গাইবান্ধায় মা-মেয়েকে নির্যাতন, ক্ষোভে মেয়ের আত্মহত্যা

  গাইবান্ধা প্রতিনিধি ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ২২:২২ | অনলাইন সংস্করণ

শ্রাবন্তি রানীর আত্মহত্যার ঘটনায় শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন
শ্রাবন্তি রানীর আত্মহত্যার ঘটনায় শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

গাইবান্ধায় কলার বাগানে ছাগলের ঘাস খাওয়াকে কেন্দ্র করে মা-মেয়েকে মারধর ও শারীরিকভাবে নির্যাতনের ঘটনায় ক্ষোভ ও অপমান সইতে না পেরে শ্রাবন্তি রানী (১৬) নামে এক স্কুলছাত্রী গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছে।

এ ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত লিখন ও তার পরিবারের লোকজন বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে গেছে।

এদিকে ক্ষোভ ও অপমান সইতে না পেরে স্কুলছাত্রী শ্রাবন্তির আত্মহত্যার ঘটনায় বিচার দাবিতে ফুঁসে উঠেছে স্বজন, সহপাঠী ও এলাকাবাসী। ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও জড়িতদের গ্রেফতার দাবিতে মঙ্গলবার দুপুরে লক্ষ্মীপুর বাজারে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

এ সময় তারা সুন্দরগঞ্জ-গাইবান্ধা সড়কের লক্ষ্মীপুর বাজারে অবস্থান নিয়ে সড়ক অবরোধ ও বিক্ষোভ করে। বিক্ষোভ ও মানববন্ধনে নিহতের স্বজন, এলাকাবাসী, ছাত্রছাত্রী ও শিক্ষকরা অংশ নেয়।

উল্লেখ, গত সোমবার বিকালে সদর উপজেলার লক্ষ্মীপুর ইউনিয়নের ধনকুটি গ্রামের নিজ বাড়িতে ঘরের তীরের (ধরনা) সঙ্গে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যার এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য গাইবান্ধা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে।

শ্রাবন্তি রানী ধনকুটি গ্রামের শ্রী গঙ্গা দাসের মেয়ে। গঙ্গা দাস চট্টগ্রামে শ্রমিকের কাজ করেন। শ্রাবন্তি লক্ষ্মীপুর স্কুল অ্যান্ড কলেজের দশম শ্রেণির ছাত্রী ছিল।

এদিকে ঘটনার পর মঙ্গলবার দুপুরে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ রাহাত গাওহারী ও সদর থানার ওসি খান মো. শাহরিয়ার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, সোমবার বিকালে স্কুলছাত্রী শ্রাবন্তির একটি ছাগল ঘাস খেতে প্রতিবেশী তপন চন্দ্রের কলার বাগানে যায়। কলার বাগান নষ্টের অভিযোগে ছাগলটিকে আটক করে বাড়ি নিয়ে যায় তপন চন্দ্র দাসের ছেলে লিখন। খবর পেয়ে ছাগলটি আনতে লিখনের বাড়িতে যায় শ্রাবন্তির মা দিপ্তি রানী।

এ সময় লিখন ও তার পরিবারের লোকজন তাকে গালিগালাজ করে এবং একপর্যায়ে মারধর করতে থাকে। পরে লিখন শ্রাবন্তির বাড়িতে এসে শ্রাবন্তিকে তুলে তার বাড়িতে নিয়ে যায়। লিখন ও তার পরিবারের লোকজন মা ও মেয়েকে মারধর এবং শারীরিক নির্যাতন করে।

অপমান সহ্য করতে না পেরে শ্রাবন্তি তার বাড়িতে এসে সবার অজান্তে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করে।

গাইবান্ধা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ রাহাত গাওহারি বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগে শ্রাবন্তির মা দিপ্তি রানী বাদী হয়ে তিনজনকে আসামি করে সদর থানায় একটি মামলা করেছেন।

ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত লিখন তার বাবা-মা ও পরিবারের সদস্যরা বাড়ি ছেড়ে পালিয়েছে। তবে তাদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলে মোহাম্মদ রাহাত গাওহারি জানান।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×