বগুড়ায় বিএনপি নেতা হত্যা: ৯ জনের নাম প্রকাশ

  বগুড়া ব্যুরো ১৮ এপ্রিল ২০১৯, ২২:২৪ | অনলাইন সংস্করণ

অ্যাডভোকেট মাহবুব আলম শাহীন হত্যা মামলায় গ্রেফতার পায়েল শেখ ও রাসেল
অ্যাডভোকেট মাহবুব আলম শাহীন হত্যা মামলায় গ্রেফতার পায়েল শেখ ও রাসেল

বগুড়ার সদর উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক, পরিবহন ব্যবসায়ী অ্যাডভোকেট মাহবুব আলম শাহীন হত্যা মামলায় গ্রেফতার পায়েল শেখ আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট বিল্লাহ হুসাইনের কাছে এ স্বীকারোক্তি দেন। সে হত্যায় সম্পৃক্ত ৯ জনের নাম প্রকাশ করেছে।

একই আদালত অপর সন্ধিগ্ধ আসামি রাসেলকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।

বগুড়া সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মিডিয়া) সনাতন চক্রবর্তী জানান, অ্যাডভোকেট শাহীন হত্যার ঘটনায় তার স্ত্রী আকতারা জাহান শিল্পী ৬ জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত ৪-৫ জনের বিরুদ্ধে সদর থানায় মামলা করেছেন। বুধবার ভোরে শহরের নিশিন্দারার বাড়ি থেকে রাসেলকে গ্রেফতার ও হত্যায় ব্যবহৃত একটি পালসার মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়।

তিনি জানান, রাসেলের দেয়া তথ্যে গাবতলী উপজেলার কাগইল ইউনিয়নের আমলিচুকাই গ্রামে মেয়ের শ্বশুরবাড়ি থেকে পায়েল শেখকে গ্রেফতার করা হয়। পায়েলের বিরুদ্ধে সদর থানায় বিভিন্ন ধারায় ৯টি মামলা রয়েছে।

পুলিশ কর্মকর্তা আরও জানান, বৃহস্পতিবার বিকালে পায়েল ও রাসেলকে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হয়। পায়েল ম্যাজিস্ট্রেট বিল্লাল হুসাইনের কাছে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। এ ছাড়া রাসেলকে ১০ দিনের রিমান্ড চাওয়া হয়েছিল। আদালত ৫ দিনের মঞ্জুর করেছেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপশহর ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক আম্বার হোসেন জানান, স্বীকারোক্তিতে পায়েল হত্যায় জড়িত ৯ জনের নাম প্রকাশ করেছে। তবে স্বীকারোক্তিতে আর কী প্রকাশ করেছে তা এখনই প্রকাশ করা সম্ভব নয়।

এর আগে সে পুলিশের কাছে স্বীকার করে বগুড়া জেলা মোটর মালিক গ্রুপের নেতৃত্বের কোন্দলে বিএনপি নেতা অ্যাডভোকেট মাহবুব আলম শাহীনকে উপশহর এলাকায় কুপিয়ে ও ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয়েছে।

রোববার রাত সাড়ে ১০টার দিকে দুর্বৃত্তরা তার ওপর হামলা করে। তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে ছুরিকাঘাত ও দায়ের কোপ দিয়ে পালিয়ে যায়। সব দোকানপাট বন্ধ করে ব্যবসায়ী ও ক্রেতারা চলে যান। পথচারীরা তাকে মোহাম্মদ আলী হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

সোমবার দুপুরে ময়নাতদন্ত শেষে শাহীনের লাশ শহরের ধরমপুর স্কুলপাড়ার বাড়িতে নেয়া হয়। পরিবারের সদস্যরা এ হত্যাকাণ্ডের জন্য বগুড়া জেলা মোটর মালিক গ্রুপের দ্বন্দ্ব ও নেতাদের দায়ী করেন।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: jugantor.ma[email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×