জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে জিডি করেও বাঁচতে পারল না মাসুম

প্রকাশ : ২৮ এপ্রিল ২০১৯, ২৩:০৬ | অনলাইন সংস্করণ

  ত্রিশাল (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি

মাজহারুল ইসলাম মাসুম

ময়মনসিংহের ত্রিশাল পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা তাজুল ইসলামের ছেলে মাজহারুল ইসলাম মাসুম টাঙ্গাইল জেলার সরকারি এমএম কলেজে উদ্ভিদ বিভাগের অনার্স শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন।

বাবার ইচ্ছা ছিল ছেলে শিক্ষিত হয়ে বড় একজন সরকারি কর্মকর্তা হবে। বাবার ইচ্ছাপূরণ করতে মাসুম রাজনীতিতে জড়িয়ে না পরে শিক্ষা জীবন চালিয়ে যাচ্ছিল। কিন্তু বাবার সেই ইচ্ছাপূরণ করার আগেই নিভে গেল মেধাবী শিক্ষার্থী মাসুমের জীবন প্রদীপ।

জানা গেছে, মাসুম সরকারি এমএম কলেজ এলাকার একটি ভাড়া বাসায় থেকে লেখাপড়া করছিল। গত ১৭ এপ্রিল রাত ৯টার পর মোবাইল ফোনে মাসুমকে প্রাণনাশের হুমকি দেয়। তারই প্রেক্ষিতে তিনি টাঙ্গাইল সদর থানায় জীবনের নিরাপত্তায় একটি জিডি করেন। বিষয়টি তিনি পারিবারিক সদস্যদের জানিয়েছিলেন।

জিডির ৯দিন পর শনিবার ত্রিশালে মোবাইল ফোনে খবর আসে মাসুম তার ভাড়া বাসায় ২৬ এপ্রিল গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। 
খবর পেয়ে মাসুমের বড় ভাই আবদুল্লাহ আল মামুন স্বজনদের নিয়ে টাঙ্গাইল সদর থানায় যায়। পুলিশের সহযোগিতায় শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে গিয়ে লাশ দেখে বুঝতে পারে তাকে তাকে হত্যা করা হয়েছে।

এ ঘটনায় শনিবার মাসুমের বড়ভাই আবদুল্লাহ আল মামুনকে বাদী হয়ে একটি অপমৃত্যুর অভিযোগ করেন। পরে স্বজনদের হাতে মাসুমের লাশ দেয়া হয়।

রোববার দুপুরে মাসুমের বড় ভাই আবদুল্লাহ আল মামুন ত্রিশালে প্রেসক্লাবে হত্যার বিচার চেয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন।

এসময় ত্রিশাল পৌরসভার প্যানেল মেয়র সাবেক অধ্যাপক গোলাম মোস্তুফা, ১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রেজাউল করিম সেলিম উপস্থিত ছিলেন।