গফরগাঁওয়ে যৌতুকের বলি কিশোরী নববধূ

  গফরগাঁও (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি ১৭ এপ্রিল ২০১৯, ২১:৪৭ | অনলাইন সংস্করণ

সাথী আক্তার
সাথী আক্তার

ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলায় এক লাখ যৌতুক না পেয়ে সাথী আক্তার (১৪) নামে কিশোরী নববধূকে গলা টিপে হত্যা করেছে স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় এ ঘটনা ঘটে। পরে নিহত কিশোরীর বাবা আব্দুল লতিফ বাদী হয়ে রাতে গফরগাঁও থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

মামলায় আসামি করা হয়েছে নিহত সাথী আক্তারের স্বামী শারফুল ইসলাম, শাশুড়ি জোসনা বেগম, দেবর রাকিব, ননদ নাছিমা আক্তার ও ননদের স্বামী কবীরসহ ৬ জনকে।

নিহত সাথী আক্তার চরমছলন্দ জিরাতিপাড়া গ্রামের কৃষক আবদুল লতিফের মেয়ে।

গফরগাঁও থানার ওসি মোহাম্মদ আবদুল আহাদ খান জানান, ঘটনায় অভিযুক্ত মামলার ননদ নাছিমা খাতুনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

জানা গেছে, গত বছরের নভেম্বর মাসে উপজেলার রাওনা ইউনিয়নের ছয়বাড়িয়া গ্রামের কালু মিয়ার ছেলে ব্যবসায়ী শারফুল ইসলাম (২৯) সঙ্গে পারিবারিকভাবে বিয়ে হয় সাথী আক্তারের। মেয়ের সুখের চিন্তা করে বিয়ের সময় হতদরিদ্র কৃষক আবদুল লতিফ বরপক্ষকে এক লাখ টাকা যৌতুক দেয়।

বিয়ের প্রায় দুই মাস যেতে না যেতেই শারফুল ইসলাম ব্যবসার জন্য স্ত্রী সাথী আক্তারের কাছে আরও এক লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে। দাবিকৃত টাকা না পেয়ে স্বামী শারফুর, শাশুড়ি জোসনা বেগম, ননদ নাছিমা, সাবিনা ইয়াসমিন কিশোরী নববধূ সাথী আক্তারকে শারীরিক ও মানুষিক নির্যাতন চালিয়ে আসছিল।

পহেলা বৈশাখের রাতে যৌতুকের জন্য স্বামী শারফুল স্ত্রী সাথী আক্তারকে জোরপূর্বক মুখে ঘুমের ট্যাবলেট দিয়ে হত্যার চেষ্টা চালায়। এতে সাথী আক্তার অসুস্থ হয়ে পড়লে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে সাথী আক্তারকে পাঠিয়ে দেয়া হয় শারফুলের বোনের স্বামী চরমছলন্দ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের দফতরি কবীর মিয়ার বাড়িতে। এ সময় সাথী আক্তারের সঙ্গে স্বামী শারফুল ও তার বাড়ির লোকজনও চরমছলন্দ গ্রামে কবীর মিয়ার বাড়িতে চলে যায়।

নিহত কিশোরীর বাবা আবদুল লতিফ অভিযোগ করেন, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় শারফুল ও কবীর মিয়া আমাকে জানায়- সাথী আক্তার আত্মহত্যা করেছে। খবর পেয়ে আমি গিয়ে দেখি লাশ কবীর মিয়ার ঘরের খাটে রাখা। সাথীর গলা ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

তিনি বলেন, যৌতুকের জন্য আমার মেয়েকে তার স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন গলা টিপে হত্যা করেছে।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×