গুরুদাসপুরে টাকার জন্য নম্বর বোর্ডে না পাঠানোয় ফেল ২৩ শিক্ষার্থী!

  গুরুদাসপুর (নাটোর) প্রতিনিধি ০৭ মে ২০১৯, ২০:৩২ | অনলাইন সংস্করণ

নম্বর পত্র দেখাচ্ছে ফেল করা শিক্ষার্থীরা
নম্বর পত্র দেখাচ্ছে ফেল করা শিক্ষার্থীরা

নাটোরের গুরুদাসপুরের নাজিরপুর ইউনিয়নের চন্দ্রপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের (এসএসসি) ভোকেশনাল শাখায় টাকা না পেয়ে ব্যবহারিক পরীক্ষার নম্বর বোর্ডে না পাঠানোয় সব শিক্ষার্থীই ফেল করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

মঙ্গলবার সকালে সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, ওই বিদ্যালয়ে ভোকেশনাল শাখায় ২৩ শিক্ষার্থী এবার পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে। সোমবার ফলাফল ঘোষণা হওয়ার পর সবাই ফেল করেছে জানতে পেরে বিভিন্ন জায়গায় খোঁজ নেয়। এতে তারা জানতে পারে- প্রাতিষ্ঠানিক বাস্তব প্রশিক্ষণের নম্বর বোর্ডে জমা না দেয়ার কারণে তারা সবাই ফেল করেছে।

পরীক্ষার্থী রাজু, স্বাধীন, তারেক, আরিফুল, লিটনসহ অন্যরা অভিযোগ করে, তাদের কাছ থেকে প্রাতিষ্ঠানিক বাস্তব প্রশিক্ষণের নম্বর দেয়ার কথা বলে ওই প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা আড়াইশ’ টাকা করে দাবি করলে তারা ওই টাকা দেয়নি। এ জন্য তাদের প্রাতিষ্ঠানিক বাস্তব প্রশিক্ষনের নম্বর বোর্ডে পাঠানো হয়নি। যার কারণে তারা সবাই ফেল করেছে। ওই ঘটনার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট শিক্ষকের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবি জানায় তারা।

তবে তাদের মধ্যে পাঁচজনের কাছ থেকে ওই টাকা নেয়া হয়েছিল। পরবর্তীতে সভাপতি বিষয়টি জানতে পেয়ে ওই টাকা ফেরত দিতে বাধ্য করেন।

ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আজহারুল ইসলাম টাকা নেয়া বা চাওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, প্রাতিষ্ঠানিক বাস্তব প্রশিক্ষনের নম্বর বোর্ডে পাঠানোর জন্য শরীরচর্চা বিষয়ের শিক্ষক আমিনুল ইসলামকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল। ওই শিক্ষক নম্বর বোর্ডে পাঠিয়ে তাকে অবগত করেছিল বলে তিনি দাবি করেন। এ বিষয়ে বোর্ডে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা হাফিজুর রহমান জানান, ওই শিক্ষার্থীদের জীবন এখন সংশয়ে রয়েছে। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের দায়িত্বে অবহেলার কারণেই এ ঘটনা ঘটেছে। প্রধান শিক্ষককে বোর্ডে যোগাযোগ করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মিজানুর রহমান জানান, মৌখিকভাবে বিষয়টি জেনেছি। ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীদের অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×