ইজতেমা নিয়ে মদনে সাদ-জোবায়ের গ্রুপের সংঘর্ষ, আহত ১০

  মদন (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি ১৭ এপ্রিল ২০১৯, ১৮:৫২ | অনলাইন সংস্করণ

সংঘর্ষ

নেত্রকোনার মদনপুরে অনুষ্ঠিত মাওলানা সাদ গ্রুপের আয়োজনে তিন দিনের ইজতেমায় যোগ দেয়ার দাওয়াতকে কেন্দ্র করে সাদ ও জোবায়ের গ্রুপের সংঘর্ষে অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন।

বুধবার সকালে মদন উপজেলার ফতেপুর ইউনিয়নের রামগোপালপুর বড় বাড়ির ভরাট পুকুরে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

আহতদের মধ্যে মাওলানা সাদ গ্রুপের হাসনপুর গ্রামের হাফেজ ওহিদুজ্জামান, কুলিয়াটি গ্রামের মো. দেলায়ার হোসেন, ও আবদুল কদ্দুছকে মদন হাসপাতালে এবং জোবায়ের গ্রুপের দেওসহিলা গ্রামের মুফতি ওমর ফারুক, রামগোপলপুর হাফিজিয়া মাদ্রাসার মুফতি সোলেমান, হাফেজ, খাইরুল ইসলাম, মৌলানা এনামূল হক, মো. শহিদুল ইসলাম, শিক্ষার্থী আবদুর রহমান, আবদুল ওয়াদুদকে পাশের উপজেলা তাড়াইল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

জানা গেছে, নেত্রকোনার সদর উপজেলার মদনপুর শাহ সুলতান কমর উদ্দীন রুমি (রহ.) মাজারের পাশের মাঠে মাওলানা সাদ গ্রুপের তিন দিনের ইজতেমায় যোগ দেয়ার জন্য হাফেজ ওহিদুজ্জামানের নেতৃত্বে একটি গ্রুপ উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় দাওয়াতের কাজ করছিল। জোবায়ের গ্রুপের লোকজন এতে বাধা দেয়। এ নিয়ে গত কয়েক দিন ধরে এলাকায় উত্তেজনা চলছিল।

বুধবার সকালে সাদ গ্রুপের ওহিদুজ্জামানের নেতৃত্বে ১৬ জন মোটরসাইকেলযোগে দাওয়াতের উদ্দেশ্যে ফতেপুর রামগোপালপুর বড়বাড়ির মিশন চৌধুরীর বাড়িতে যায়। চৌধুরী বাড়ি থেকে ফেরার পথে বাড়ির সামনে ভরাট পুকুরে পৌঁছামাত্রই জোবায়ের গ্রুপের মুফতি ওমর ফারুকের নেতৃত্বে ১৫-২০ জন মোটরসাইকেলের গতিরোধ করে অতর্কিত হামলা চালায়। এতে দু-গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের এ ঘটনা ঘটে।

সাদ গ্রুপের আহত হাফেজ মৌলানা ওহিদুজ্জামান জানান, দাওয়াতে বাধার কারণে আমি এ এলাকায় আসতে রাজি ছিলাম না। সকালে কয়েকজন সাথী মোটরসাইকেলযোগে এসে আমাকে নিয়ে মিশন চৌধুরীর বাড়িতে যায়। বাড়ি থেকে বের হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই মুফতি ওমর ফারুকের নেতৃত্বে ১৫-২০ জন আমাদের ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। আমাদের একটি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করা হয়েছে। ষড়যন্ত্রমূলকভাবেই আমাদের ওপর হামলা করা হয়েছে। এ ব্যাপারে আমি আইনের আশ্রয় নেব।

অপর দিকে জোবায়ের গ্রুপের মুফতি ওমর ফারুক জানান, গত সোমবার ফতেপুর হাটশিরা বাজার মসজিদে হাফেজ ওহিদুজ্জামাকে এলাকার পরিস্থিতি উত্তপ্ত হওয়ায় দাওয়াতের কাজ বন্ধ রাখার জন্য অনুরোধ করি। কিন্তু তিনি তা অমান্য করে বুধবার সকালে মিশন চৌধুরীর বাড়িতে দাওয়াত নিয়ে আসেন। এ সময় শিক্ষার্থীরা উত্তেজিত হয়ে এর প্রতিবাদ জানান।

এ ব্যাপারে ওসি মো. রমিজুল হক জানান, সাদ-জোবায়ের দুগ্রুপের সংঘর্ষের খবর পেয়েছি। কেউ অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×