হালদায় ডিম ছেড়েছে মা মাছ

  হাটাহাজারী প্রতিনিধি ২৬ মে ২০১৯, ১৪:০৭ | অনলাইন সংস্করণ

হালদায় ডিম ছেড়েছে মা মাছ
হালদা নদীতে রুইজাতীয় (রুই, কাতল, মৃগেল ও কালবাউশ) মা মাছ ডিম ছেড়েছে। ছবি: যুগান্তর

মিঠাপানির প্রাকৃতিক মৎস্য প্রজনন ক্ষেত্র চট্টগ্রামের হালদা নদীতে রুইজাতীয় (রুই, কাতল, মৃগেল ও কালবাউশ) মা মাছ ডিম ছেড়েছে।

শনিবার রাত পৌনে ৯টা থেকে নদীতে জেলেদের জালে বাড়তে থাকে ডিম পাওয়ার পরিমাণ। তবে পরিমাণে আগের বছরের তুলনায় অনেক কম বলে জানিয়েছেন ডিম সংগ্রহকারীরা।

হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুহুল আমিন জানান, শনিবার রাত সাড়ে ৮টার পর থেকে হালদা নদীর চারটি পয়েন্টে মা মাছ ধীরে ধীরে ডিম ছাড়তে শুরু করে। তবে রাত ১২টার দিকে পূর্ণমাত্রায় ছাড়ার পর জেলেরা ডিম সংগ্রহে নেমে পড়েন।

তিনি আরও জানান, হালদা নদীকে নির্বিঘ্নভাবে মা মাছ চলাচল করতে প্রতিদিন ড্রেজার দিয়ে হালদা থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধ, অবৈধ জাল ও ইঞ্জিনচালিত নৌকা ধ্বংস এবং মাছ শিকারিদের বিরুদ্ধে রাত-দিন অভিযান চলছে।

রুহুল আমিন বলেন, গত সাত মাসে প্রায় এক লাখ ঘনফুট বালু, এক লাখ ৩০ হাজার মিটার কারেন্ট জাল জব্দ করেছি। ধ্বংস করেছি ৫টি ড্রেজার, ৮টি বালু উত্তোলনকারী ইঞ্জিনচালিত নৌকা। জরিমানা করে আদায় করা হয়েছে ৫০ হাজার টাকা। দুজনকে এক মাস করে কারাদণ্ড এবং জব্দকৃত বালু নিলামে বিক্রয় করে দুই লাখ ২৫ হাজার টাকা সরকারি কোষাগারে জমা দিয়েছি।

যে চারটি পয়েন্টে মা মাছ ডিম ছেড়েছে, সেগুলো হলো- রামদাস মুন্সীরহাট, খলিফার ঘোনা, নাপিতের ঘোনা ও আজিমেরঘাট।

হালদা নদীর গবেষক ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মো. মনজুরুল কিবরিয়া বলেন, রাতে জোয়ার আসার পর মা মাছ ডিম ছেড়েছে। তবে পরিমাণে একেবারেই কম। জোয়ার আরও এক ঘণ্টা আছে। ভাটার টানেও অনেক সময় ডিম ছাড়ে। এই সময়ের মধ্যে আরও ডিম ছাড়তে পারে।

স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন হালদার সদস্য এসএম মুজিব বলেন, নদীতে এ মুহূর্তে প্রায় ৩৫০টি নৌকা আছে। এসব নৌকায় করে জেলেরা মাছের ডিম সংগ্রহ করছেন। জেলেদের কেউ এক বালতি, কেউ ২-৩ বালতি পর্যন্ত ডিম সংগ্রহ করেছেন। একেকজন ৫-৬ কেজি পর্যন্ত সংগ্রহ করেছেন। আরও ডিম সংগ্রহের অপেক্ষায় নদীতে আছেন জেলেরা।

হাটহাজারী উপজেলা জ্যেষ্ঠ মৎস্য কর্মকর্তা মোহাম্মদ আজহারুল আলম বলেন, সংগ্রহকারীরা হাটহাজারী উপজেলার মদুনাঘাট হ্যাচারিতে ৬০টি নৌকায় ১০০ বালতি ডিম ও শাহ মাদারী হ্যাচারিতে ৩০টি নৌকায় ৬০ বালতি ডিম সংগ্রহ করেছেন। প্রতি বালতির ওজন ১৫ কেজি। এ পর্যন্ত ২ হাজার ৪০০ কেজি ডিম দুটি হ্যাচারিতে এসেছে। সময় যত বাড়বে, ডিমের পরিমাণ তত বাড়বে বলে তিনি জানান।

প্রসঙ্গত প্রাকৃতিক মৎস্য প্রজনন ক্ষেত্র হালদা নদী। এটি বিশ্বের একমাত্র জোয়ারভাটা নদী যেখান থেকে সরাসরি রুইজাতীয় মাছের নিষিক্ত ডিম সংগ্রহ করা হয়। সাধারণত বৈশাখ-জ্যৈষ্ঠ মাসে পূর্ণিমায় প্রবল বর্ষণ আর মেঘের গর্জনের পর পাহাড়ি ঢল নামলে হালদা নদীতে রুই জাতীয় মাছ ডিম ছেড়ে আসছে।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×