ভালুকায় পুকুরে মিলল ৫০০ বছরের পুরনো মূর্তি

প্রকাশ : ২২ এপ্রিল ২০১৯, ১২:৪৪ | অনলাইন সংস্করণ

  ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি

ভালুকায় ৫০০ বছরের পুরনো মূর্তি উদ্ধার। ছবি: যুগান্তর

ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলায় পুরনো পুকুর খনন করতে গিয়ে কষ্টিপাথরের মূর্তি উদ্ধার করা হয়েছে। মূর্তিটি ৫০০ বছরের পুরনো বলে জানা গেছে।

সোমবার মূর্তি উদ্ধারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) রোমেন শর্মা।

তিনি জানান, রোববার উপজেলা প্রশাসনের কার্যালয় থেকে কার্যাদেশ নিয়ে উপজেলার পাড়াগাঁওয়ে যান আবদুস ছামাদ, আবদুল আলীম ও স্থানীয় মাটি ব্যবসায়ীরা।

তারা মজলিশ পাড়াগাঁও মৌজার ৫৩৮নং দাগের ৪ একর ২১ শতাংশ জমির ওপর গুচ্ছগ্রামের পুকুরটি মাছ চাষের জন্য ভ্যাকু দিয়ে পুনঃখনন কাজ শুরু করেন।  

খনন করতে গিয়ে পুকুরের মাঝখানের ১০-১২ ফুট নিচ থেকে কষ্টিপাথরের মূর্তিটি উদ্ধার করা হয়। এ খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে মূর্তিটি এক নজর দেখার জন্য বিভিন্ন গ্রাম থেকে হাজার হাজার লোকজন ভিড় জমান। 

রোমেন শর্মা জানান, প্রায় ১০ ফুট মাটির নিচ থেকে মূর্তিটি পাওয়া গেছে। এটি কী পথরের তার এখনও বলা যাচ্ছে না। ডিসির অফিসে নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে রাষ্ট্রীয় কোষাধারে জমা রাখা হবে। 

মূর্তিটি যদি কষ্টিপাথরেরও হয় খুব যে মূল্য হবে তার ঠিক নয়। কারণ সোনার দোকানের কষ্টিপাথর যত্রতত্র ফেলে রাখা হয়। 

স্থানীয়রা জানান, পাড়াগাঁও মৌজার গুচ্ছ গ্রামের এ জমিটি খাস খতিয়ানভুক্ত। জমিটি তৎকালীন মুক্তাগাছার জমিদার রঘুনাথ বাবুর জমিদারি স্টেট ছিল। জমিদারি প্রথা উচ্ছেদের পর সেটি খাস খতিয়ানভুক্ত হিসেবে রেকর্ড হয়। 

স্থানীয়দের ধারণা, মূর্তিটি ৫০০ বছরের পুরনো। মূর্তিটির মূল্য কত হতে পারে কেউ বলতে পারে না। তবে ধারণা করা হচ্ছে, মূর্তিটির মূল্য কয়েক কোটি টাকা হবে। 

মূর্তির দৈর্ঘ্য অনুমানিক দুই ফুট, প্রস্থ এক ফুট, ওজন ২৬ কেজি। উদ্ধারের পর মূতিটি কী পাথরের পরীক্ষা করার জন্য সন্ধ্যায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) রোমেন শর্মা পুলিশ প্রহরায় ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে নিয়ে যান। সেখানে গিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর মূর্তিটিকে জেলা প্রশাসকের (রাষ্ট্রীয়) কোষাধারে জমা রাখা হবে।

গুচ্ছগ্রামের বাসিন্দা আবদুল আলীম জানান, ছোটবেলা থেকে ভয়ে পুরনো ওই পুকুরে কেউ নামতাম না। মাছ চাষের জন্য পুকুরটি খনন করার সময় মাটির নিচ থেকে মূর্তিটি পাওয়া গেছে।