সিরাজগঞ্জে বাল্যবিয়ে বন্ধ করে কনের দায়িত্ব নিলেন এসিল্যান্ড

  সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি ১১ এপ্রিল ২০১৯, ২২:২৮ | অনলাইন সংস্করণ

সিরাজগঞ্জ

সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার সয়দাবাদ গ্রামের ভূমিহীন দিনমজুর সুজাব আলীর মেয়ে সুবর্ণ খাতুনের বাল্যবিয়ে বন্ধের পর লেখাপড়ার দায়িত্ব নিলেন সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আনিসুর রহমান।

বুধবার বিকালে কনের বাড়িতে গিয়ে তিনি এ দায়িত্ব গ্রহণের ঘোষণা দেন।

মো. আনিসুর রহমান জানান, সংসারে অভাব-অনটনের কারণে চলতি বছরের ২২ মার্চ সুবর্ণের বিয়ের আয়োজন করেছিল তার পরিবার। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে তার বিয়ে বন্ধ করে দেয়া হয়।

তিনি জানান, সুবর্ণ সয়দাবাদ উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির একজন মেধাবী ছাত্রী। তার বাবা সম্প্রতি স্ট্রোক করে কর্মক্ষমতা হারিয়েছেন। ৩ বোন ও ২ ভাইয়ের মধ্যে সুবর্ণ চতুর্থ। ইতিপূর্বে তার বড় বোনকে সংসারে অভাবের কারণে বাল্যবিয়ে দিয়েছে তার পরিবার। দুই ভাই অল্প বয়স থেকেই তাঁত শ্রমিকের কাজ করে।

মো. আনিসুর রহমান জানান, সুবর্ণের পবিবারের মাথা গোঁজার ঠাঁই নেই। কোনো রকমে অন্যের পরিত্যক্ত বাড়িতে বসবাস করে। বাল্যবিয়ে বন্ধ হওয়ায় সুবর্ণ দারুণ খুশি। তার লেখাপড়া করার খুবই ইচ্ছে।

সুবর্ণের বরাত দিয়ে তিনি আরও জানান, সুবর্ণ সিরাজগঞ্জ জেলার জেলা প্রশাসক কামরুন নাহার সিদ্দীকাকে দেখে অনুপ্রাণিত হয়েছে। সুবর্ণের বক্তব্য- ‘তিনি যদি নারী হয়ে জেলা প্রশাসক হতে পারেন, তাহলে আমি কেন চেষ্টা করলে পারব না। আমিও নিজের পায়ে দাঁড়াতে চাই।’

সুবর্ণের এমন বক্তব্য শুনে তার লেখাপড়ার দায়িত্ব নিয়ে সহায়তায় হাত বাড়ান সদরের সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আনিসুর রহমান। তিনি সুবর্ণের লেখাপড়ার আনুষঙ্গিক বই ও খাতাপত্র প্রদান, খণ্ডকালীন অনুদানসহ মাসিক বৃত্তি এবং তার পরিবারের জন্য কৃষি খাসজমি বন্দোবস্ত দেয়ার ব্যবস্থা করে দেন।

সয়দাবাদ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হারুন অর রশিদ জানান, সুবর্ণ খুব মেধাবী ছাত্রী। কিন্তু আর্থিক অনটনের কারণে তার পরিবার এত দিন লেখাপড়ার ব্যয়ভার বহন করতে পারত না। এখন সে ভালো করে পড়ালেখা করে নিজের ভবিষ্যৎ গড়ে দেশ-জাতির কল্যাণে নিজেকে নিয়োজিত করবে বলে আশা করি।

দরিদ্র পরিবারের মেয়েটির লেখাপড়ার দায়িত্ব নেয়ায় এসিল্যান্ডের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন সুবর্ণের বাবা-মা।

সুবর্ণের আবেগাপ্লুত মা মর্জিনা বেগম বলেন, সহকারী কমিশনা (ভূমি) মো. আনিসুর রহমান স্যার মেয়ের লেখাপড়ার দায়িত্ব না নিলে আমাদের পক্ষে লেখাপাড়া চালানো সম্ভবপর ছিল না। মেয়ে ভালোভাবে লেখাপড়া শেষ করে প্রতিষ্ঠিত হলেই তাকে বিয়ে দেয়া হবে বলে জানান তিনি।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×