষ্ট হিসাবে জমা করার জন্য সংশ্লিষ্ট ব্যাংকে পাঠানো হয়। তখন ওই ব্যাংক থেকে ক্লিয়ারেন্সের জন্য রূপালী ব্যাংক মহাস্থানগড় শাখায় পাঠানো হয়। কিন্তু উল্লিখিত অঙ্কের টাকা ব্যাংকে না থাকায় ওই শাখার তৎকালীন ব্যবস্থাপক জোবায়নুর রহমান জাল এফডিআরের কাগজ তৈরি করেন এবং কয়েকজন গ্রাহকের নামে ভুয়া ঋণ উত্তোলন দেখিয়ে পে-অর্ডারের ওই অর্থ সমন্বয় করেন। এ কাজে তাকে ব্যাংকের উল্লিখিত নারীসহ তিন কর্মকর্তা সহযোগিতা করেন।

জালিয়াতির বিষয়টি জানাজানি হলে রূপালী ব্যাংকের তৎকালীন উপ-মহাব্যবস্থাপক হাবিবুর রহমান গত ২০১৮ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি থানায় ব্যবস্থাপক জোবায়নুর রহমানের বিরুদ্ধে মামলা করেন। র‌্যাব সদস্যরা তাকে শরীয়তপুর থেকে পলাতক অবস্থায় গ্রেফতার করেন।

দুদক গত বছরের ১১ ফেব্রুয়ারি ব্যাংক কর্মকর্তা মহাতাব উদ্দিন ও কায়দে আজমকে গ্রেফতার করে। বর্তমানে ব্যবস্থাপক জোবায়নুর রহমান ও ইজারাদার আজমল হোসেন জামিনে রয়েছেন। এক ব্যাংকার ইশরাত জাহান ও দুই ইজারাদার জাহিদুর রহমান ও মোশাররফ হোসেন পলাতক রয়েছেন।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×