রুনিয়ার পাশে যুগান্তর স্বজন সমাবেশ

  রাঙ্গাবালী প্রতিনিধি ১৬ মার্চ ২০১৯, ২০:৩২ | অনলাইন সংস্করণ

রুনিয়ার পাশে যুগান্তর স্বজন সমাবেশ
রুনিয়ার হাতে নতুন স্কুলড্রেস, খাতা-কলম ও গাইড বই তুলে দিচ্ছেন যুগান্তর স্বজন সমাবেশের সদস্যরা। ছবি: যুগান্তর

পঞ্চম শ্রেণি পড়ুয়া ছাত্রী রুনিয়া আক্তার (১২)। দারিদ্র্য পরিবারে ওর বেড়ে ওঠা। তাই দেড় বছর ধরে একই স্কুলড্রেস পরে স্কুলে আসা-যাওয়া করত সে। কিন্তু সেই স্কুলড্রেসটিও এখন ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে গেছে। এ ছাড়া নতুন ক্লাসে উঠেও খাতা-কলম আর গাইড বই কিনতে পারেনি। তাই স্কুলে যাওয়া বন্ধ করে দিয়েছিল সে।

কিন্তু শনিবার থেকে উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে রুনিয়া নতুন স্কুলড্রেস পরে খাতা-কলম ও গাইড বই নিয়ে স্কুলে যেতে শুরু করেছে। রুনিয়ার এই আনন্দের নেপথ্যে যুগান্তর স্বজন সমাবেশ।

রুনিয়া পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলার ছোটবাইশদিয়া ইউনিয়নের কাউখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রী এবং একই ইউনিয়নের ছোটবাইশদিয়া গ্রামে রুনিয়ার বসবাস।

বাবা রফিকুল ইসলাম মানসিক ভারসাম্যহীন রোগী। মা রহিমা বেগম গৃহিনী। চার ভাইবোনের মধ্যে রুনিয়া সবার ছোট। হোটেলে কাজ করে সংসারের খরচ জোগান বড় ভাই রাসেল। কিন্তু তার পক্ষে রুনিয়ার লেখাপড়ার খরচ তো দূরের কথা সংসারের খরচ বহন করাই দুঃসাধ্য হয়ে পড়েছে।

রুনিয়ার স্কুলের সহপাঠীরা জানান, দেড় বছর ধরে একটি স্কুলড্রেস পরে স্কুলে আসে রুনিয়া। স্কুলড্রেসটি অনেক পুরান হয়ে গেছে। এ ছাড়া নতুন ক্লাসে ওঠার পর তাকে গাইড বই ও খাতা-কলম কিনে দিতে পারেনি পরিবার। এ কারণে প্রায় এক সপ্তাহ ধরে স্কুলে আসছিল না সে।

এমন খবর পেয়ে যুগান্তর স্বজন সমাবেশের রাঙ্গাবালী উপজেলা শাখার সদস্যরা রুনিয়াকে সহানুভূতির হাত বাড়িয়ে দেন। শনিবার সকালে নতুন স্কুলড্রেস, খাতা-কলম ও গাইড বই নিয়ে স্বজন সমাবেশের সদস্যরা ছুটে যান রুনিয়ার বাড়িতে। এসব হাতে পেয়ে আনন্দে মাতোয়ারা রুনিয়া ও তার পরিবার।

খুশিতে আত্মহারা রুনিয়া বলে, ‘আমি এহন (এখন) থাইক্কা স্কুলে যামু। একদিনও ক্লাস মিস করমু না।’

আবেগাপ্লুত রুনিয়ার মা রহিমা বেগম বলেন, ‘বড় ছেলের রোজগারে সংসারই চলে না। চার ছেলেমেয়ের মধ্যে রুনিয়াকে কষ্ট করে লেখাপড়া চালিয়েছিলাম। কিন্তু এখন আর টানতে না পেরে ভাবছিলাম মেয়েডার (মেয়ের) ল্যাহাপড়াই (লেখাপড়া) বন্ধ কইরা দিমু। কিন্তু আমনেগো (আপনাদের) সাহায্য পাইয়া আবার আমার রুনিয়া ইস্কুলে যাইবে, মনে খুব খুশি লাগতাছে। আপনাগো লাইগ্যা প্রাণ খুইল্লা দোয়া করি।’

এ সময় উপস্থিত ছিলেন যুগান্তর প্রতিনিধি কামরুল হাসান, স্বজন সমাবেশের সভাপতি এম সোহেল, সহসভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান সোহান, সহসভাপতি বনি আমিন, সমন্বয়ক আল আসাদ, কোষাধ্যক্ষ সাব্বির মাহমুদ, উপকোষাধ্যক্ষ ইব্রাহিম প্রমুখ।

স্বজন সমাবেশের সভাপতি এম সোহেল বলেন, ‘এ রকম জীবনের সঙ্গে যুদ্ধ করছে অনেক রুনিয়া। হয়তো আমরা সবার পাশে দাঁড়াতে পারব না। কিন্তু এই রুনিয়ার পাশে দাঁড়িয়ে বিত্তবানদের হৃদয়ে একটু নাড়া দিতে পারব। যাতে তাদের মনে রুনিয়াদের পাশে সহানুভূতির হাত বাড়িয়ে দেয়ার অনুপ্রেরণা জাগে।’

আনন্দ আর উল্লাস নিয়ে শনিবার থেকেই রুনিয়া নতুন স্কুলড্রেস পরে স্বজন সমাবেশের সদস্যদের সঙ্গে স্কুলে যায়। ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষকের সঙ্গে কথা বলে রুনিয়ার বেতন ও ফি শতভাগ ফ্রি করার বিষয়টি নিশ্চিত করে যুগান্তর স্বজন সমাবেশ।

কাউখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুস সালাম বলেন, ‘রুনিয়ার জন্য সহানুভূতির হাত বাড়িয়ে দেয়ার জন্য যুগান্তর স্বজন সমাবেশের ব্যতিক্রমী এ উদ্যোগকে আমরা স্বাগত জানাই।’

আরও পড়ুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×