১০ দিনেও বৃষ্টির খোঁজে কেউ আসেনি

  আসাদুজ্জামান ফারুক, ভৈরব থেকে ২৬ মে ২০১৯, ১৪:৫০ | অনলাইন সংস্করণ

১০ দিনেও বৃষ্টির খোঁজে কেউ আসেনি
ভৈরবে নিখোঁজ কিশোরী বৃষ্টি। ছবি: যুগান্তর

বোনের সঙ্গে ঢাকা শহরে বেড়াতে গিয়ে হারিয়ে যাওয়া বৃষ্টির (১২) খোঁজে কেউ আসেননি। ১০ দিন পেরিয়ে গেলেও ঠিকানা উদ্ধার করা যায়নি তার।

মেয়েটি নিজ গ্রামের নাম কোনোভাবেই মনে করতে পারছে না। জানার চেষ্টা করলে সে কোনো জবাব না দিয়ে চুপ করে থাকছে। আর এ জন্য ওই কিশোরীকে তার অভিভাবকদের কাছে পৌঁছে দিতে না পারায় উদ্বিগ্ন আশ্রয়দাতা ভৈরব পৌর মেয়র।

বৃষ্টির অভিভাবকদের খোঁজে ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম, থানাপুলিশ- এমনকি মাইকে প্রচার করা হয়েছে। কিন্তু কেউ তার খোঁজে আসেনি।

বৃষ্টি গত ১৬ মে রাজধানীর সায়েদাবাদ বাসস্ট্যান্ডে বাসের দুই শ্রমিক ফুসলিয়ে অসহায় ওই কিশোরীকে নিয়ে যাচ্ছিল। এ ঘটনা চোখে পড়ে এক স্কুল শিক্ষিকার।

কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচর গার্লস স্কুলের ওই শিক্ষিকা তখন মেয়েটির পরিচয় জানার চেষ্টা করেন। মেয়েটির কাছ থেকে তার সঠিক পরিচয় ও ঠিকানা জানতে না পারলেও ভৈরবে তার বাড়ি, সেটিই সে বারবার বলছিল।

ভৈরবের কথা শুনে একই জেলা এবং পাশাপাশি দুই উপজেলা হওয়ায় ওই কিশোরীকে তার সঙ্গে ভৈরবে নিয়ে যান শিক্ষিকা। ভৈরবে গিয়ে ওই শিক্ষিকা পৌর মেয়র অ্যাডভোকেট ফখরুল আলম আক্কাসের সঙ্গে যোগাযোগ করেন এবং তার হেফাজতে মেয়েটিকে রেখে যান।

এ বিষয়ে পৌর মেয়র অ্যাডভোকেট ফখরুল আলম আক্কাস জানান, তিনি মেয়েটিকে তার বাড়িতে নিয়ে যান। এর পর তিনি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে মেয়েটির ছবি দিয়ে এবং স্থানীয় পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দিয়ে তার আত্মীয়দের সন্ধানের প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। কিন্তু দীর্ঘ ১০ দিন অতিবাহিত হওয়ার পরও তার খোঁজে কেউ আসেননি।

বৃষ্টির ভরণপোষণের দায়িত্বে থাকা মেয়রের বড় ভাই মরহুম ফয়সুল আলমের একমাত্র মেয়ে ফাহিমা আলম লিফা বলেন, ‘কাকার (মেয়র) নির্দেশে আমি বৃষ্টিকে আমার বাসায় রেখেছি। কিন্তু ওর অভিভাবকদের খুঁজে না পাওয়া পর্যন্ত স্বস্তিবোধ করছি না। ওকে হারিয়ে ওর স্বজনরা যেন কত টেনশনে আছেন।’

এক প্রশ্নের জবাবে ফাহিমা আলম লিফা জানান, বৃষ্টির বাবার নাম শমসের ও মা শাবনূর। বাবা-মা কেউ বেঁচে নেই। বোনের নাম মীম এবং সাগর নামে তার এক ভাই মাদ্রাসায় পড়ে। গ্রামের নাম কোনোভাবেই মনে করতে পারছে না বলে জানায়। এর চেয়ে বেশি জানার চেষ্টা করলে সে কোনো জবাব না দিয়ে চুপ করে থাকে বলে জানান লিফা।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×