প্রেমিক বিয়ে করতে অস্বীকার করায় নার্সের আত্মহত্যা

  ভৈরব প্রতিনিধি ২৭ এপ্রিল ২০১৯, ২০:৩৭ | অনলাইন সংস্করণ

প্রেমিক বিয়ে করতে অস্বীকার করায় নার্সের আত্মহত্যা
তানিয়া বেগম। ছবি: সংগৃহীত

ভৈরবে প্রেমিক বিয়ে করতে অস্বীকার করায় তানিয়া বেগম (২৩) নামে এক তরুণী নার্স আত্মহত্যা করেছেন বলে খবর পাওয়া গেছে।

শনিবার সকালে বসতঘরে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে তানিয়া আত্মহত্যা করেন। উপজেলার মধ্যেরচর গ্রামে মিলন মীরের মেয়ে তানিয়া।

তানিয়ার প্রেমিকের নাম মিজানুর রহমান। মিজানের বাড়ি তানিয়াদের গ্রামের পাশে শ্রীনগরে। তার বাবার নাম আবুল কালাম।

তানিয়া ও মিজান দুজনই স্থানীয় সাজেদা আলাল হাসপাতালে চাকরি করার সুবাদে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন।

গত বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে তানিয়ার বাড়িতে গিয়ে ধরা পড়েন মিজান। পরে মিজান বিয়ে করতে অস্বীকার করায় রাগে-দুঃখে তানিয়া আত্মহত্যা করেন বলে তার পরিবারের অভিযোগ।

শনিবার দুপুরে পুলিশ তানিয়ার লাশ বাড়ি থেকে উদ্ধার করে থানায় নিয়েছে।

পারিবারিক সূত্রে জানায়, তানিয়া লেখাপড়ার পাশাপাশি স্থানীয় সাজেদা আলাল নামে একটি হাসপাতালে নার্সের চাকরি করতেন। অপরদিকে মিজানুর রহমান একই হাসপাতালে ফার্মেসিতে চাকরি করতেন। এই সুবাদে দুজনের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

গত বৃহস্পতিবার গোপনে গভীর রাতে তানিয়ার বাড়িতে যান মিজান। এ সময় বাড়ির লোকজনের চোখে ঘটনাটি ধরা পড়লে মিজানকে আটক করা হয়। পরে শুক্রবার সকালে মিজানের অভিভাবকদের খবর দেয়া হয়। এ সময় তানিয়ার অভিভাবকরা তানিয়াকে বিয়ে করতে মিজানকে চাপ দেন। কিন্তু মিজান তখন তানিয়াকে বিয়ে করতে অস্বীকার করেন।

এদিন এই ঘটনাটি আশপাশের মানুষের মধ্যে জানাজানি হলে তানিয়া লজ্জায় পড়ে যান। এরপর তানিয়ার পরিবারের লোকজন মিজানকে শুক্রবার দুপুরে হাসপাতালে রেখে আসে।

এদিকে ঘটনার পর প্রতিবেশী লোকজন তানিয়াকে ধিক্কার দিয়ে লজ্জা দিতে থাকে। পরে শনিবার সকালে তানিয়া অভিমান ও লোকলজ্জা সইতে না পেরে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন।

তানিয়ার মা শেফালী বেগম বলেন, তাদের প্রেমের বিষয়টি আমরা জানতাম না। গত বৃহস্পতিবার ঘটনার পর আমি চেয়েছিলাম ঘটনাটি মানুষের মধ্যে জানাজানি হয়েছে, তাই মেয়েকে তার সঙ্গে বিয়ে দিয়ে দেব। কিন্তু মিজান ও তার পরিবারের সদস্যরা রাজি না হওয়ায় বিয়ে হয়নি। ঘটনা শুনে প্রতিবেশী কিছু লোকজন আমার মেয়েকে ধিক্কারসহ গালমন্দ করেছে। এই লজ্জায় ও ক্ষোভে আমার মেয়েটা আত্মহত্যা করেছে। আমি ঘটনার বিচার চেয়ে থানায় মামলা করব।

ভৈরব থানার এসআই মো. আমজাদ হোসেন জানান, ঘটনার খবর পেয়ে তানিয়ার লাশ থানায় আনা হয় এবং রোববার তার লাশের ময়নাতদন্ত হবে।

তিনি বলেন, তানিয়ার পরিবার চাইলে আত্মহত্যার প্ররোচনাকারী হিসেবে প্রেমিক মিজানের বিরুদ্ধে মামলা হবে। বিষয়টি থানার ওসি মোখলেছুর রহমান জেনেছেন। তিনি আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবেন।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×