রাজশাহীতে কৃষকের ধান কেটে দিলেন শিক্ষার্থীরা

  রাজশাহী ব্যুরো ১৯ মে ২০১৯, ১০:০১ | অনলাইন সংস্করণ

রাজশাহীতে কৃষকের ধান কেটে দিলেন শিক্ষার্থীরা
রাজশাহীতে কৃষকের ধান কাটছেন শিক্ষার্থীরা। ছবি: যুগান্তর

রাজশাহী পবা উপজেলার বিলনেপালপাড়ায় বিপদগ্রস্ত এক বর্গাচাষির জমির পাকা ধান স্বেচ্ছাশ্রমে কেটে দিলেন শিক্ষার্থীরা।

শনিবার ছাত্র ফেডারেশন রাজশাহী মহানগর, বিশ্ববিদ্যালয় এবং পবা উপজেলা শাখার উদ্যোগে এ ধান কেটে দেয়া হয়। শিক্ষার্থীদের এই মহতী উদ্যোগের প্রশংসায় মানুষ পঞ্চমুখ হয়েছে।

অনেকটাই দূরের গ্রাম পবার বিলনেপালপাড়া। স্ত্রী আর দুই সন্তানকে নিয়ে বর্গাচাষি কামরুজ্জামানের পরিবার। বিঘাপ্রতি ৬ হাজার টাকা বর্গা নিয়ে ধান ফলাতে হয় প্রতি বছরই। গত কয়েক বছর ধান চাষ করে সর্বস্বান্ত কামরুজ্জামান।

তবে এবারও রক্ত পানি করে ধান চাষ করেন। তবে অর্থাভাবে ধানকাটা ও বাঁধার শ্রমিক নিয়োগ দিতে পারেননি। জমিতেই ধান বেঁচে দিতে চাইলেও ধানের দাম কম হওয়ায় কেউ রাজি হয়নি।

শেষে তার এই দুরাবস্থার কথা জানতে পারে ছাত্র ফেডারেশনের শিক্ষার্থীরা। ছাত্র ফেডারেশন রাজশাহী মহানগর, বিশ্ববিদ্যালয় এবং পবা উপজেলা শাখার নেতাকর্মীরা শনিবার সকালে কাঁস্তে হাতে গিয়ে হাজির হয় কামরুজ্জামানের ক্ষেতে।

এসব শিক্ষার্থী দিনভর কাজ করে তুলে দেন বর্গাচাষি কামরুজ্জামানের ৬ বিঘা জমির ধান। ছাত্রদের এই মহানুভতায় মুগ্ধ কামরুজ্জামান।

তিনি বলেন, এরাই তো দেশের ভবিষ্যৎ। তারাই আমাদের দেশকে বাঁচাবে। কৃষক বাঁচাবে।

ছাত্র ফেডারেশন রাজশাহী মহানগর শাখার সদস্য গালিব হাসান বলেন, কলুর বলদের মতো খেটে আমাদের কৃষকরা ধান ফলায় কিন্তু ন্যায্যমূল্য পায় না। রাজশাহী মহানগর শাখার সম্পাদক জিন্নাত আরা আরও তাদের পরিষ্কার দাবি, কৃষকের ধানের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করতে হবে। কৃষক বাঁচলে দেশ বাঁচবে।

কামরুজ্জামান তার অসহায়ত্বের কথা বলতে গিয়ে বলেন, পয়সার জোর থাকলে এতদিন জমিতে ধানগুলো পড়ে থাকত না। এই ধান ফলানোই আমার একমাত্র জীবিকা। বছরটা কীভাবে যাবে জানি না। ছাত্ররা এসে আমার ধান কেটে দেয়ায় আমি ওদের কাছে কৃতজ্ঞ।

ছাত্র ফেডারেশন রাজশাহী মহানগর শাখার আহ্বায়ক ইয়াসিন আরাফাত বলেন, কৃষক মেরে আমাদের দেশে উন্নয়ন সম্ভব নয়। ছাত্র হিসেবে কৃষকের দুর্দিনে পাশে দাঁড়ানো যেমন আমাদের দায়িত্ব, তেমনি কৃষকের পাশে দাঁড়িয়ে তাদের হয়ে কথা বলাও আমাদের নৈতিক দায়িত্ব।

আমাদের ছেলেরা ওইসব চাষির ধান কেটে দেবে, যারা অর্থাভাবে পাকা ধান তুলতে পারছে না।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×