ফনির আতংকে র্নিঘুম রাত কাটছে উপকূলবাসীর

  বিলাস দাস, পটুয়াখালী (দক্ষিণ) প্রতিনিধি ০৪ মে ২০১৯, ০১:৫৬:১০ | অনলাইন সংস্করণ

ফনির আতংকে র্নিঘুম রাত কাটছে উপকূলবাসীর। ছবি: সংগৃহীত

ঘুর্ণিঝড় ফনির প্রভাবে শুক্রবার সন্ধ্যা থেকে পটুয়াখালী জেলার বিস্তৃর্ণ এলাকায় বজ্রপাত, দমকা হাওয়া ও বৃষ্টিপাত শুরু হয়েছে। সাগর ও নদীতে জোয়ারের পানি বৃদ্ধি পেয়েছে।

উপকূলবাসীরা নিরাপত্তার জন্য সহায় সম্বল নিয়ে স্থানীয় স্কুল কলেজ, মসজিদ এবং সাইক্লোন শেল্টারে আশ্রয় নিয়েছে।

এদিকে পটুয়াখালী জেলার কয়েকটি উপজেলার বিস্তৃর্ণ এলাকার অরক্ষিত বেড়িবাঁধ দিয়ে জোয়ারের অতিরিক্ত পানি প্রবেশ করায় অন্তত ১৫টি গ্রাম প্লাবিত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। ফলে র্নিঘুম রাত কাটছে উপকূলবাসীর।

অপরদিকে ঘুর্ণিঝড় ফনি ক্রমশই বাংলাদেশের দিকে অগ্রসর হচ্ছে পটুয়াখালী আবহাওয়া অধিদফতর থেকে এমন খবর শুনে চরম আতংকে রয়েছে জেলার যেগাযোগ বিচ্ছিন্ন এলাকার লোকজন।

তবে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে দফায় দফায় সর্তকবার্তা পৌঁছে দেয়ার ফলে উপকূলীয় অঞ্চলের মানুষ কিছুটা ক্ষয়ক্ষতি থেকে রক্ষা পাওয়ার সম্ভবনা রয়েছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত (রাত দেড়টায় দিকে) আবহাওয়া অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে ঘুর্ণিঝড় ফনি বর্তমানে পায়রা সমুদ্র বন্দর থেকে অন্তত পৌনে ২শ' কিলোমিটার দূরে রয়েছে।

এর আগে শুক্রবার বিকাল ৫টার দিকে আবহাওয়া অফিস সূত্রে বলা হয়েছিল ঘুর্ণিঝড় ফনি পায়রা সমদ্র বন্দর থেকে অন্তত সাড়ে ৫ কিলোমটিার দূরে রয়েছে। সেক্ষেত্রে উপকূলের জনজীবনে আতংক বাড়ছে। তবে মধ্য অথবা শেষ রাতে বড় ধরনের হানা দিবে এমন আশংকায় রয়েছে উপকূলবাসী।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত