দুদকের মামলায় সাংবাদিক নদীর সাবেক শ্বশুর-শাশুড়ি কারাগারে

  পাবনা প্রতিনিধি ২২ মে ২০১৯, ২২:৪০ | অনলাইন সংস্করণ

আবুল হোসেন
আবুল হোসেন

দুদকের কাছে সম্পদের বিবরণী দাখিল না করার মামলায় পাবনা শহরের ইউনানি ওষুধ কোম্পানি ইড্রাল ও শিমলা ডায়গনস্টিক অ্যান্ড হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবুল হোসেন (৬২) ও তার স্ত্রী তাসলিমা হোসেনকে (৫৬) কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

বুধবার দুপুরে পাবনার অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক কামাল হোসেনের আদালতে উপস্থিত হয়ে জামিন প্রার্থনা করলে বিচারক তাদের জামিন নামঞ্জুর করে জেল হাজতে পাঠানোর আদেশ দেন।

বিশিষ্ট শিল্পপতি ইড্রাল ওষুধ কোম্পানির মালিক আবুল হোসেন পাবনায় দুর্বৃত্তদের হাতে নিহত নারী সাংবাদিক সুবর্না নদীর সাবেক শ্বশুর।

দুদকের পিপি খোন্দকার জাহিদ রানা জানান, সম্পত্তি বিবরণী দাখিলের জন্য দুদক পাবনাস্থ আঞ্চলিক কার্যালয় থেকে ২০১৮ সালের ৭ আগস্ট সিমলার এমডি আবুল হোসেন ও তার স্ত্রী তাসলিমা হোসেনের সম্পদ বিবরণী দাখিলের নোটিশ পাঠানো হয়। পরবর্তীতে ওই বছর ৪ সেপ্টেম্বর নোটিশের জবাব দেয়ার দিন ধার্য ছিল। কিন্ত নির্ধারিত সময়ের মধ্যে তিনি নোটিশের জবাব দিতে ব্যর্থ হন।

এর পরিপ্রেক্ষিতে দুদকের পক্ষ থেকে সে সময়ে পৃথক দুটি মামলা দায়ের করা হয়। এ বছরের মার্চ মাসে ওই মামলায় তাদের বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করেন মামলার বাদী দুদকের সহকারী পরিচালক আশিকুর রহমান। মামলা দায়েরের পর আবুল হোসেন ও তার স্ত্রী হাইকোর্ট থেকে চার্জশিট হওয়ার পর্যন্ত জামিনের আবেদন করলে হাইকোটের বিচারক তাদের জামিন মঞ্জুর করেন।

বুধবার ছিল ওই মামলা দুটির চার্জশিট দাখিলের নির্ধারিত দিন। এই দিন তারা আদালতে উপস্থিত হয়ে জামিনের আবেদন করলে বিচারক তাদের জামিন নামঞ্জুর করে জেলহাজতে পাঠানো নির্দেশ দেন।

এদিকে আসামিপক্ষের আইনজীবী আহসান হাবিব বলেন, দুদকের নোটিশ প্রাপ্তির পর পাবনার একটি চাঞ্চল্যকর নারী সাংবাদিক নদী হত্যা মামলায় সিমলার এমডি আবুল হোসেনকে পুলিশ তাকে তার প্রতিষ্ঠান থেকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারের কারণে যথাসময়ে তিনি সম্পদের বিবরণী দাখিল করতে পারেনি।

বিশিষ্ট শিল্পপতি ইড্রাল ওষুধ কোম্পানির মালিক আবুল হোসেন পাবনায় দুর্বৃত্তদের হাতে নিহত নারী সাংবাদিক সুবর্না নদীর সাবেক শ্বশুর।

আনন্দ টিভির পাবনা প্রতিনিধি সুবর্না নদী গত বছরের ২৮ আগষ্ট রাত সাড়ে ৮টার দিকে বাসায় ফেরার পথে বাসার গেটের সামনে একদল দুর্বৃত্তের ছুরিকাঘাতে নিহত হন। হত্যার পরদিন নদীর মা মর্জিনা বেগম ইড্রাল ফার্মাসিউটিক্যালস ও শিমলা ডায়াগোনস্টিক এর মালিক এবং নদীর সাবেক শ্বশুর আবুল হোসেন( ৬০), তার ছেলে নদীর সাবেক স্বামী রাজিব (৩৫), রাজিবের সহকারী মিলনসহ (৩৪) অজ্ঞাতনামা ৪/৫জনকে আসামি করে পাবনা থানায় মামলা করেন। এই মামলার পর আবুল হোসেনকে পুলিশ গ্রেফতার করলে পরে তিনি জামিনে ছাড়া পান।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×