ব্রাশফায়ারে নিহত ৭

বাঘাইছড়িতে নিহতদের স্বজনদের রোববার অনুদান দেবেন সিইসি

প্রকাশ : ০৬ এপ্রিল ২০১৯, ১০:৪৫ | অনলাইন সংস্করণ

  বাঘাইছড়ি (রাঙ্গামাটি) প্রতিনিধি

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নুরুল হুদা। ছবি: যুগান্তর

রাঙ্গামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলায় ব্রাশফায়ারে সাতজন নিহতের ঘটনায় হতাহতদের পরিবারের মধ্যে অনুদান দিতে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নুরুল হুদা রোববার বাঘাইছড়ি যাচ্ছেন।

বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বাঘাইছড়ি উপজেলা মিলানায়তনে সিইসি নির্বাচনের কাজে নিয়োজিত হতাহতদের মধ্যে অনুদান দেবেন। এসময় স্থানীয় প্রশাসনসহ জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে মতবিনিমিয় করবেন বলে জানিয়েছেন বাঘাইছড়ি উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা চৈতালী চাকমা।

ওই দিন সিইসি নিহত সাত পরিবারের মধ্যে সাড়ে পাঁচ লাখ টাকা, গুরুতর আহতদের এক লাখ টাকা এবং সাধারণ আহতদের পঞ্চাশ হাজার টাকা করে প্রদান করবেন।

হতাহত ৪০ জনের মধ্যে রয়েছে নিহত সাতজন, গুরুতর আহত ১৯ জন, সাধারণ আহত ১৪ জন, নিহত সাতজনের মধ্যে ৪ জন আনসার ভিডিপি সদস্য, প্রিজাইডিং পোলিং অফিসার দুজন, প্রার্থীর এজেন্ট একজন। 

এর আগে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে উপজেলার বাঘাইহাট কেন্দ্রে দায়িত্বরত পোলিং অফিসার একজন হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন। তার পরিবারকেও সাড়ে পাঁচ লাখ টাকা দেয়া হবে বলে জানা যায়। 

উল্লেখ্য, সোমবার দ্বিতীয় ধাপে অনুষ্ঠিত হয় বাঘাইছড়ি উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। নির্বাচনে দিনভর দায়িত্বপালন শেষে নির্বাচনী সরঞ্জামসহ উপজেলার সাজেকের কংলাক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র ছেড়ে গাড়িবহর নিয়ে উপজেলা সদরে ফিরছিলেন, নির্বাচনী কর্মকর্তা, কর্মচারী ও নিরাপত্তাকর্মীদের দল।

দিঘীনালা-মারিশ্যা সড়কের ৯ কিলোমিটার নামক এলাকায় পৌঁছা মাত্র নির্বাচনী কাজে নিয়োজিত কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের বহনকারী জিপগাড়ি লক্ষ্য করে অতর্কিত এলোপাতাড়ি গুলিবর্ষণ করে অজ্ঞাত বন্দুকধারীরা।

এতে কিছু বুঝে ওঠার আগেই ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান ছয়জন। যাদের মধ্যে ছিলেন নির্বাচনী দায়িত্বপালন করা শিক্ষক, সরকারি কর্মকর্তা, কর্মচারী ও আনসার-ভিডিপি সদস্য। 

রাতে বাঘাইছড়ি থেকে হেলিকপ্টারে করে চট্টগ্রাম নেয়ার পথে মারা যান গুলিবিদ্ধ শিক্ষক মো. তৈয়ব।

এ ঘটনায় গুলিবিদ্ধ হয়ে পুলিশ ও আনসার-ভিডিপি সদস্য, স্কুল-কলেজের শিক্ষকসহ আহত হন অনেকেই।