লোহাগাড়ার সেই বিতর্কিত ইউএনও প্রত্যাহার

  চট্টগ্রাম ব্যুরো ২১ মার্চ ২০১৯, ১৮:৪৩ | অনলাইন সংস্করণ

লোহাগাড়ার সেই বিতর্কিত ইউএনও আবু আসলাম।
লোহাগাড়ার সেই বিতর্কিত ইউএনও আবু আসলাম। ফাইল ছবি

অবশেষে প্রত্যাহার হলেন লোহাগাড়ার সেই বিতর্কিত ইউএনও আবু আসলাম।

আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর সঙ্গে গোপন বৈঠক করার অভিযোগে তাকে প্রত্যাহার করা হয়েছে বলে আওয়ামী লীগ নেতারা জানিয়েছেন।

বুধবার রাতে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের মাঠ প্রশাসন-২ শাখার উপসচিব মুহাম্মদ শাহীন ইমরান লিখিত আদেশে আবু আসলামকে পরবর্তী পদায়নের জন্য জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের এপিডি ইউং এ ন্যস্ত করেন।

এর আগে মঙ্গলবার তাকে প্রত্যাহারের জন্য নির্বাচন কমিশন থেকে আদেশ জারি করা হয়েছিল। তবে বৃহস্পতিবারও আবু আসলাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্বপালন করেছেন। তার স্থলে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত (বিকাল ৪টা) কাউকে পদায়ন করা হয়নি।

আবু আসলামের বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী জিয়াউল হক চৌধুরী বাবুলের সঙ্গে গোপন বৈঠক করার অভিযোগে ১৮ মার্চ নির্বাচন কমিশন বরাবরে অভিযোগ দেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও আওয়ামী লীগের উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী খোরশেদ আলম চৌধুরী। তার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ইউএনওকে প্রত্যাহার করা হয়েছে বলে লোহাগাড়া আওয়ামী লীগের নেতারা জানিয়েছেন।

নির্বাচন কমিশনের কাছে পাঠানো চিঠিতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী খোরশেদ আলম উল্লেখ করেন-‘গত ১৬ মার্চ সন্ধ্যায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু আসলাম তার সরকারি বাসভবনে আমার প্রতিদ্বন্দ্বী আনারস প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী জিয়াউল হক বাবুলের সঙ্গে গোপন বৈঠক করেন। বৈঠকের পর জিয়াউল হক বাবুল এলাকায় দম্ভ করে বলছেন- ইউএনও সাহেবের সঙ্গে আমার সমঝোতা হয়ে গেছে। ভোট পাই আর না পাই আমাকে উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে ঘোষণা করা হবে।’

চট্টগ্রামের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ কামাল হোসেন যুগান্তরকে বলেন, ‘লোহাগাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু আসলামকে প্রত্যাহারের আদেশ জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে এসেছে। খুব শিগগিরই তার স্থলে আরেকজন ইউএনও পদায়ন করা হবে।’

নানা কারণে লোহাগাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু আসলাম ছিলেন বিতর্কিত। তার বিরুদ্ধে অনিয়ম ও দুর্নীতির খবর প্রকাশ করায় ২২ ফেব্রুয়ারি রাতে ইউএনও নিজে উপস্থিত থেকে যুগান্তরের লোহাগাড়া প্রতিনিধিকে গ্রেফতার করানোর অভিযোগ উঠে।

গত ১০ ফেব্রুয়ারি ‘লোহাগাড়ায় ইউএনওর বিরুদ্ধে মাছ লুটের অভিযোগ শিরোনামে’ একটি নিউজ প্রকাশিত হয়। এরপর ১৯ ফেব্রুয়ারি ‘লোহাগাড়ায় গৃহায়ণ কর্মসূচিতে অনিয়মের অভিযোগ’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হয়। এসব বিষয়ে যুগান্তরে সংবাদ প্রকাশিত হওয়ার পর যুগান্তর প্রতিনিধি মোহাম্মদ সেলিমকে গ্রেফতার করা হয়।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×