কুষ্টিয়ায় কৃষকের ধান গোলায়, গুদামে ব্যবসায়ীদের ধান

  মো. রেজাউল করিম, ভেড়ামারা (কুষ্টিয়া) প্রতিনিধি ২৭ মে ২০১৯, ২০:১৩ | অনলাইন সংস্করণ

কুষ্টিয়া

কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে কৃষকের উৎপাদিত ধান বস্তায় ভরে বা গোলায় রেখে অনিশ্চয়তায় মধ্যে দিন কাটালেও অসাধু সিন্ডিকেটের দখলে থাকা দৌলতপুর খাদ্য গুদাম ব্যবসায়ীদের ধানে পরিপূর্ণ হচ্ছে।

জেলার বৃহৎ উপজেলা দৌলতপুর। কৃষি নির্ভর এ উপজেলায় চলতি মৌসুমে বোরো ধানের বাম্পর ফলন হয়েছে।

দৌলতপুর কৃষি বিভাগের তথ্যমতে, চলতি মৌসুমে ৪৮১০ হেক্টর জমিতে বোরো ধান চাষ হয়েছে যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি। যা থেকে ধান উৎপাদন হয়েছে ৩ হাজার ২২৯ মেট্রিক টন। আর কৃষকের এ উৎপাদিত ধান পুরোটাই রয়ে গেছে তাদের ঘরে।

দৌলতপুর কৃষি অফিসার এ কে এম কামরুজ্জামান জানান, চলতি মৌসুমে বোরোর বাম্পার ফলন হয়েছে। কার্ডধারী কৃষকদের তালিকাসহ উৎপাদিত ধানের তথ্যাদি দৌলতপুর খাদ্য গুদাম কর্মকর্তাকে দেয়া হয়েছে। তবে তারা উৎপাদিত ধানের তুলনায় সীমিত পরিসরে ধান ক্রয় করবে।

দৌলতপুর খাদ্য গুদাম অফিস সূত্র জানিয়েছে, চলতি মৌসুমে তারা প্রতি কেজি ২৬ টাকা দরে ১৩৯ মেট্রিক টন ধান ক্রয় করবে। যা উৎপাদিত ধানের তুলনায় একেবারেই নগন্য। তাও সরাসরি কৃষকদের কাছ থেকে ক্রয় করার কথা। কিন্তু সোমবার পর্যন্ত দৌলতপুর খাদ্য গুদাম বিভাগ মাত্র ৪ জন কৃষকের কাছ থেকে মাত্র ৫ মেট্রিক টন ধান ক্রয় করেছে।

গত ১৫ মে কৃষকের কাছ থেকে সরাসরি ধান ক্রয় কার্যক্রম উদ্বোধন হওয়ার কথা থাকলেও কাগজে কলমে তা দেখানো হয়েছে।

রোববার দুপুরে উপজেলার হোসেনাবাদ বিশ্বাসপাড়া গ্রামের নান্নু বিশ্বাসের বাড়ি থেকে মাত্র ৪ জন কৃষকের কাছ থেকে ফটোসেশন করে ধান ক্রয় দেখানো হয়। যা কৃষকদের সঙ্গে তামাশা করা হচ্ছে বলে আবুল কাশেম নামে এক কৃষক মন্তব্য করেন।

ভাগজোত এলাকার জব্বার আলী নামে এক কৃষক জানান, কৃষি কার্ড নিয়ে দৌলতপুর খাদ্য গুদামে ধান বিক্রয়ের জন্য গেলে খাদ্য গুদাম কর্মকর্তা নানা তাল বাহানা করে ফেরত পাঠিয়েছে। একই অভিযোগ চিলমারীর নবীর উদ্দিন নামে অপর কৃষকের।

এদিকে গতকাল সোমবার পর্যন্ত দৌলতপুর খাদ্য গুদামে ২৪ মেট্রিক টন ৪৪০ কেজি ধান ক্রয় করার কথা জানানো হলেও ৫ মেট্রিক টন বাদে বাকি ক্রয়কৃত ধান দৌলতপুর খাদ্য গুদাম কর্মকর্তার যোগসাজসে সিন্ডিকেট চক্র সরবরাহ করেছে।

দীর্ঘদিন ধরে দৌলতপুর খাদ্য গুদাম কেন্দ্রিক একটি সিন্ডিকেট মৌসুমভিত্তিক ধান চাল সরবরাহ করে থাকে। এরই ধারাবাহিকতায় ওই চক্রটি সরকারি সিদ্ধান্ত অমান্য করে দৌলতপুর খাদ্য গুদাম কর্মকর্তার সঙ্গে যোগসাজস করে এবারও ধান সরবরাহ করছে।

তবে দৌলতপুর খাদ্য গুদাম কর্মকর্তা ইকবাল হোসেন তার বিরুদ্ধে অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী কার্ডধারী কৃষকদের কাছ থেকে ধান ক্রয় করা হচ্ছে। এ যাবত কৃষকদের কাছ থেকে ২৪ মেট্রিক টন ৪৪০ কেজি ধান ক্রয় করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে বাকি ধান ক্রয় করা হবে।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×