দালালের বাসায় ভূমি অফিসের নথিপত্র!

প্রকাশ : ১১ এপ্রিল ২০১৯, ২১:৪৯ | অনলাইন সংস্করণ

  হাটহাজারী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি

দালালের বাসা থেকে ভূমি অফিসের নথিপত্র উদ্ধার করা হচ্ছে। ছবি: যুগান্তর

নাম তার শফিউল আজম (৪৫)। পেশায় নামধারী মুন্সি (সার্ভেয়ার)। তার মূল পেশা ভূমি অফিসে দালালি করা। কিছু দিন আগে উপজেলা ভূমি অফিসে দালালি করতে গিয়ে হাতেনাতে ধরা পড়েন।

ওই সময় ভ্রাম্যমাণ আদালত তাকে ৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করে। কারাদণ্ড ভোগ করার পর থেকে তিনি গাঢাকা দিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ রুহুল আমিন এবং সহকারী কমিশনার (ভূমি) সম্রাট খীসা অভিযান চালিয়ে দালাল শফিউল আজমের বসতঘর থেকে ৪৩টি নামজারি নথি, ৫৭টি নামজারি মামলার নথির মূলপ্রস্তাব ফর্মসহ বিপুল পরিমাণ নামজারি খতিয়ান, দাখিলা এবং ডিসিআর উদ্ধার করেছেন।

শফিউল আজম হাটহাজারী উপজেলার চারিয়া গ্রামের মো. আবুল কালাম আজাদের ছেলে। অভিযান পরিচালনাকালে আজমকে তার বসতঘরে পাওয়া যায়নি।

ইউএনও রুহুল আমিন জানান, ভূমি অফিসের তহশিলদার ও অফিস সহকারীদের যোগসাজশে রেকর্ড রুমের গুরুত্বপূর্ণ নথি বাড়িতে নিয়ে মানুষকে হয়রানি করতেন আজম মুন্সি। স্থানীয়দের কাছে ভূমি অফিসের ‘দালাল’ নামেই পরিচিত ছিলেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, সম্প্রতি আজম মুন্সিকে ভূমি অফিসের সামনে থেকে আটক করে কারাদণ্ড দেয় ভ্রাম্যমাণ আদালত। কারাভোগ শেষে গাঢাকা দেন তিনি। তবে রেকর্ডরুমের অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাগজ তার বাড়িতেই রয়ে যায়। বৃহস্পতিবার অভিযান চালিয়ে এসব কাগজপত্র উদ্ধার করা হয়।

ইউএনও বলেন, রেকর্ডরুমের প্রতিটি কাগজ সরকারি সম্পদ। এসব কাগজ কার মাধ্যমে কীভাবে আজম মুন্সির হাতে গেল- তা খতিয়ে দেখা হবে।

আজম মুন্সিসহ যারা এর সঙ্গে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জানান ইউএনও।

প্রসঙ্গত গত ১১ মার্চ দুপুরে ভূমি অফিসের সামনে থেকে শফিউল আজমসহ মো. হারুন নামে আরেক দালালকে ভ্রাম্যমাণ আদালত ৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়ে পুলিশের হাতে সোপর্দ করে।