পদ্মার নিরাপত্তায় নৌ পুলিশ

  রাজশাহী ব্যুরো ২০ জুন ২০১৯, ২১:৫৩ | অনলাইন সংস্করণ

পদ্মা নদী থেকে উদ্ধার করা জালগুলো পুড়িয়ে বিনষ্ট করে নৌ পুলিশ
পদ্মা নদী থেকে উদ্ধার করা জালগুলো পুড়িয়ে বিনষ্ট করে নৌ পুলিশ

রাজশাহীর পদ্মা নদীতে যাত্রা শুরু করেছে নৌ পুলিশ। ১০ জন জনবল নিয়ে রাজশাহীর পবা ও গোদাগাড়ী উপজেলায় দুটি নৌ পুলিশ ফাঁড়ি খোলা হয়েছে। সম্প্রতি জনবল পাওয়ার পর এই বাহিনী কাজও শুরু করেছে।

বুধবার রাতে পবা নৌ পুলিশ ফাঁড়ির সদস্যরা পদ্মা নদীতে প্রথম অবৈধ কারেন্ট জালের বিরুদ্ধে অভিযানে নামেন।

এ দিন তারা চর খিদিরপুর এলাকায় পদ্মা নদীতে অভিযান চালিয়ে ১ লাখ ৯ হাজার টাকার অবৈধ জাল জব্দ করে। এর মধ্যে প্রায় ১ লাখ টাকা মূল্যের ছিল আড়াই হাজার মিটার বেড়জাল এবং ৯ হাজার টাকা মূল্যের ৩০০ মিটার কারেন্ট জাল। জালগুলো পুড়িয়ে বিনষ্ট করা হয়েছে।

এ অভিযানে নেতৃত্ব দেন পবা নৌ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক মেহেদী মাসুদ। পবা উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা আবু বক্কর সিদ্দিকও নদীতে এ অভিযানে অংশ নেন।

পবা নৌ পুলিশ ফাঁড়ির কার্যালয় খোলা হয়েছে রাজশাহী মহানগরীর উপকণ্ঠ বসড়ি এলাকার বাঁধের পাশে। আর গোদাগাড়ীতে ফাঁড়ির কার্যালয় খোলা হয়েছে উপজেলার রেলবাজার এলাকায়।

পবা পুলিশ ফাঁড়িতে এখন একজন পরিদর্শক, একজন এএসআই ও পাঁচজন কনস্টেবল রয়েছেন। আর গোদাগাড়ীতে একজন করে রয়েছেন পরিদর্শক, এএসআই ও কনস্টেবল। অতি সম্প্রতি তারা নৌ পুলিশ ফাঁড়িগুলোতে যোগ দিয়েছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, নৌ পুলিশের সদর দফতর ঢাকার মিরপুরে। তবে এই বাহিনীর রাজশাহী অঞ্চল পরিচালিত হয় টাঙ্গাইলের আঞ্চলিক কার্যালয় থেকে। সেখানে একজন পুলিশ সুপার (এএসপি) দায়িত্বে রয়েছেন। তার নির্দেশনা মোতাবেক কাজ করবে রাজশাহীর নৌ পুলিশ ফাঁড়ির সদস্যরা। অদূর ভবিষ্যতে রাজশাহী মহানগরীতে একটি নৌ থানা স্থাপনের পরিকল্পনা রয়েছে।

পবা নৌ পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক মেহেদী মাসুদ জানান, রাজশাহীতে নৌ পুলিশের যাত্রা শুরু করার সব প্রক্রিয়া শেষে গেল বছরের অক্টোবরে তাকে এখানে পাঠানো হয়। তিনি এসে একটি বাড়ি ভাড়া নিয়ে কার্যালয় খোলেন। তবে তিনি ছাড়া আর কোনো জনবল ছিল না। সম্প্রতি জনবল পাওয়া যায়। এরপর বুধবার রাতে প্রথমবারের মতো পদ্মা নদীতে অভিযান চালানো হয়। কিছুদিন আগে গোদাগাড়ীতেও ফাঁড়ি চালু হয়েছে।

মেহেদী মাসুদ জানান, রাজশাহীতে নৌ পুলিশের পরিধি হবে গোদাগাড়ী থেকে চারঘাট উপজেলা পর্যন্ত পদ্মা নদী। এ জন্য চারঘাট ক্যাডেট কলেজের কাছে আরও একটি নৌ পুলিশ ফাঁড়ি স্থাপনের প্রক্রিয়া চলছে। এছাড়া রাজশাহী পুলিশ লাইনের সামনে পদ্মা নদীর তীরে একটি থানা স্থাপনেরও পরিকল্পনা রয়েছে। এ নিয়ে দাপ্তরিক কার্যক্রম এগিয়ে চলছে বলেও জানান তিনি।

দুই ফাঁড়িতে ১০ জন জনবল পর্যাপ্ত কি না জানতে চাইলে নৌ পুলিশের এই কর্মকর্তা বলেন, এটা পর্যাপ্ত জনবল নয়। এই জনবল দিয়েই শুরুটা করতে হলো। পর্যায়ক্রমে আরও জনবল দেয়া হবে। এই মুহূর্তে তারা নৌকা ভাড়া করে কাজ শুরু করেছেন। তবে তারা সরকারের তরফ থেকে স্পিড বোট এবং নৌকাও পাবেন। তখন তারা আরও বেশি কাজ করতে পারবেন।

পদ্মা নদীতে মাদক ও অস্ত্র চোরাচালান, জাটকা ধরা এবং নিষেধাজ্ঞার সময় মা ইলিশ নিধন এবং অবৈধ জালের ব্যবহার ঠেকাতে পদ্মা নদীতে কাজ করবে নৌ পুলিশ। যতদিন নিজস্ব থানা না হচ্ছে ততদিন যে থানা এলাকায় অভিযান চালানো হবে সে থানাতেই আইনগত ব্যবস্থা নেবে নৌ পুলিশ।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×