সেই পা এখনও পাওয়া যায়নি!

  বাঞ্ছারামপুর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি ২০ এপ্রিল ২০১৯, ২৩:১৪ | অনলাইন সংস্করণ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহসভাপতি আবুল বাশারের বিরুদ্ধে টেঁটাবিদ্ধ করে কালা মিয়া নামের এক ব্যক্তির পা কর্তন করে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠে। এ সময় তার ছেলেকেও টেঁটাবিদ্ধ করেন আবুল বাশার।

এদিকে কর্তন করে নিয়ে যাওয়া পা উদ্ধার করতে শুক্রবার রাতব্যাপী উপজেলার রূপসদী গ্রামে অভিযান চালায় বাঞ্ছারামপুর মডেল থানা পুলিশ। তবে সেই পা এখনো পাওয়া যায়নি বলে জানা গেছে।

এই ঘটনায় জড়িত অন্যতম আবুল বাশার ও তার সহযোগীদের কেউ গ্রেফতার হয়নি। তবে শনিবার রূপসদী গ্রামের নিরীহ চার ব্যক্তিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ।

এই বিষয়ে নবীনগর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার চিত্ত রঞ্জন পাল বলেন, ‘রূপসদী গ্রামে শনিবার আমি পরিদর্শনে গিয়েছিলাম। কালা মিয়া নামের ব্যক্তির কেটে নেয়া পায়ের অংশ উদ্ধার করতে রূপসদী গ্রামে পুলিশের অভিযান চলছে। যারা আইনকে নিজের হাতে উঠিয়ে নিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে আমরা কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

তিনি বলেন, ‘যারা নিরপরাধ তাদের কোনোরকম হয়রানি করা হবে না। শনিবার রাতের মধ্যেই কালা মিয়ার পরিবারের পক্ষ থেকে এজাহার জমা দেবেন।’

এ বিষয়ে বাঞ্ছারামপুর মডেল থানার এসআই পিয়ার আহম্মেদ বলেন, কেটে নেয়া পায়ের একাংশ উদ্ধার করতে শুক্রবার সারারাত থেকে আজকে এখনও পর্যন্ত রূপসদী গ্রামে বিভিন্ন বাড়ি, ডোবা, নালা ও পুকুরে তল্লাশি চালানো হচ্ছে।

বাঞ্ছারামপুর মডেল থানার ওসি মো. সালাহ উদ্দিন চৌধুরী জানান,‘রূপসদীর এই ঘটনাটি খুবই বর্বরোচিত। এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত কেউ রেহাই পাবে না। কালা মিয়ার স্ত্রী ও মা ঢাকায় হাসপাতালে রয়েছে। তাদেরকে মামলা করার ব্যাপারে আনার জন্য একজন পুলিশ অফিসার পাঠিয়েছি। শনিবার রাতের মধ্যেই মামলা দায়ের হতে পারে।’

এলাকাবাসী, আহতের পরিবার ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, রূপসদী গ্রামের কালা মিয়ার সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে বাঞ্ছারামপুর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহসভাপতি আবুল বাশারের বিরোধ চলে আসছিল। প্রায় দুই মাস আগে বাঞ্ছারামপুর উপজেলার রূপসদী গ্রামের একটি চুরির ঘটনাকে কেন্দ্র করে কালা মিয়ার বাড়িঘর আগুনে পুড়িয়ে দেয়া হয়।

ওই ঘটনায় কালা মিয়া বাদী হয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আদালতে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা আবুল বাশারকে প্রধানসহ ১৫-২০ জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার পর থেকে কালা মিয়ার সঙ্গে আবুল বাশারের দূরত্ব আরও বাড়তে থাকে।

এ ঘটনার জের ধরে শুক্রবার বিকালে আবুল বাশার ও তার লোকজন কালা মিয়া (৪৫) ও তার ছেলে বিল্পব মিয়াকে (১৯) বাড়ি থেকে ডেকে রূপসদী গ্রামের কান্দাপাড়া এলাকায় নিয়ে যান। সেখানে একটি বাড়ির পাশে ফেলে কালা ও তার ছেলেকে মারধর করে আবুল বাশার ও তার লোকজন।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×