বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পেতে বান্ধবীর বাসায়...

প্রকাশ : ০২ জুন ২০১৯, ২১:৪৩ | অনলাইন সংস্করণ

  কচুয়া (চাঁদপুর) প্রতিনিধি

চাঁদপুরের কচুয়া ক্যামব্রিয়ান স্কুলের অষ্টম শ্রেণির এক ছাত্রীকে (১৩) তার বাবা ও মামা কর্তৃক জোরপূর্বক বিয়ে দেয়ার চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে।

এ ঘটনায় ওই ছাত্রী বাল্যবিয়ের হাত থেকে রক্ষা পেতে গত ৪ দিন যাবৎ তার বান্ধবীর বাসায় অবস্থান করার খবর পাওয়া গেছে।
 
জানা গেছে, উপজেলার হারিচাইল-পদুয়া গ্রামের বাসিন্দা মো. বিল্লাল হোসেন কচুয়া পৌরসভাধীন পলাশপুর এলাকায় বাড়ি নির্মাণ করে বসবাস করছেন। তার কন্যা বর্তমানে কচুয়া ক্যামব্রিয়ান স্কুলে ৮ম শ্রেণিতে অধ্যয়নরত রয়েছে। বিল্লাল হোসেন ও ছাত্রীর মামা আবুল হাছানাত মাস্টার মিলে বিল্লাল হোসেনের বড় ভাই মকবুল হোসেনের প্রবাসী ছেলে যুবক মহিনের সঙ্গে জোরপূর্বক বিয়ে দেয়ার চেষ্টা চালায়। পরে ওই ছাত্রী বান্ধবীর বাসায় চলে যায়।

ওই ছাত্রী জানায়, আমার বাবা ও মামা আমাকে আমার প্রবাসী চাচাত ভাই মহিনের সঙ্গে জোরপূর্বক বিয়ে দিতে চায়। কিন্তু আমি এতে রাজি নই। আমি লেখাপড়া করে আমার ভবিষ্যৎ গড়তে চাই।

স্কুল ছাত্রীর বাবা বিল্লাল হোসেন বলেন, আমার মেয়ে কুরআন শরীফ পড়তে চায় না, মোবাইলে কথা বলে, আমি বাধা দিলে সে ৪ দিন পূর্বে বাসা থেকে স্কুলে যাওয়ার পর এখনও  বাসায় আসছে না। তবে বিয়ে দেয়ার বিষয়টি তিনি পাশ কাটিয়ে যান।

অন্যদিকে মেয়ের মামা আবুল হাসানাত মাস্টারের বক্তব্য জানতে বার বার ফোন করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

এ ব্যাপারে কচুয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার নীলিমা আফরোজ বলেন, বিষয়টি আমি শুনেছি। মেয়ের বাবা ও বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে আমার কার্যালয়ে সোমবার ডেকেছি।  ১৮ বছরের আগে কোনোভাবেই এ মেয়ের বিয়ে দেয়া যাবে না।

স্কুলের প্রধান শিক্ষক মো. আমির হোসেন মজুমদার জানান, বিষয়টি ওই ছাত্রী আমাকে মৌখিকভাবে জানিয়েছে। আমি ওই ছাত্রীর বাবাকে বাল্যবিয়ে না দেয়ার কথা বলেছি।