ইচ্ছাকৃতভাবেই গাড়িচাপা দিয়ে অধ্যক্ষকে হত্যা করেন শিক্ষক

  ওসমানীনগর (সিলেট) প্রতিনিধি ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ২১:৩৬ | অনলাইন সংস্করণ

মাদ্রাসার বাংলার প্রভাষক লুৎফুর রহমান ওরফে আজাদ
মাদ্রাসার বাংলার প্রভাষক লুৎফুর রহমান ওরফে আজাদ

সিলেটের ওসমানীনগরে পূর্ব বিরোধরে জের ধরে নিজ প্রাইভেটকার দিয়ে নিজেই গাড়িচাপা দিয়ে অধ্যক্ষ মাওলানা শায়খুল ইসলামকে হত্যার দায় স্বীকার করেছে একই মাদ্রাসার বাংলার প্রভাষক ঘাতক লুৎফুর রহমান ওরফে আজাদ।

মঙ্গলবার বিকাল ৪টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত সিলেটের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সুলেখা দের আদালতে ফৌজদারি দণ্ডবিধির ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেন লুৎফুর।

আদালতের বরাত দিয়ে অধ্যক্ষ হত্যা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ওসমানীনগর থানার এসআই মুমিনুল ইসলাম বলেন, মাদ্রাসায় দায়িত্বপালনসহ বিভিন্ন অভিযোগের কারণে নিহত অধ্যক্ষ মাওলানা শায়খুল ইসলামের সঙ্গে একই মাদ্রাসার অভিযুক্ত প্রভাষক লুৎফুর রহমানের পূর্ববিরোধ ছিল। তারই জের ধরে পূর্বপরিকল্পিতভাবে গাড়িচাপা দিয়ে হত্যার ছক আটে লুৎফুর।

তিনি বলেন, ঘটনার দিন সকালে পূর্বে থেকে নিজ প্রাইভেটকার নিয়ে সিলেট-ঢাকা মহাসড়কে অবস্থান নেয় প্রভাষক লুৎফুর। গোয়ালাবাজার থেকে নিজ মোটরসাইকেলে মাদ্রাসার দিকে রওনা দিলে প্রাইভেটকার চালিয়ে পিছু নেয় প্রভাষক লুৎফুর রহমান। মহাসড়কের বুরুঙ্গা সড়কের মুখে যাওয়া মাত্রই পেছন দিকে মোটরসাইকেল আরোহী অধ্যক্ষ সাইখুল ইসলামকে সজোরে ধাক্কা দেয় লুৎফুর রহমারের প্রাইভেটকার।

এসআই মুমিনুল বলেন, ঘটনাস্থলেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে মাওলানা শায়খুল ইসলাম। ঘটনার পরপরই ঘাতক লুৎফুর প্রাইভেটকার রেখেই পালিয়ে যায়।

আদালতে স্বীরোক্তির পর গত মঙ্গলবার রাতেই অধ্যক্ষ হত্যাকারী লুৎফুর রহমানকে আদালত জেলহাজতে প্রেরণ করেন। ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য লুৎফুরকে রিমান্ডে আনা হতে পারে বলে জানান এসআই মুমিনুল ইসলাম।

উল্লেখ্য, গত ১৪ ফেব্রুয়ারি সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মোটরসাইকেলে বুরুঙ্গা শেখ ফজিলাতুন্নেছা ফাজিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ শায়খুল ইসলাম মাদ্রায় যাচ্ছিলেন। প্রাইভেটকার নিয়ে থেকে ওত পেতে থাকা একই মাদ্রাসার বাংলার প্রভাষক লুৎফুর রহমান ওরফে আজাদ নিজ প্রাইভেটকার দিয়ে অধ্যক্ষ শায়খুল ইসলামকে চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই শায়খুল ইসলাম নিহত হন।

এ ঘটনার প্রেক্ষিতে গত ১৮ ফেব্রুয়ারি নিহতের স্ত্রী দিলবাহার তালুকদার লিপি (৩৭) বাদী হয়ে দক্ষিণ সুরমা উপজেলার ফরিদপুর গ্রামের মৃত তাহির আলীর ছেলে লুৎফুর রহমান ওরফে আজাদকে (৪৪) প্রধান ও অজ্ঞাতনামা আরও ৫-৬ জনকে আসামি করে একটি হত্যা দায়ের করেন। সোমবার ভোরে অভিযুক্ত লুৎফুরকে সিলেট শহর থেকে ওসমানীনগর থানা পুলিশ গ্রেফতার করে।

আরও পড়ুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×