ভালোবাসার গোলাপ ৪০ টাকা!

  বগুড়া ব্যুরো ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৯:৩৭ | অনলাইন সংস্করণ

বসন্ত বরণে মেতে উঠেছিল তরুনীরা
বসন্ত বরণে মেতে উঠেছিল তরুনীরা

বগুড়ায় বসন্ত উৎসব ও বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে ফুলের মার্কেট জমে উঠেছিল। শহরের শহীদ খোকন পার্কের পাশে গড়ে ওঠা এ মার্কেটে পহেলা ফাল্গুন থেকেই ক্রেতাদের ভিড় দেখা গেছে।

বুধবার বসন্ত উৎসব ও বৃহস্পতিবার ভালবাসা দিবসে উপড়ে পড়া ভিড় লক্ষ্য করা যায় দোকানগুলোতে। এবার প্রতিটি ফুলের দাম চড়া থাকলেও কেনাবেচায় ঘাটতি পড়েনি।

ভালোবাসার মানুষকে সাজাতে বেশি দাম দিয়েই কেনা হয়েছে। ভালবাসা দিবসে সবচেয়ে বেশি বিক্রি হয়েছে ‘লাল গোলাপ’। প্রতিটি থাই গোলাপ বিক্রি হয়েছে ৪০ টাকায়। গত দুদিনে এ জেলায় অন্তত ৫০ লাখ টাকার ফুল ব্যবসা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার ভালবাসা দিবসে সবচেয়ে আকর্ষণীয় লাল গোলাপ (চায়না) ৩০ থেকে ৩৫ টাকা, দেশি গোলাপ আকার ভেদে ১৫ থেকে ২৫ টাকা, গ্লাডিওলাস প্রতি পিস ১৫-২০ টাকা, জারবেরা প্রতি পিস ১৫-২০ টাকা, রজনীগন্ধা দেশি প্রতি পিস ১০ টাকা ও হাইব্রিড ১২ টাকা, গাদাফুল ১০০ পিস ৪৫০ টাকায় বিক্রি হয়। এছাড়া জিপসি, অডিস্টিকসহ বিভিন্ন প্রজাতির ফুল বিক্রি হয়েছে।

নারীদের ক্রাউন (মাথার রিং) প্রতিপিস ১০০ থেকে ১৫০ টাকায় বিক্রি হয়।

দুপুরে ফুল মার্কেটে গিয়ে দেখা গেছে, প্রতিটি দোকান ফুলে ফুলে সাজানো। সব দোকানেই উপচে পড়া ভিড়। ক্রেতাদের অধিকাংশই স্কুল ও কলেজ পড়–য়া তরুণ-তরুণী। সবধরনের ফুল কিনলেও লাল গোলাপ কমন ছিল।

বগুড়া জেলা ফুল ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও করতোয়া ফুলঘরের মালিক অমিত দাস লক্ষণ বলেন, তারা ১৭ জন এখানে ফুল কেনাবেচা করেন। সারাবছর ফুল বিক্রি হলেও বিশেষ দিবস ও উৎসবকে সামনে রেখে যশোরের গদাখালি, কালিগঞ্জসহ বিভিন্ন মোকাম থেকে ফুল আনা হয়।

তিনি বলেন, এবার প্রতিটি দোকানে গড়ে ৭ থেকে ১০ হাজার থাই লাল গোলাপ তোলা হয়েছিল। সব দোকানে গ্লাডিওলাস ও হাইব্রিড রজনীগন্ধা ছিল।

অমিত দাস লক্ষণ বলেন, বসন্ত উৎসব ও ভালোবাসা দিবসে শহরের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ক্লাব, সামাজিক সংগঠন ও শিক্ষার্থী তরুণ-তরুণীরা ফুল কিনেছেন। শহরের বাহিরে বিভিন্ন উপজেলাতেও ফুল বিক্রি করেছেন।

তিনি আরও বলেন, গত দুদিনে তারা ১৭ জন ব্যবসায়ী অন্তত ৫০ লাখ টাকার ফুল বিক্রি করেন। ভালো ব্যবসা করায় তারা সকলে খুশি।

এদিকে ভালোবাসা দিবসে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের তরুণ-তরুণীরা শহরের বিভিন্ন স্পট সরকারি আজিজুল হক কলেজ, সরকারি শাহ সুলতান কলেজ, সরকারি মজিবর রহমান মহিলা কলেজ ছাড়াও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। তারা ঐতিহাসিক মহাস্থানগড়, গোবিন্দভিটা, বেহুলার বাসরঘরসহ বিভিন্ন দর্শনীয় স্থানে ঘুরে বেড়ান। এদের কেউ ব্যক্তিগত গাড়ি আবার কেউ কেউ মোটর সাইকেলে বেড়াতে যান।

বগুড়া সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) কামরুজ্জামান মিয়া জানান, বসন্ত উৎসব ও ভালোবাসা দিবসকে সামনে রেখে আইন-শৃংখলা বাহিনী খুব তৎপর ছিল। উৎসবমুখর পরিবেশে দুটি দিবস পালিত হয়েছে। জেলার কোথাও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
--
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×