গরুর ‘ভুল’ চিকিৎসা, ৫ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দাবি খামারির

প্রকাশ : ১৯ এপ্রিল ২০১৯, ১১:৩১ | অনলাইন সংস্করণ

  যুগান্তর রিপোর্ট

ফাইল ছবি

ভুল চিকিৎসার কারণে একটি গরু মারা যাওয়ায় ৫ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দাবি করেছেন মাসুদ মোল্লা নামে এক খামারি। ঘটনাটি ঘটেছে রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলায়।  

গত বুধবার ওই খামারি জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ও বালিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কাছে ক্ষতিপূরণ চেয়ে লিখিত আবেদন করেছেন।

মাসুদ মোল্লার বাড়ি উপজেলার বালিয়াকান্দি গ্রামে। তার পিতার নাম আবদুল কাদের। 

মাসুদ মোল্লা অভিযোগ করেন, তার বাড়িতে গরুর খামার আছে। খামারে উন্নতজাতের ১১টি গাভী ছিল। ১৭ দিন আগে ৫টি গাভী এবং একটি বাছুর অসুস্থ হলে বালিয়াকান্দি উপজেলা প্রাণিসম্পদ দফতরে যোগাযোগ করেন। এর পর প্রাণিসম্পদ কার্যালয়ের কম্পাউন্ডার আবু হেনা তার খামারে গিয়ে গাভীগুলো ও বাছুরটিকে চিকিৎসা দেন। ওই সময় গাভী ও বাছুরের জ্বর ১০৬ ডিগ্রি ছিল। 

কম্পাউন্ডার আবু হেনা জানান, ১০৬ ডিগ্রি জ্বর থাকা স্বাভাবিক ব্যাপার। এতে কোনো ক্ষতি হবে না। বাছুরটি বেশি অসুস্থ হলেও তিনি কোনো প্রকার চিকিৎসা না দিয়ে মিথ্যা সান্ত্বনা দেন।

মাসুদের অভিযোগ, মঙ্গলবার সকালে বাছুরটি গুরুতর অসুস্থ হওয়ার পর তার (আবু হেনা) সঙ্গে যোগাযোগ করি। তিনি স্বাভাবিক ঘটনা বলে জানান। অন্য বড় চিকিৎসক দিয়ে চিকিৎসা করাতে চাইলেও তিনি নিরুৎসাহিত করেন। পরে বাছুরটি মারা যায়। তিনি আমার কাছ থেকে মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে টাকা হাতিয়ে নেয়ার জন্যই এ ধরনের চিকিৎসা দিয়েছেন বলে ধারণা করছি। কারণ প্রতিবারই তাকে এক হাজার টাকা করে দেয়া হয়।

মাসুদ অভিযোগ করে আরও বলেন, কম্পাউন্ডার হেনার অবহেলা ও ভুল চিকিৎসায় খামারে থাকা ১১টি গরু রুগ্ন গরুতে পরিণত হয়েছে। একটি বাছুর মারা গেছে এবং পানির দরে পাঁচটি গরু বিক্রি করতে বাধ্য হয়েছি। আরও পাঁচটি গরুর অবস্থাও খুবই খারাপ। ভুল চিকিৎসার কারণে আমার পাঁচ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে।

কম্পাউন্ডার আবু হেনা বলেন, আমি ওই বাছুরের চিকিৎসা দিইনি। অফিসের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ না থাকায় আমি গরুর চিকিৎসাসেবা দিতাম। আমাকে ফাঁসানোর চেষ্টা করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা (ডিএলও) ডা. সরকার আশরাফুল ইসলাম বলেন, একটি অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ জন্য বালিয়াকান্দির প্রাণী চিকিৎসককে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।