শোলাকিয়ায় মুসল্লিদের নিরাপত্তায় সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে

প্রকাশ : ০২ জুন ২০১৯, ২০:৫৫ | অনলাইন সংস্করণ

  কিশোরগঞ্জ ব্যুরো

শোলাকিয়া ঈদগাহ ময়দান পরিদর্শন শেষে আনুষ্ঠানিক প্রেস ব্রিফিংয়ে সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী

কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক ঈদগাহ পরিচালনা কমিটির সভাপতি সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী বলেছেন, দেশের সর্ববৃহৎ ঈদগাহ ময়দান কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ার ঈদুল ফিতরের জামাতে এবার নিরাপত্তার বিষয়টিকে সর্বাধিক গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, ২০১৬ সালের ঘটনা আর নিউজিল্যান্ড, শ্রীলঙ্কাসহ দেশ-বিদেশের সাম্প্রতিক জঙ্গি হামলাকে মাথায় রেখে মুসল্লিদের সার্বিক নিরাপত্তা বিধানে সাজানো হয়েছে নিশ্চিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থার ছক।

রোববার দুপুরে ঐতিহাসিক শোলাকিয়া ঈদগাহ ময়দান পরিদর্শন শেষে আনুষ্ঠানিক প্রেস ব্রিফিংয়ে সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী এ কথা জানিয়েছেন।

এ সময় তিনি নিরাপত্তা ব্যবস্থার পাশাপাশি মুসল্লিদের থাকা-খাওয়া ও যাতায়াত সুবিধার বিষয়গুলো তুলে ধরে তিনি জানান, ঈদের দিন মুসল্লিদের সুবিধার্থে ময়মনসিংহ ও ভৈরব জংশন থেকে দুটি স্পেশাল ট্রেন কিশোরগঞ্জে আসা-যাওয়া করবে। এছাড়া শহরের উপকণ্ঠে নরসুন্দা নদী তীরে অবস্থিত ঐতিহাসিক শোলাকিয়া ঈদগাহ ময়দানে অনুষ্ঠিতব্য ১৯২তম জামাতে এবারও মাওলানা ফরিদ উদ্দিন মাসউদ ইমামতি করবেন বলে জানান তিনি।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক মো. আবদুল্লাহ, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. হাবিবুর রহমান, পৌর মেয়র মাহমুদ পারভেজ, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহাদী হাসান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের ৭ জুলাই ঈদুল ফিতরের জামাতের আগে দেশের ঐতিহাসিক ঈদগাহ শোলাকিয়া ময়দানের প্রবেশপথের আজিম উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন সবুজবাগ সংযোগ সড়কে তল্লাশির সময় পুলিশের ওপর ভয়াবহ জঙ্গি হামলার ঘটনা ঘটে। এ হামলার ঘটনায় কর্তব্যরত পুলিশ কনস্টেবল আনছারুল হক, জহিরুল ইসলাম এবং সবুজবাগ এলাকার গৃহবধূ ঝর্ণা রাণী ভৌমিক ও আবির হোসেন নামের এক জঙ্গি ঘটনাস্থলে নিহত হয়। এছাড়া ১২ পুলিশ সদস্য এবং চার মুসল্লি আহত হয়।