বাগেরহাটে আড়াই মাসের শিশুকে অপহরণ!
jugantor
বাগেরহাটে আড়াই মাসের শিশুকে অপহরণ!

  বাগেরহাট ও মোরেলগঞ্জ প্রতিনিধি  

১১ মার্চ ২০১৯, ২১:৩১:০১  |  অনলাইন সংস্করণ

অপহৃত আড়াই মাসের শিশু আবদুল্লাহ

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জ উপজেলার পল্লী থেকে রাতে জানালার গ্রিল খুলে ঘুমন্ত মা-বাবার কোল থেকে আবদুল্লাহ নামের আড়াই মাস বয়সী দুধের শিশুকে অপহরণ করেছে দুর্বৃত্তরা।

শিশুটির মুক্তির জন্য মোবাইল ফোনে পরিবারের কাছে ১০ লাখ টাকা ‘মুক্তিপণ’ দাবি করেছে দুর্বৃত্তরা।

সোমবার ভোররাতে বিশারীঘাটা গ্রামে লোমহর্ষক এ ঘটনাটি ঘটেছে।

দলিল লেখক সোহাগ হাওলাদারের আড়াই মাস বয়সী দুধের শিশুকে অপহরণ করে নিয়ে যাওয়ার খবরে এলাকাবাসী ওই বাড়িতে ভিড় করেছেন। এ ঘটনায় এলাকায় সাধারণ মানুষের মধ্যে আতংক ছড়িয়ে পড়েছে।

‘মুক্তিপণ’ দাবিতে করা মোবাইল ফোনটির সূত্র ধরে শিশুটিকে উদ্ধারে পুলিশ অভিযান শুরু করেছে।

মুক্তিপণের দাবিতে অপহৃত দুধের শিশুটির বাবা দলিল লেখক সোহাগ হাওলাদার বলেন, আমি ও আমার স্ত্রী রোববার রাত ৩টার দিকে আড়াই মাস বয়সী অসুস্থ ছেলে আবদুল্লাহকে ওষুধ খাওয়াই। এর পরে আমাদের অপর সন্তান সুমাইয়া ও আবদুল্লাহকে নিয়ে আমরা ঘুমিয়ে পড়ি। ভোররাত সাড়ে ৪টায় জেগে দেখি বিছানায় আমার দুধের শিশু আবদুল্লাহ নেই। আমার মোবাইল ফোনটিও নেই। নেমে দেখি জানালার গ্রিল ও দরজা খোলা। ঘরের অন্যান্য রুমের সব দরজা বাইরে থেকে আটকে রেখেছিল দুর্বৃত্তরা।

অপহৃত শিশুটির মা রেশমা বেগম বলেন, ওষুধ খাওয়ানোর পরে আবদুল্লাহকে বুকের দুধ খাওয়াতে খাওয়াতে আমরা ঘুমিয়ে পড়ি। সে আমার কোলের মধ্যেই ছিল। ভোররাতে উঠে ছেলেটিকে আর পাইনি। কীভাবে আমার দুধের শিশুটিকে অপহরণকারীরা নিয়ে গেছে আমরা কেউ বুঝতেই পারিনি।

মোরেলগঞ্জ থানার ওসি কেএম আজিজুল ইসলাম বলেন, দুর্বৃত্তদের ‘মুক্তিপণ’ দাবিতে করা মোবাইল ফোনটির সূত্র ধরে শিশুটিকে উদ্ধারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। পুলিশের একধিক টিম উদ্ধার অভিযানে মাঠে রয়েছে। কারা, কী কারণে এ ঘটনা ঘটিয়েছে তা এই মুহূর্তে স্পষ্ট করে বলা সম্ভব নয়।

বাগেরহাটে আড়াই মাসের শিশুকে অপহরণ!

 বাগেরহাট ও মোরেলগঞ্জ প্রতিনিধি 
১১ মার্চ ২০১৯, ০৯:৩১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
অপহৃত আড়াই মাসের শিশু আবদুল্লাহ
অপহৃত আড়াই মাসের শিশু আবদুল্লাহ

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জ উপজেলার পল্লী থেকে রাতে জানালার গ্রিল খুলে ঘুমন্ত মা-বাবার কোল থেকে আবদুল্লাহ নামের আড়াই মাস বয়সী দুধের শিশুকে অপহরণ করেছে দুর্বৃত্তরা।

শিশুটির মুক্তির জন্য মোবাইল ফোনে পরিবারের কাছে ১০ লাখ টাকা ‘মুক্তিপণ’ দাবি করেছে দুর্বৃত্তরা।

সোমবার ভোররাতে বিশারীঘাটা গ্রামে লোমহর্ষক এ ঘটনাটি ঘটেছে।

দলিল লেখক সোহাগ হাওলাদারের আড়াই মাস বয়সী দুধের শিশুকে অপহরণ করে নিয়ে যাওয়ার খবরে এলাকাবাসী ওই বাড়িতে ভিড় করেছেন। এ ঘটনায় এলাকায় সাধারণ মানুষের মধ্যে আতংক ছড়িয়ে পড়েছে।

‘মুক্তিপণ’ দাবিতে করা মোবাইল ফোনটির সূত্র ধরে শিশুটিকে উদ্ধারে পুলিশ অভিযান শুরু করেছে।

মুক্তিপণের দাবিতে অপহৃত দুধের শিশুটির বাবা দলিল লেখক সোহাগ হাওলাদার বলেন, আমি ও আমার স্ত্রী রোববার রাত ৩টার দিকে আড়াই মাস বয়সী অসুস্থ ছেলে আবদুল্লাহকে ওষুধ খাওয়াই। এর পরে আমাদের অপর সন্তান সুমাইয়া ও আবদুল্লাহকে নিয়ে আমরা ঘুমিয়ে পড়ি। ভোররাত সাড়ে ৪টায় জেগে দেখি বিছানায় আমার দুধের শিশু আবদুল্লাহ নেই। আমার মোবাইল ফোনটিও নেই। নেমে দেখি জানালার গ্রিল ও দরজা খোলা। ঘরের অন্যান্য রুমের সব দরজা বাইরে থেকে আটকে রেখেছিল দুর্বৃত্তরা।

অপহৃত শিশুটির মা রেশমা বেগম বলেন, ওষুধ খাওয়ানোর পরে আবদুল্লাহকে বুকের দুধ খাওয়াতে খাওয়াতে আমরা ঘুমিয়ে পড়ি। সে আমার কোলের মধ্যেই ছিল। ভোররাতে উঠে ছেলেটিকে আর পাইনি। কীভাবে আমার দুধের শিশুটিকে অপহরণকারীরা নিয়ে গেছে আমরা কেউ বুঝতেই পারিনি।

মোরেলগঞ্জ থানার ওসি কেএম আজিজুল ইসলাম বলেন, দুর্বৃত্তদের ‘মুক্তিপণ’ দাবিতে করা মোবাইল ফোনটির সূত্র ধরে শিশুটিকে উদ্ধারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। পুলিশের একধিক টিম উদ্ধার অভিযানে মাঠে রয়েছে। কারা, কী কারণে এ ঘটনা ঘটিয়েছে তা এই মুহূর্তে স্পষ্ট করে বলা সম্ভব নয়।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন