২০ বছরের দাম্পত্যে এ কেমন অঘটন!

  বগুড়া ব্যুরো ২৬ এপ্রিল ২০১৯, ২১:৫১ | অনলাইন সংস্করণ

বগুড়া

বগুড়ার নন্দীগ্রামে দাম্পত্য কলহে ইমতাজুর রহমান নামে এক ভ্যানচালক ঘুমন্ত স্ত্রী খোদেজা খাতুনকে (৩৮) ছুরিকাঘাতে হত্যা করেছে।

বৃহস্পতিবার গভীর রাতে উপজেলার হাজারকি গ্রামে শয়নঘরে ছুরিকাঘাতের পর শুক্রবার সকালে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে মারা যান।

এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় পুলিশ তার স্বামীকে গ্রেফতার ও হত্যায় ব্যবহৃত ছুরি উদ্ধার করেছে।

শুক্রবার সকালে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে। নিহতের ভাই সোহরাব আলী নন্দীগ্রাম থানায় ভগ্নিপতি ইমতাজুর রহমানের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেছেন।

নন্দীগ্রাম থানার ওসি নাসির উদ্দিন জানান, উপজেলার বুড়ইল ইউনিয়নের হাজারকি গ্রামের ইঞ্জিল সরকারের ছেলে ভ্যানচালক ইমতাজুর রহমান প্রায় ২০ বছর আগে একই উপজেলার বড়পুকুরিয়া গ্রামের গোলাম হোসেনের মেয়ে খোদেজাকে বিয়ে করেন। তাদের দুই মেয়ের মধ্যে প্রথমজনকে বিয়ে দেয়া হয়েছে।

তিনি জানান, ওই দম্পতির মধ্যে সাংসারিক নানা বিষয় নিয়ে কলহ চলে আসছিল। বৃহস্পতিবার রাতের খাবার পর ইমতাজুর ও খোদেজা তাদের ১০ বছর বয়সী মেয়েকে নিয়ে ঘুমাতে যান। রাত ২টার দিকে ইমতাজুরের চিৎকারে পরিবারের সদস্য ও প্রতিবেশীরা জেগে ওঠেন। তিনি তাদের জানান, দুর্বৃত্তরা জানালা দিয়ে খোদেজাকে ছুরিকাঘাত করেছে।

ওসি জানান, রাতেই খোদেজাকে উদ্ধার করে বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তিনি শুক্রবার ভোরে মারা যান। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ওই হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

পুলিশ কর্মকর্তা আরও জানান, স্বামী ইমতাজুর রহমান রহস্যজনক আচরণ করায় তাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। একপর্যায়ে তিনি দাম্পত্য কলহে তার ঘুমন্ত স্ত্রীকে ছুরিকাঘাতে হত্যার কথা স্বীকার করেন। পরে তার স্বীকারোক্তিতে বাড়ি থেকে হত্যায় ব্যবহৃত ছুরি উদ্ধার করা হয়েছে। ইমতাজুর রহমানকে আরও জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

ময়নাতদন্ত শেষে খোদেজার লাশ তার পরিবারের সদস্যদের দেয়া হয়েছে বলে তিনি জানান।

জেলার খবর