পিরোজপুরে আদালতের নির্দেশ

১০ মাস পর কবর থেকে তোলা হলো ছাত্রের লাশ

  পিরোজপুর প্রতিনিধি ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১২:৩৮ | অনলাইন সংস্করণ

১০ মাস পর কবর থেকে তোলা হলো ছাত্রের লাশ
পিরোজপুরে কবর থেকে তোলা হল কলেজছাত্রের লাশ। ছবি: সংগৃহীত

পিরোজপুর জেলার ইন্দুরকানী উপজেলায় আদালতের নির্দেশে ১০ মাস পর মো. সাইফুর রহমান নামে এক কলেজছাত্রের লাশ কবর থেকে উত্তোলন করা হয়েছে।

সোমবার বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে নির্বাহী ম্যাজিট্রেট মো. ফখরুল ইসলামের উপস্থিতিতে ডিএনএ পরীক্ষার জন্য উপজেলার নলবুনিয়া গ্রামের কবর থেকে ওই ছাত্রের লাশ উত্তোলন করা হয়।

ইন্দুরকানী থানার উপপরিদর্শক (এএসআই) মাইনুল ইসলাম এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, বিকালে কবর থেকে লাশ উত্তোলন করে ময়নাতদন্তে জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে লাশ উত্তোলনের সময় মামলার বাদী ও নিহতের মা ফিরোজা বেগম, খালা মাহমুদা বেগমকে আসামিরা এ সময় মারপিট ও নির্যাতন করেছে। এ ঘটনায় একজনকে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃত ছালাম খলিফা উপজেলার নলবুনিয়ার বাসিন্দা হাবিবুর রহমানের ছেলে।

এ ব্যাপারে ইন্দুরকানী থানার ওসি হাবিবুর রহমান জানান, কবর থেকে সাইফুর রহমানের লাশ উত্তোলন করা হয়েছে। এ সময় নিহতের মা ও মামলার বাদী ফিরোজা বেগমকে মারধর করার দায়ে স্থানীয় ছালাম খলিফাকে আটক করা হয়।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. ফখরুল ইসলাম জানান, নিহতের পরিবার হত্যা মামলা করলে ডিএনএ পরীক্ষার জন্য আদালতের নির্দেশে লাশটি উত্তোলন করা হয়।

মামলার বাদী নিহতের মা ও থানা সূত্রে জানা যায়, গত বছরের ৭ এপ্রিল সকাল সাড়ে ৭টার দিকে সাইফুর রহমান তার বোন লিপিকে নিয়ে গার্মেন্টে যাচ্ছিলেন।

ঢাকার মৌচাক বাসস্ট্যান্ডে পৌঁছালে সেখানে মাইক্রোবাস নিয়ে আগে থেকেই ওঁৎ পেতে থাকা উজ্জল আকন ও কাওসার খলিফার নেতৃত্বে আসামিরা সাইফুরকে মারপিট করে। পরে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত বলে চালিয়ে দেয়ার জন্য তাকে চলন্ত গাড়ির সামনে ফেলে দিয়ে হত্যা করে।

ময়নাতদন্ত ছাড়াই ওই দিন রাতেই ছাত্রের নিজ গ্রাম নলবুনিয়ায় তাকে দাফন করা হয়।

এ ঘটনায় নিহতের মা ফিরোজা বেগম বাদী হয়ে ৩১ মে ঢাকার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ১০ জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা করেন।

আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে গত ২৫ নভেম্বর ডিএনএ পরীক্ষার জন্য লাশটি উত্তোলন করতে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে নির্দেশ দেন।

আদালতের নির্দেশে সোমবার পিরোজপুরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. ফফরুল ইসলাম ও ইন্দুরকানী থানা পুলিশের উপস্থিতিতে বিকাল ৩টায় লাশটি উত্তোলন করে ডিএনএ টেস্টের জন্য পাঠানো হয়।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন ইন্দুরকানী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আরএমও ডা. এসএ খান, আশুলিয়া থানার এসআই এমদাদ হোসেনসহ নিহতের আত্মীয়স্বজন ও এলাকাবাসী।

এর আগে ইন্দুরকানী উপজেলার পাড়েরহাট উপজেলার বৌডুবি নলবুয়িনার পাশে পিরোজপুর সদর উপজেলার শংকরপাশায় রাতের আঁধারে ব্যবসায়ী আসলাম খলিফা খুন হন। ওই ঘটনায় নিহত সরকারি সোহরাওয়ার্দী কলেজছাত্র মো. সাইফুর রহমানের অভিভাবক (নিহত সাইফুরের মায়ের ২য় পক্ষের স্বামী) জাহাঙ্গীর মোল্লাকে আসামি করা হয়।

এদিকে আসলাম হত্যার পর বাদী পক্ষের লোকজনরা আসামিদের ওপর হামলা, বাড়িঘর ভাংচুর- এমনকি আসামিদের স্ত্রী, সন্তানদের পথে-ঘাটে মারপিট ও নির্যাতন করার ঘটনা ঘটে।

নির্যাতিতরা বাড়িঘরে থাকতে না পেরে নিহত ছাত্র সাইফুর তার বোন লিপি, অভিভাবক জাহাঙ্গীর মোল্লা এলাকা ছাড়া হয়।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×